নবগঠিত ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগ কমিটির সদস্যদের সংবর্ধনা দিল মাসদাইরবাসী

আজ ১৭ জানুয়ারি , মাসদাইর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গসংগঠনের পক্ষ থেকে ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের নবগঠিত কমিটিতে স্থান করে নেওয়া কোষাধ্যক্ষ আলহাজ্ব মীর জাকারিয়া জাকির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মোঃ মতিউর রহমান প্রধান, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা নাসিমা আক্তার বিউটি, সহ দপ্তর সম্পাদক হাজী মোঃ রাজিব হোসেন মিঠু, কার্যনির্বাহী সদস্য হাজী মোঃ মোস্তফা কন্ট্রেকটার ও শ্রী রঞ্জিত মন্ডল কে সংবর্ধনা ও ফুলের শুভেচ্ছা জানান। সংবর্ধনা সভায় বৃহত্তম মাসদাইর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি মোঃ শাজাহান মাতবর এর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন বৃহত্তম মাসদাইর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আলহাজ্ব আলাউদ্দিন মাহাজন, যুগ্ম সম্পাদক সম্পাদক খিদির আহাম্মেদ, প্রচার সম্পাদক হীরন, আওয়ামীলীগ নেতা আশরাফ, ফারহানা আক্তার, ফতুল্লা থানা আওয়ামী যুবলীগ নেতা মোঃ মিজানুর রহমান মিজান, আব্দুল গাফফার, মোঃ রবিউল ইসলাম রানা। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সার্বিক আয়োজনে ছিলেন বৃহত্তম মাসদাইর আওয়ামী যুবলীগ নেতা মোঃ রাসেল প্রধান, নিজাম প্রধান, মাহাবুব, জুয়েল প্রধান, মনির প্রধান, মোক্তার মাদবর দেলোয়ার হোসেন, রাসেদ ও মুরাদ প্রমুখ।

শামীম ওসমানের সু-দৃষ্টির কারনে আজকে এতো উন্নয়ন: জাহাঙ্গী হোসেন

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার বক্তাবলী পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় সমিতির উদ্দ্যেগে দুস্থ্য ও অসহায় মানুষের মাঝে বস্ত্র ও হুইল চেয়ার বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার ( ১৬ জানুয়ারী ) বিকেলে বক্তাবলীর ছমিরনগর খেলার মাঠে অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তাবলী পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় সমিতির সভাপতি মোকশেদ আলী শেখের সভাপতিত্বে ও তুহিন হাসানের সঞ্চালনায় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল্লাহ লিটনের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য ও ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন।

প্রধান অতিথি জাহাঙ্গী হোসেন বলেন, বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নের সরকার। আওয়ামীলীগ সরকার গঠনের পর সারা দেশে উন্নয়নের ছোয়া লেগেছে। পম্মা সেতু নির্মান থেকে শুরু করে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে সরকার কাজ করে যাচ্ছেন। সারা দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন খুব শিগ্রই বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে পরিচিত করে তুলতে পারবে। আর সেই সেত্রীর ছোট ভাই এমপি শামীম ওসমান তার নির্বাচনী এলাকায় উন্নয়ন করে যাচ্ছেন। বক্তাবলী সহ নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের প্রতিটি পাড়া মহল্লায় উন্নয়নের ছোয়া রয়েছে। শামীম ওসমানের সু-দৃষ্টির কারনে আজকে এতো উন্নয়ন। এছাড়া জাহাঙ্গীর হোসেন বক্তাবলীর ছমিরনগরে একটি খেলার মাঠ করে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- ছমিনগর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি হাছান আলী মাদবর, ধলেশ্বরী তীরের সভাপতি নুরুজ্জামান জিকু, সাধারণ সম্পাদক ও প্রেসবাংলা’র সম্পাদক আব্দুলাহ আল ইমরান, বক্তাবলী পল্লী উন্নয়ন সমবায় সমিতির উপদেষ্টা পিয়ার শেখ, বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী সাদেক হোসেন, বিশিষ্ট সমাজসেবক ইয়াকুব আলী, পূর্ব চরগড়কুল উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি নাজির হোসেন, বিশিষ্ট সমাজসেবক নাজির হোসেন, বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী সাহাব উদ্দিন, সমাজসেবক আলেক চান, সমাজসেবক আবুল কালাম ও খন্দকার খোরশেদ আলম’র সহধর্মিণী লুনা খন্দকার।

আরও উপস্থিত ছিলেন বক্তাবলী পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় সমিতির সবুজ আহম্মেদ, এমদাদ হোসেন, শরিফ হোসেন, আলম মিয়া, হাবিবুল্লাহ, মফিজ উদ্দিন, মাসুদ, পিয়াস, শাহিন, রুবেল, মিজান, তাইজুল ইসলাম, মনির হোসেন, ইসলাম, আলী আহাম্মেদ প্রমুখ।

এদিকে অনুষ্ঠান শেষে প্রতিবন্ধি অসহায় দুইজনকে দুটি হুইল চেয়ার ও এলাকার অসহায় ও গরীবদের মাঝে শাল, শাড়ি লুঙ্গি ও খেলাধুলার সরঞ্জাম বিতরণ করা হয়।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

সদ্য ঘোষিত আহবায়ক কমিটিতে জেগে উঠলো না.গঞ্জ বিএনপি

দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল হচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। সারাদেশেই রয়েছে তাদের জনসমর্থন রয়েছে কর্মীবাহিনী। কিন্তু এই জনসমর্থন ও কর্মীবাহিনী থাকা সত্ত্বেও রাজধানীর পার্শ্ববর্তী জেলা নারায়ণগঞ্জে বিএনপির নেতাকর্মীরা দলীয় আন্দোলন সংগ্রামে তেমন একটা ভূমিকা রাখতে পারছিলেন না। প্রায় সকল আন্দোলন সংগ্রামেই তাদের নিরব ভূমিকা লক্ষ্য করা যেত। কর্মসূচি পালন করলেও সেটা গলির মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। রাজপথে তাদের দেখা মিলত না।

কিন্তু নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সদ্য ঘোষিত আহবায়ক কমিটি হওয়ার পর থেকেই নেতাকর্মীদের মধ্যে যেন গণজোয়ার উঠেছে। বিএনপির নেতৃত্বে আসলেন আহবায়ক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদ। আর তাদের নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা জেগে উঠেছেন। তারা নতুনরুপে ফিরে এসেছেন নারায়ণগঞ্জের রাজপথে। মনে হয় যেন এমন নেতৃত্বের অপেক্ষায়ই ছিলেন নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির দ্বিতীয় কর্মসূচি ছিল দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে করা মামলায় চার্জগঠন ও গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদে মানববন্ধন। ১৬ জানুয়ারী শনিবার সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

আর এই মানববন্ধনকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে ছিল সরগরম উপস্থিতি। নারায়ণগঞ্জের প্রায় প্রত্যেক এলাকা থেকে একের পর এক খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে আসতে আসতে মানবববন্ধন বিশাল সমাবেশে পরিণত হয়। নেতাকর্মীদের উপস্থিতি দেখে মনে হয়নি যে তারা দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতার বাইরে রয়েছেন। আহবায়ক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদের নেতৃত্বে যেন নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা বহু দিন পর প্রাণ ফিরে পেয়েছেন।

যে বিএনপি কোনো কর্মসূচি নিয়ে প্রেসক্লাবের গলি থেকে বের হতে পারতো না সেই বিএনপি রাজপথে এসে বিশাল মাননববন্ধন করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদের পরিচালনায় আহবায়ক কমিটির প্রায় সকল সদস্যরাই উপস্থিত ছিলেন। একই সাথে নেতাকর্মীদের বিশাল অংশগ্রহণে পুলিশে কোনো বাধা ছাড়াই তাদের দলীয় কর্মসূচি পালন করছেন। যা গত কয়েকবছরে নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে দেখা মিলেনি। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি প্রেসক্লাবের গলির মধ্যে সীমাবদ্ধ থেকে গেলেও এবার অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও অধ্যাপক মামুন মাহমুদের নেতৃত্বে রাজপথে নেমে এসেছেন।

এর আগে গত ৩১ ডিসেম্বর রাতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ৪১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটির ঘোষণা দিয়েছিলেন। আর এতে আহবায়ক করা হয় অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে এবং সদস্য সচিব করা হয় অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে। আর এই কমিটি ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে দিয়ে নেতাকর্মীদের সমাগম ঘটিয়ে চলছেন।

দলীয় সূত্র বলছে, ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী জেলা বিএনপির ২৬ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটির তালিকা প্রকাশ করা হয়। জেলা বিএনপির সাবেক কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী মনিরুজ্জামানকে সভাপতি ও জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে সাধারণ করে জেলা বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। তবে ওই কমিটি নারায়ণগঞ্জ তেমন একটা প্রভাব ফেলতে পারেনি।এরপর ২০১৯ সালের ২৩ মার্চ দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান এবং সেক্রেটারী অধ্যাপক মামুন মাহমুদ সহ ২০৫ জনের পূর্ণাঙ্গ কমিটির ঘোষণা দিয়েছিলেন। আর এই পূর্ণাঙ্গ কমিটিও দলীয় আন্দোলন সংগ্রামে জোড়ালো কোনো ভূমিকা রাখতে পারেনি। প্রায় সকল কর্মসূচিতেই তাদের নিরব ভূমিকা লক্ষ্য করা যেত।

কর্মসূচিতে অধ্যাপক মামুন মাহমুদ উপস্থিত থাকলেও সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান প্রায় সব কর্মসূচিতেই অনুপস্থিত থাকতেন। সেই সাথে নেতাকর্মীদেরও উপস্থিতি থাকতো হাতেগুনা। এবার আহবায়ক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও সদস্য সচিব মামুন মাহমুদের নেতৃত্বে সেই গন্ডি থেকে বেরিয়ে আসছে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা।

সূত্রঃ নিউজ নারায়ণগঞ্জ

ওসমান পরিবার নিয়ে যে কথা জানালেনঃশাহ নিজাম

নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাসী প্রভাবশালী রাজনৈতিক ‘ওসমান পরিবার’ এর প্রতি অনুগত হয়ে ভিন্ন এক পরিকল্পনা কথা জানালেন তারুণের স্বপ্ন পুরুষ শাহ্ নিজাম।

১৬ জানুয়ারী (শনিবার) বিকেলে একটি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শাহ্ নিজাম বলেন, এই অনুষ্ঠানের দাওয়াত পেয়ে নিজেকে ধন্য মনে করেছি। নাসিম ওসমান, সেলিম ওসমান, শামীম ওসমানের অনুষ্ঠানে আমি বিশেষ অতিথি হিসেবে দাওয়াত পেয়েছি ও গিয়েছি। আজকে অয়ন ওসমানের প্রোগ্রামেও বিশেষ অতিথি হিসেবে দাওয়াত পেয়ে ধন্য মনে করছি। অয়ন ওসমানের কাছে দাবি, তার ছেলের অনুষ্ঠানেও যেন বিশেষ অতিথি হিসেবে দাওয়াত পাই। আল্লাহ যেন সেই নেক হায়াত দান করেন ।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ্ নিজাম সবার কাছে দোয়া চেয়ে বলেন, আল্লাহ যেন হায়াতে তৈয়াবা দান করেন। ওসমান পরিবারের আগামী প্রজন্ম ‘আরজিয়ান ওসমান’ এর অনুষ্ঠানেও যেনবিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত হতে পারি।

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের পুত্র অয়ন ওসমান। তার পুত্র আরজিয়ান ওসমান এর নামে ইসদাইর সমাজ উন্নয়ন সংস্থা একটি ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করে। ফতুল্লার ইসদাইরস্থ ওসমানী পৌর স্টেডিয়ামে ওই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক তানভীর আহমেদ টিটু। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ্ নিজাম।

আরজিয়ান ওসমান চ্যালেঞ্জ কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০২১ এ ১৩টি দল অংশ নিচ্ছে। প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন ঘোষণা করেন, নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাবের খেলাধুলা বিষয়ক সম্পাদক ইমতিনান ওসমান অয়ন।

রূপগঞ্জের তারাব নির্বাচন: বিজয়ী হলেন যারা

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের তারাব পৌরসভা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় আগেই মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী হাসিনা গাজী। এছাড়া পৌরসভার ৩টি ওয়ার্ডের সাধারণ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছিলেন ৩ কাউন্সিলর। বাকি ছিলো তারাব পৌরসভার বাকি ৬টি ওয়ার্ডের সাধারণ আসনে কাউন্সিলররা।

শনিবার ( ১৬ জানুয়ারি ) সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) তারাব পৌর নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের ৪৩ কেন্দ্রেই ইভিএম-এ ভোট গ্রহণ করা হয়। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রেই পুরুষ ও মহিলা ভোটারদের উপস্থিতি ছিল।

নির্বাচন শেষে রাতে রূপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। ফলাফল ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার মতিয়ুর রহমান।

বাকি ৬ ওয়ার্ডের বিজয়ী কাউন্সিলররা হলেন- ২নং ওয়ার্ডে জসীম উদ্দিন ভুঁইয়া, ৩নং ওয়ার্ডে রাসেল সিকদার, ৫নং ওয়ার্ডে মো. হামিদুল্লা, ৭নং ওয়ার্ডে আনোয়ার হোসেন, ৮নং ওয়ার্ডে আমীর হোসেন ও ৯নং ওয়ার্ডে আতিকুর রহমান। অন্যদিকে ৩টি সংরক্ষিত আসনে বিজয়ী মহিলা কাউন্সিলররা হলেন-১নং ওয়ার্ডে লায়লা পারভিন, ২ নং ওয়ার্ডে মাহফুজা বেগম ও ৩নং ওয়ার্ডে জোসনা বেগম।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় আগেই নির্বাচিত হয়েছিলেন ১নং নম্বর ওয়ার্ডে রফিকুল ইসলাম, ৪নং নম্বর ওয়ার্ডে আক্তার হোসেন এবং ৬নং নম্বর ওয়ার্ডে মাহবুবুর রহমান।

মানবতার মানুষ সংগঠনের পক্ষ থেকে শীতবস্ত্র বিতরণ

মানবতার মানুষ সংগঠনের পক্ষ থেকে শীতার্ত মানুষদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরন করা হয়েছে।


আজ ১৬ জানুয়ারী (শনিবার ) ভোলাইল কেন্দ্রীয় ঈদগা ময়দানে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক চেয়ারম্যান মোমেন সিকদারসহ কাশীপুরের অনলাইন প্লাটফর্মের এডমিন মডারেটর এবং কাশীপুর বাসী গ্রুপের এডমিন মোঃ আশ্রাফুল সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ। এছাড়া মানবতার মানুষ সংগঠন এর এডমিন শাহাদাত বাবু ও এস.এম.আরিফউল্লাহ আরিফ সহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিল উক্ত অনুষ্ঠানে।

গাড়ি ও বাবার টাকা দিয়ে মেয়েদের প্রলোভনের ফাঁদে ফেলতো দিহান

বাবার অঢেল টাকা। গ্রামের বাড়িতে বিশাল সম্পত্তি। রাজধানী ঢাকায় নিজস্ব ফ্ল্যাট। আর ছিলো দামি একটি গাড়ি। সব মিলিয়ে অল্প বয়সী মেয়েদের প্রলোভনের ফাঁদে ফেলা ছিলো দিহানের জন্য মামুলি একটি বিষয়। তার এই প্রলোভনে পড়ে অনেক মেয়েরই সর্বনাশ হয়েছে। সবশেষে রাজধানীর কলাবাগানে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থী ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসে।

বিভিন্ন গণমাধ্যম ও দিহানের পরিচিতদের সূত্রে জানা গেছে, আনুশকার আগেও একাধিক মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো দিহানের। বাবার অর্থবিত্ত, দামি গাড়ি উপহারসামগ্রী দিয়ে মেয়েদের প্রভাবিত করতো দিহান।

তাই বাসা ফাঁকা থাকলেই বন্ধু-বান্ধবীদের নিয়ে আসতেন দিহান। তার বিরুদ্ধে এর আগেও বিভিন্ন মেয়েদের সঙ্গে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কলাবাগানে দিহানের বাসার কেয়ারটেকার মোতালেব এমন তথ্য জানান। তবে তিনি বলেন, বাসা ফাঁকা থাকলে মাঝে মধ্যে দিহান বন্ধু-বান্ধবীদের নিয়ে বাসায় আসলেও হত্যা বা ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটতে পারে তা তিনি ধারণাও করতে পারেননি। আনুশকা নূর আমিন যেদিন হত্যার শিকার হয় সেদিন মোতালেবের পরিবর্তে কেয়ারটেকার দুলাল দায়িত্ব পালন করছিলেন।

দিহানের বাবা সদ্য অবসরপ্রাপ্ত জেলা রেজিস্ট্রার আবদুর রউফ সরকার। তিন সন্তানের মধ্যে দিহান সবার ছোট। পরিবারের একটু বেশি আদর পেতেন দিহান। যে কারণেই দিন দিন তার বখাটেপনা বেড়েছে। দিহানের বড় ভাই সুপ্তর বিরুদ্ধেও স্ত্রী হত্যার অভিযোগ রয়েছে।

প্রসঙ্গত, গেলো ৭ জানুয়ারি সকালে বন্ধু দিহানের মোবাইল কল পেয়ে বাসা থেকে বের হন রাজধানীর ধানমন্ডির মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেলের শিক্ষার্থী আনুশকা নুর আমিন। এরপর কিশোরীকে কলাবাগানের ডলফিন গলির নিজের বাসায় নিয়ে যান দিহান। ফাঁকা বাসায় তাকে ধর্ষণ করা হয়।

অসুস্থ হয়ে পড়লে দিহানসহ চার বন্ধু তাকে ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ছাত্রীকে মৃত ঘোষণা করেন। ধর্ষণের পর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয় বলে জানান চিকিৎসকরা। এ ঘটনায় আনুশকার বাবা বাদী হয়ে মামলা করেছেন। এ ঘটনার মামলায় দিহান গ্রেফতার রয়েছেন। তিনি ১৬৪ ধারায় আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছেন।

সূত্রঃ আর টিভি

বাংলাদেশের বাতাস দূষিত, তাই ফ্রান্সে থাকার অনুমতি

বাংলাদেশের বাতাস ‘বিপজ্জনক মাত্রায়’ দূষিত-এমন যুক্তি দিয়ে এক বাঙালি অভিবাসী ফ্রান্স থেকে বিতাড়িত হচ্ছেন না। তাকে দেশটিতে বসবাসের অনুমতি দিয়েছেন  বোর্দোর একটি আপিল আদালত।

৪০ বছর বয়সী বাংলাদেশি নাগরিকের নাম প্রকাশ না করে ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য টেলিগ্রাফ জানিয়েছে, ফ্রান্সে এই ধরনের রায় প্রথম বলে মনে করছেন ওই ব্যক্তির আইনজীবী।

আইনজীবী আদালতকে জানান, তার মক্কেলের অ্যাজমা রোগ আছে।

তিনি বাংলাদেশে গেলে অকাল মৃত্যুর শঙ্কায় পড়তে পারেন।

আইনজীবী লুডোভিচ রিভিয়ার বলেছেন, ‘আমার জানা মতে ফ্রান্সের কোনো আদালত এই প্রথম এমন রায় দিলেন। ’

‘সিদ্ধান্তে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের বিপজ্জনক দূষণের কারণে আমার ক্লায়েন্টের জীবন হুমকিতে পড়বে। ’

বাংলাদেশের দূষিত বাতাস নিয়ে আলোচনা বেশ পুরোনো। গত বছর বৈশ্বিক র‌্যাঙ্কিংয়ে অবস্থান ছিল ১৭৯তম। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানের থেকেও প্রায় ৬ গুণ খারাপ দেশের কিছু অঞ্চলের বাতাস।

আদালতের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, ওই অভিবাসী যে ওষুধ গ্রহণ করেন তা বাংলাদেশে পাওয়া যায় না। তাছাড়া হাসপাতালে তার যে ধরনের ভেন্টিলেশন যন্ত্রপাতি দরকার পড়ে, ঘুমানোর জন্য বাংলাদেশের হাসপাতালে তা কেবলমাত্র রাতে দেয়া সম্ভব।

টেলিগ্রাফ জানিয়েছে, ওই অভিবাসীর বাবা ৫৪ বছর বয়সে অ্যাজমা অ্যাটাকে মারা যান।

ভুক্তভোগী অভিবাসী ২০১১ সালে ফ্রান্সে যান। সেখানে ওয়েটারের কাজ করেন। ২০১৫ সালে অস্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি পান।

সূত্রঃ দেশ রুপান্তর

দাতা সংস্থা পাওয়া যাচ্ছে না ‘নিতাইগঞ্জ টু সাইনবোর্ড ইলেকট্রিক ট্রেন প্রকল্পে’

নিতাইগঞ্জ থেকে সাইনবোর্ড মোড় এবং চিটাগাং রোড হয়ে পঞ্চবটি পর্যন্ত ইলেকট্রিক ট্রেন চালুর প্রস্তাব দিয়ে ছিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন। সরকারের মন্ত্রিসভা কমিটি থেকেও প্রস্তাবে সায় দিয়েছেন। বাকি ছিল সম্ভাব্যতা যাচাই করা। এমন অবস্থায় দাতা সংস্থা না পেয়ে প্রকল্পটি মুখ থুবড়ে পড়েছে

যোগাযোত খাতের জন্য নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাছে প্রস্তাব চাওয়া হয়। ২০১৮ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন থেকে ‘ ইলেকট্রিক ট্রেন চালুর প্রস্তাব’ পাঠানো হয়ে ছিল। নাম দেওয়া হয় ‘নারায়ণঞ্জ সিটি করপোরেশনে লাইট রেল ট্রানজিট (এলআরটি) স্থাপনের নীতিগত প্রস্তাব’। ওই বছরের ২০ নভেম্বর প্রকল্পটিকে সরকারের মন্ত্রিসভার কমিটির অনুমোদন করা হয়ে ছিল।

এ প্রকল্পটি নিয়ে নারায়ণগঞ্জের নগর পরিকল্পনাবিদ মো. মঈনুল ইসলাম বলেন, মন্ত্রীসভা থেকে প্রকল্পটি অনুমোতি দিলেও দাতা সংস্থা না পেয়ে প্রকল্পটি এখন বন্ধ রয়েছে।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

প্রবীন ও নবীন এর স্বমনয়ে ব্যালেন্স কমিটি হয়েছেঃ আসাদুজ্জামান

গত ১০ জানুয়ারি অনুমদন দেওয়া হয় নারায়ণগঞ্জ সংসদীয় আসন ৪ এর অন্তর্ভুক্ত ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগ কমিটি। ৭১ সদস্যের এই কমিটিকে এই যাবত কালের সেরা কমিটি হয়েছে বলে মনে করেন, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আসাদুজ্জামান খান।

তিনি গতকাল ১৩ জানুয়ারি স্থানীয় একটি গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাৎক্ষার এ বলেন,নবাগত গঠিত ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগ কমিটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কমিটি।নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এই থানা কমিটির অনেক অবদান রয়েছে এবং এই কমিটি সরাসরি তদারকি করেন নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান।

এইবার কমিটিতে নবীন ও প্রবীন এর একটি ব্যালেন্স করা হয়েছে। প্রবীনদের নির্দেশে নবীনরা কাজ করবে,এই ধারণা মাথায় রেখে এই কমিটিতে সাচ্চা আওয়ামী লীগারদের জায়গা দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন,আমি বিশ্বাস করি কমিটির সভাপতি ও কাশীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম সাইফুল্লাহ বাদল ও সাধারণ সম্পাদক ও বক্তাবলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শওকত আলীর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগ আরো শক্তিশালী হবে ও কাজে গতি আসবে।

উল্লেখ,নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়েছে। রোববার (১০ জানুয়ারী) জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ মোহাম্মদ বাদলের স্বাক্ষরিত ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়।

প্রয়াত শিল্পপতি আফজাল হোসেনকে দোয়ায় স্মরণ করলোঃদক্ষিন মাসদাইর পঞ্চায়েত পরিষদ

ফতুল্লা দক্ষিন মাসদাইর পঞ্চায়েত পরিষদের সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সমাজসেবক প্রয়াত আলহাজ্ব আফজাল হোসেনের স্বরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল গত মঙ্গলবার ১২ জানুয়ারি বাদ এশা দক্ষিণ মাসদাইর পঞ্চায়েত পরিষদ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আলোচনা সভায় পরিষদের সভাপতি মোঃ গিয়াসউদ্দিনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ভাসানী প্রধান, ডঃ নজরুল ইসলাম, লিয়াকত আলী ভূইয়া স্বপন, নূর মোহাম্মদ নূরু, রুমেল বাশার, আরিফুল রহমান ক্যানেস, মোঃ নাছির উদ্দীন নাসির, সারোয়ার হোসেন টিটু, রাজিব হোসেন মিঠু, মোঃ সালাউদ্দিন, তাসলিম হোসেন কাওসার, প্রয়াত আফজাল হোসেনের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া পরিচালনা করেন মুফতি কাওসার আহম্মেদ কাশেমী।

লিপি ও অয়ন ওসমান এর নাম কমিটি থেকে বাদ দিতে শামীম ওসমানের চিঠি

এখনই স্ত্রী ও সন্তান প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে আসুক, সেটি চান না আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমান। শামীম ওসমানের এ সিদ্ধান্তের প্রতি সহমত পোষণ করেছেন তার পরিবারের সদস্যরাও।

সম্প্রতি ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদনের পর প্রকাশ পায় ওই কমিটির ১নং থেকে ৩নং কার্যকরী সদস্যের তালিকায় রয়েছেন শামীম ওসমান, তার স্ত্রী ও জেলা মহিলা সংস্থার সভানেত্রী সালমা ওসমান লিপি ও জ্যেষ্ঠ সন্তান ইমতিনান ওসমান অয়ন।

এ বিষয়ে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলেও তাদের তিনজনের পরিবর্তে অপর তিনজন ত্যাগী নেতার নাম দিয়ে মূল্যায়িত করার মত দিয়েছেন শামীম ওসমান। এ বিষয়ে ১৩ জানুয়ারি ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর লিখিত পত্রও দিয়েছেন শামীম ওসমান।

বিষয়টি নিশ্চিত করছেন ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী।

জানা গেছে, গত ১০ জানুয়ারী ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয় জেলা আওয়ামী লীগ। বুধবার ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগকে দেয়া শামীম ওসমানের ওই চিঠিতে কার্যকরী সদস্য হিসেবে তিনিসহ স্ত্রী ও ছেলের নাম রাখায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

তিনি লিখেছেন- ‘আমি ও আমার পরিবার মনে করছি, ফতুল্লা থানা এলাকায় আমাদের চেয়েও ত্যাগী, যোগ্য ও রাজপথের অসংখ্য সক্রিয় নেতাকর্মী রয়েছেন। যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করে আমাদের মাতৃতুল্য জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য লড়াই করছেন। আমরা মনে করি, ওই তিনটি কার্যকরী সদস্য পদে আমাদের পরিবর্তে উল্লেখিত ত্যাগী ও যোগ্য নেতাকর্মীদের মধ্য থেকে আপনারা তিনজনকে নির্বাচন করে তাদের মূল্যায়িত করলে আমরা আরও বেশি আনন্দিত হব।’

এ ব্যাপারে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফ উল্লাহ বাদল ও সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী জানান, এমন চিঠি দিয়ে শামীম ওসমান ও তার পরিবার আবারো মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন। শামীম ওসমান প্রমাণ করেছেন ত্যাগী নেতাকর্মীদের প্রতি তিনি কতটা আবেগ ধারণ করেন। আমরা তার এ আবেগকে সম্মান জানাই। তবে বিষয়টি আমরা দলীয় ফোরামে আলোচনা করেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব।

এ ব্যাপারে শামীম ওসমান এমপি জানান, কর্মীরাই দলের প্রাণ। আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা মনে করেন- আমাদের চেয়েও যোগ্য ও ত্যাগ শিকার করা বহু নেতাকর্মী রয়েছেন, যাদের মূল্যায়ন করা উচিত।

জানা গেছে, শামীম ওসমানের ছেলে ইমতিনান ওসমান অয়ন ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারের চতুর্থ প্রজন্ম। প্রত্যক্ষ রাজনীতি না করলেও নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কঠোর নিয়ন্ত্রকের ভূমিকায় রয়েছেন তিনি। মূলত তার কারণেই নারায়ণগঞ্জে ছাত্রলীগ মডেল সংগঠনে পরিণত হয়েছে।

সূত্রঃ নিউজ নারায়ণগঞ্জ

হার না মানা টিম খোরশেদ এর ১৫৫ ও ১৫৬তম অক্সিজেন সহয়তা

দেশ ব্যাপী বহুল আলোচিত টিম খোরশেদ তৈরী করলো এক অনন্য মানবতার দৃষ্টান্ত, আজ ১৩ জানুয়ারি, বুধবার। নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার গলাচিপা নিবাসী মোঃ ফাহিম ও সিদ্ধিরগঞ্জ নিবাসী মঞ্জু আক্তার (৬৫) নামে করোনা পজিটিব দুই রোগীকে অক্সিজেন সহয়তা দেন।

করোনা পজিটিব ফাহিম ও মঞ্জু শ্বাসকষ্ট বোধ করলে টিম খোরশেদ এর সাথে যোগাযোগ করেন,পরে তারা তাদের ডাকে সারা দিয়ে চালু ছুটে যান রোগীদের বাসায় অক্সিজেন নিয়ে।

উল্লেখ, টিম খোরশেদ বিশ্ব করোনা প্যানডেমিক শুরু হবার পর থেকে নারায়ণগঞ্জ সহ দেশের নানা প্রান্তে, লাশ দাফন, খাদ্য সহয়তা,অক্সিজেন ও প্লাজমা ডোনেট করে আসছে। ইতি মধ্যে তারা মানবতার উৎকৃষ্ট উদহরন তৈরী করেছেন মানুষের মাঝে, যা ইতিহাস হয়ে থাকবে এই নারায়ণগঞ্জ বাসীর মনে।

কাশীপুর আইডিয়াল স্কুলের শতভাগ শিক্ষার্থী পেল নতুন বই

ফতুল্লার কাশীপুর ইউনিয়নের কাশীপুর আইডিয়াল স্কুল কর্তৃপক্ষ তাদের শতভাগ শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন শিক্ষাবর্ষের বই তুলে দিয়েছে। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেন কাশীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ফতুল্লা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এম সাইফ্ উল্লাহ বাদল।

আজ বুধবার ১৩ই জানুয়ারি “কাশীপুর আইডিয়াল স্কুল’ তাদের স্কুল প্রাঙ্গনে উৎসবমুখর পরিবেশে শতভাগ ছাত্র-ছাত্রির হাতে নতুন বই তুলে দেয় । সকালে শুরু হয়ে দুপুর ৩ টা পর্যন্ত দিনব্যপী চলে এই বই বিতরন কার্যক্রম। প্রধান অতিথির সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে কাশীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এম সাইফ্ উল্লাহ বাদল বলেন “বর্তমান সরকার একটি শিক্ষিত জাতি গঠনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ায় দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। তারই লক্ষ্যে আমাদের প্রধানমন্ত্রী দিন রাত নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

আর সরকার বছরের শুরুতেই শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিয়ে সেই লক্ষ্যেই এগিয়ে যাচ্ছে।“ এছাড়াও তিনি উক্ত বিদ্যালয়ের উজ্জল ভবিষ্যত কামনা করেন এবং আশাবাদ ব্যক্ত করেন এটি অচিরেই একটি স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে।

বন্দরে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন এর ৩৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের ৩৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বন্দর উপজেলা মহিলা শাখা ও ২২ নং ওয়ার্ড কমিটির ব্যপক আয়োজনের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো ৩৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী,দিবসকে কেন্দ্র করে গুণীজন সংর্বধনা দেয়া হয়

নারায়ণগঞ্জ জেলার কৃতি সন্তান বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা শাখার সম্মানিত সভাপতি ফরিদা আক্তার কে সম্মানণা প্রদান ও রাজনিতিতে বিশেষ অবদান রাখায় নারায়ণগঞ্জ মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি জুয়েল হোসেন কে সম্মাননা স্বারক প্রদান করা হয়।

উক্ত আয়েজনে আরো কিছু যুক্ত হয় কোমলমতি শিশুদের মাঝে শিক্ষা সামগ্রী বিতরন, কেক কাটা ও প্রীতিভোজের আয়োজন করা হয়। BHRC বন্দর উপজেলা মহিলা শাখার সাধারণ সম্মপাদক নাজমা আক্তারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বেগম রোকেয়া পদক প্রাপ্ত জনাব ফরিদা আক্তার, প্রধান আলোচক নারায়ণগঞ্জ মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি মোঃ জুয়েল হোসেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে ২২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জনাব সুলতান আহম্মেদ ভূঁইয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ জাব্বার সরদার, বীরমুক্তিযোদ্ধা জালালউদ্দিন জালু,বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন মাস্টার, বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ আজিজ, নারায়ণগঞ্জ মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগ এর সাংগঠনিক সম্মপাদক হোসনেয়ারা বেগম , BHRC ২২ নং ওয়ার্ড কমিটির সহ-সভাপতি সৈয়দ কাশেম, মোঃ মোখলেসুর রহমান সুমন, শাহনাজ ভূঁইয়া,বন্দর মহিলা পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি সুরাইয়া বেগম, সাধারণ সম্পাদক নাজমা আক্তার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিউটি বেগম, প্রচার সম্পাদক তাসলিমা, সাংগঠনিক সম্পাদক রুমা, সদস্য নীল আচল, সাবিহা সুলতানা হিমা প্রমূখ।

শীতলক্ষ্যা নদীর দুপাশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

গতকাল ১২ জানুয়ারি সকাল ১০ টায় নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদীর পূর্ব ও পশ্চিম তীরে বন্দর খেয়াঘাট এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দর কর্তৃপক্ষ।

দুপুর ১২ টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিআইডব্লিউটিএ’র নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মাহবুব জামিলের নেতৃত্বে অভিযানটি পরিচালিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিআইডব্লিউটিএ’র নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের যুগ্ম-পরিচালক শেখ মাসুদ কামাল, উপ পরিচালক মোবারক হোসেন, সহকারী পরিচালক নূর হোসেনসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

এসময় একটি এক্সাভেটর দিয়ে সেমিপাকা ঘর, টং দোকানসহ অন্তত শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।অভিযানকালে বিপুলসংখ্যক পুলিশ, নৌ-পুলিশ ও আনসার সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনঃ মোহসীন-মাহবুব’র নেতৃত্বে আ.লীগ প্যানেল

আগামী ২৮ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন(২০২১-২২)। নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে। ১৩ জানুয়ারী মনোনয়ন বোর্ডের আহ্বায়ক পিপি এড. ওয়াজেদ আলী প্যানেল ঘোষণা করেন।


প্যানেলে সভাপতি পদে আছেন এ্যাড. মুহাম্মদ মোহসীন মিয়া, সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে এ্যাড. বিদ্যুৎ কুমার সাহা, সহ-সভাপতি পদে এ্যাড. বরুণ চন্দ্র দে, সাধারণ সম্পাদক পদে সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মাহবুবুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক পদে এ্যাড. রবিউল আমিন রনি, কোষাধক্ষ্য পদে এ্যাড. মনিরুজ্জামান কাজল, আপ্যায়ন সম্পাদক পদে এ্যাড. মো. স্বপন ভূঁইয়া, লাইব্রেরী সম্পাদক পদে এ্যাড. মাহমুদুল হক মমিন, ক্রীড়া সম্পাদক পদে এ্যাড. সাজ্জাদুল হক সুমন, সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক পদে এ্যাড. হাসিবুল হাসান রনি, সমাজ সেবা সম্পাদক পদে এ্যাড. ইসরাত জাহান ইনা ও আইন ও মানবাধিকার সম্পাদক পদে এ্যাড. নুসরাত জাহান তানিয়া।

কার্যকরী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এ্যাড. সিরাজুল হক মিলন, এ্যাড. সুজন প্রধান, এ্যাড. কামরুল হাসান, এ্যাড. আবু তাহের রানা ও এ্যাড. রোমানা আক্তার।

এরআগে, ২০২০-২১ সালের অনুষ্ঠিত নির্বাচনেও এ্যাড. মুহাম্মদ মোহসীন মিয়াকে সভাপতি ও এ্যাড. মাহবুবুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে, সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ মনোনীত এ প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, ২০২১-২২ সালে অনুষ্ঠিত আইনজীবী সমিতির নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী মনোনয়ন প্রত্র সংগ্রহ ও দাখিলের সর্বশেষ দিন ছিল ১৪ জানুয়ারী। যাচাই বাছাই ও প্রাথমিক বৈধ তালিকা প্রকাশ করা হবে ১৪ জানুয়ারী। মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার আগামী ১৫ থেকে ১৭ জানুয়ারী পর্যন্ত করা যাবে। চূড়ান্ত বৈধ তালিকা প্রকাশ করা হবে ১৮ জানুয়ারী। এরপরই ২৮ জানুয়ারী আইনজীবী সমিতির নবনির্মিত বার ভবনের দ্বিতীয় তলায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

নারায়ণগঞ্জ প্রিমিয়ার লীগে রনি তালুকদার-এর ডাবল সেঞ্চুরি!

চলছে নারায়ণগঞ্জ প্রিমিয়ার ডিভিশনে ক্রিকেট লীগ ২০২০-২১ মৌসুম। টুর্নামেন্টে মোট ১০ টি দল নিয়ে খেলা গড়াচ্ছে নারায়ণগঞ্জ-এর শামসুজ্জোহা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। আজ ১৩ জানুয়ারি, টুর্নামেন্টের ২০ তম ম্যাচে নীট কনসার্ন ক্রিকেট একাডেমি বনাম কে.সি. অ্যাপারেলস লিমিটেড এর খেলা চলছে।

চলতি মৌসুমে রনি তালুকদার নীট কনসার্ন ক্রিকেট একাডেমি’র হয়ে খেলে যাচ্ছেন। সকালে টসে জিতে কে.সি অ্যাপারেলস ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। নীট কনসার্ন’র হয়ে ব্যাটিং গোড়াপত্তন করেন মেহেদী মানিক ও বাংলাদেশ ক্রিকেট জাতীয় দলে খেলা রনি তালুকদার।

মেহেদী মানিক মাত্র ৬ বলে ৬ রান করে মোস্তফা রনির বলে বোল্ড আউট হলেও বাজিমাত করেন আমাদের নারায়ণগঞ্জ’র রনি তালুকদার। তিনি তুলে নেন এখন পর্যন্ত মৌসুম সেরা ব্যাক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস ডাবল সেঞ্চুরি। রনি তালুকদারের টর্নেডো গতিতে ২০০* রানের এই ইনিংসটি সাজাতে তিনি খরচ করেছেন মাত্র ১৫২ টি বল।

১৩১.৫৮ স্ট্রাইক রেটে ইনিংসে রয়েছে ২১টি চার এবং সেইসাথে রয়েছে ৮টি বিশাল ছক্কা। এই ম্যাচে তার সহযোগী হয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জ’র বামহাতি অলরাউন্ডার ক্রিকেটার তাইবুর পারভেজ। তিনিও ১২৯ বলে ১০ চার ও ৩ টি বিশাল ছক্কা দিয়ে তাঁর ১১৫ রানের ইনিংসটি সাজিয়ে স্টেডিয়ামে চমৎকার ক্রিকেট খেলা প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেছেন।

৫০ ওভারের খেলা শেষে নীট কনসার্ন ক্রিকেট একাডেমি’র দলীয় মোট সংগ্রহ ৩৪০/৩। ৩৪১ রানের টার্গেটে মাঠে ব্যাটিং করে চলেছে কে.সি অ্যাপারেলস। ওপেনিং এ আছেন রনি তালুকদার এর ছোট ভাই জনি তালুকদার ও অমিত। এখন পর্যন্ত কে.সি অ্যাপারেলস এর দলীয় সংগ্রহ ১৮/০ (৩.২)।

নীট কনসার্ন ক্রিকেট একাডেমি একাদশঃ মেহেদী মানিক (WK), রনি তালুকদার, আরিফ হোসেন,তাইবুর পারভেজ,আশফাক জিতু, শহিদুল ইসলাম, নাজমুল ইসলাম অপু, মোহাম্মদ পিয়াস, এনামুল,ফয়সাল সরকার, রাজ্জাক জুয়েল।

কে.সি অ্যাপারেলস লিমিটেড একাদশঃ জনি তালুকদার, হক রুবেল, অমিত হাসান(WK), মাজহারুল আদিব, রিফাত খান, হুমায়ুন, রনি ফয়সাল, মোস্তফা রনি, সিদ্দিক শাওন, সজিব হোসেন, সিফাত ইসলাম শাকু।

উচ্চশিক্ষিত ছেলে খাবারের ব্যবসা করায় বাবা-মায়ের আত্মহত্যা

বৃদ্ধ বাবা-মায়ের উচ্চশিক্ষিত ছেলে হয়েও সম্প্রতি হোম ডেলিভারির ব্যবসা শুরু করেছিলেন। তার জেরেই আত্মহত্যা করলেন বৃদ্ধ দম্পতি। এমন করুণ ঘটনা ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলির কোন্নগরের এস সি চ্যাটার্জি স্ট্রিটে। রোববার (১০ জানুয়ারি) সকালে বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় ওই বৃদ্ধ দম্পতির ঝুলন্ত দেহ।

৭০ বয়স্ক দীপক সরকার এবং তার স্ত্রী ভবানী সরকার দুজনেই অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী। পশ্চিমবঙ্গের কোন্নগর পুলিশ ফাঁড়ি সূত্রে জানা গেছে, দোতলার বারান্দায় পাওয়া যায় ভবানী সরকারের দেহ। দীপক সরকারের দেহ ছিল ঘরে। পুলিশ জানিয়েছে, রোববার সকালে ওই দম্পতির ছেলে দিব্যেন্দু সরকার তাদের খবর দেন। পুলিশ মরদেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে।

 প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, মানসিক অবসাদ থেকে আত্মহত্যা করেছেন ওই দম্পতি। তার পেছনে পারিবারিক ‘সংকট’-এর কথা তুলে ধরছেন তদন্তকারীরা। এদিকে তাদের প্রতিবেশীরা জানান, দীপক এবং ভবানীর সন্তান দিব্যেন্দু লেখাপড়ায় ভালো ছিলেন। মাস্টার্স করেও চাকরি পাননি। পরবর্তী কালে তিনি পর্যটন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হন। কিন্তু লকডাউনের জেরে সেই ব্যবসায় ধাক্কা খান দিব্যেন্দু। এর পর বাড়ি বাড়ি খাবার দেওয়ার ব্যবসাও শুরু করেন। কিন্তু সেই ব্যবসাও জমেনি। হোম ডেলিভারির ব্যবসা নিয়ে আপত্তি ছিল দীপক এবং ভবানীর। ছেলের ভবিষ্যতের কথা ভেবে দীপক এবং ভবানী মানসিক অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন বলেই মনে ধারণা করছেন তারা। 

দিব্যেন্দুর প্রতিবেশী ঋষিকেশ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ছেলেটি উচ্চশিক্ষিত। চাকরি না পাওয়ায় হোম ডেলিভারির ব্যবসা শুরু করেছিল। তাতে হয়তো ওর বাবা-মায়ের অহংবোধে আঘাত লেগেছিল।

পুলিশের ধারণা, শনিবার রাতে ওই দম্পতি গলায় দড়ি দেন। তবে এর পিছনে ভিন্ন কারণও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। দিব্যেন্দুকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন তদন্তকারীরা

সূত্র: আনন্দবাজার

গাড়ি কেনার টাকা দিয়ে মসজিদ বানালেন মেয়র!

নিজের ব্যবহারের জন্য গাড়ি কিনতে মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ পাওয়া সমস্ত অর্থ দিয়ে মসজিদ বানালেন বরগুনার বেতাগী পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব এবিএম গোলাম কবির। পৌরসভা কার্যালয়ের পাশে তিনি এই মসজিদ নির্মাণ করেছেন। মেয়রের এ কাজ সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষের ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে।

জানা গেছে, বরগুনার  বেতাগী প্রথম শ্রেণির  পৌরসভায় পল্লী উন্নয়ন ও  স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় থেকে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে মেয়রের গাড়ি কেনার জন্য ১৫ লাখ ৫১ হাজার ১৩১ টাকা বরাদ্দ দেয়। মেয়র ওই বরাদ্দের টাকা দিয়ে গাড়ি না কিনে পৌরসভা কার্যালয়ের পশ্চিম পাশে একটি মসজিদ নির্মাণ করছেন।

পৌরসভা অফিস থেকে জানা গেছে, পৌর মসজিদের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে আগামী এক মাসের মধ্যে এর উদ্ধোধন করা হবে।

পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা সাংবাদিক আকন্দ শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘পৌর মেয়রের এমন মহতি উদ্যোগে অভিবাদন জানাচ্ছি।’

বেতাগী প্রেসক্লাবের আহবায়ক সাইদুল ইসলাম মন্টু বলেন,’অনেক জনপ্রতিনিধিকে দেখেছি কিন্তু মেয়র গাড়ি কেনার টাকা দিয়ে মসজিদ নির্মাণ করায় তিনি সকলের প্রশংসায় সিক্ত হলেন।’

বেতাগী পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব এবিএম গোলাম কবির বলেন, ‘পৌর এলাকায় সড়ক প্রস্তকরণ ও পূর্ননির্মাণ, পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যাবস্থা, সড়কে বৈদ্যুতিক বাতি, বঙ্গবন্ধু পৌর অডিটোরিয়াম, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল স্টেশন, আল্লাহ রাসুলের নামে দৃষ্টি নন্দন ‘বন্ধু চত্বর ভাস্কর্য নির্মাণ। এছাড়াও পৌর এলাকায়  মসজিদ ও মন্দিরের ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছি।’