লালমনিরহাট নৃশংস হামলা: পিটিয়ে হত্যার পর পুড়িয়ে মারা নিহত ব্যক্তি কে ছিলেন

লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে তাকে পিটিয়ে হত্যা এবং পরে তার লাশ আগুনে পুড়িয়ে ফেলার ঘটনা হতবাক করেছে সাধারণ মানুষকে।

হাজার হাজার মানুষের এ ধরণের নৃশংসতাকে মধ্যযুগের বর্বরতার সাথে তুলনা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হতাশা প্রকাশ করেছেন অনেকেই।

নিহত ব্যক্তির ভাই তৌহিদুন্নবী জানান, ঘটনার দিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার সকালে তার ভাই মোটরসাইকেলে করে এক স্কুলের বন্ধুর বাড়িতে যান। সেখান থেকে তারা বেরিয়ে গেলেও কখন কী উদ্দেশ্যে পাটগ্রামে গিয়েছিলেন, সেটা কেউ জানাতে পারেননি।

পরে সন্ধ্যার দিকেও তিনি বাড়িতে না ফেরায় এবং মোবাইলে কোন সাড়া না দেয়ায় খোঁজখবর শুরু করা হয়।

এসময় ওই বন্ধুর কাছে খবর নেয়া হলে তিনি পাটগ্রামের সেই সহিংস পরিস্থিতির কথা জানান।

এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া গণপিটুনির ভিডিওটি দেখে মি. তৌহিদুন্নবী নিশ্চিত হন যে হামলার শিকার ওই ব্যক্তি আর কেউ নন, তারই আপন ভাই জুয়েল।

যার পুরো নাম আবু ইউনুস মোহাম্মদ শহীদুন নবী জুয়েল। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন চতুর্থ এবং তার বয়স পঞ্চাশের কিছু বেশি বলে জানা গেছে।

এদিকে স্বামীর এমন আকস্মিক মৃত্যুতে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন নিহত শহীদুন নবী জুয়েলের স্ত্রী এবং তার দুই সন্তান।

তার ছোট ছেলে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র বলে জানা গেছে।

সূত্রঃ বিবিসি বাংলা

অবিলম্বে ফ্রান্সের সাথে সকল কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবেঃখেলাফত মজলিস

ফ্রান্সে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সঃ) কে অবমাননার প্রতিবাদস্বরূপ অবিলম্বে ফ্রান্সের সাথে সকল কুটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে সরকারের কাছে আহবান জানিয়েছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর খেলাফত মজলিস। মহানবী (সঃ) কে অবমাননার প্রতিবাদে আয়োজিত এক প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশে খেলাফত মজলিস নেতৃবৃন্দ এ দাবি জানান।


আজ ৩০ শে অক্টোবর, শুক্রবার নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে খেলাফত মজলিস নারায়ণগঞ্জ মহানগরী ও জেলা শাখার উদ্যোগে এক প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করা হয়। বিক্ষোভ পুর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় বায়তুলমাল সম্পাদক মাওলানা আলী আহমেদ কাসেমী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাওলানা কাসেমী বলেন ‘পৃথিবীর ২০০ কোটি মুসলমানদের হৃদয়ের স্পন্দন মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সঃ) কে নিয়ে ফ্রান্স রাষ্ট্রীয়ভাবে যে অবমাননা করছে তা কোন ভাবেই একজন মুসলমান হিসেবে মেনে নেয়া যায়না।” তিনি আরও বলেন অজানা এক কারনে সরকার এখনো রাষ্ট্রীয়ভাবে কোন প্রতিবাদ বা বিবৃতি দেয়নি। তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন অবিলম্বে ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে কড়া প্রতিবাদ করুন। ফ্রান্সের সাথে সকল ধরনের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে সরকারকে আহবান জানান এ রাজনীতিবিদ।

মহানগর সভাপতি বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. এস এম মোসাদ্দেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান। বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় মিজানুর রহমান বলেন ‘ ফ্রান্স মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সঃ) কে অপমান করার ধৃষ্টতা দেখালেও আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত এই ঘটনার সমর্থন জানিয়ে আমাদের মুসলমানদের মনে আঘাত দিয়েছে। তিনি ফ্রান্সের পন্য বয়কটের আহবান জানান।


বিক্ষোভপূর্ব সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা খেলাফত মজলিসের সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ কবীর আহমেদ, ছাত্র মজলিসের সাবেক মহানগর সভাপতি মু. শিব্বির আহমাদ সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব থেকে চাষাড়া হয়ে নগরীর মুল সড়ক প্রদক্ষিন করে ডিআইটি মসজিদের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

ভারতের ম্যাপ থেকে কাশ্মীর বাদ দিল সৌদি আরব

ফের মানচিত্র বিতর্ক। এ বার সৌদি আরব ভারতের মানচিত্র থেকে বাদ দিল কাশ্মীর এবং লাদাখকে।

নেপাল, পাকিস্তানের পর এ বার সৌদি আরব। ভারতের ম্যাপ থেকে জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ বাদ দিয়ে দেয়া হলো। ভারত সরকার এর তীব্র প্রতিবাদ করেছে। সৌদি আরবকে দ্রুত ভুল সংশোধনের আবেদনও জানানো হয়েছে।

এ বছর জি২০ বৈঠকের আয়োজক দেশ সৌদি আরব। সেই উপলক্ষে দেশের মানিটারি অথরিটি একটি ব্যাঙ্ক নোট তৈরি করেছে। যেখানে জি২০ সদস্য দেশ হিসেবে ভারতের ম্যাপ দেয়া হয়েছে। সেই ম্যাপে জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখকে বাদ দিয়ে দেয়া হয়েছে। গত ২৪ অক্টোবর ওই নোটটি প্রকাশিত হয়েছে। সেটি দেখার পরেই তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ভারত।

শুক্রবার ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানিয়েছেন, নতুন দিল্লির সৌদি আরব দূতাবাস এবং রিয়াধে আরবের প্রতিনিধিদের বিষয়টি জানানো হয়েছে। দ্রুত ভুল স্বীকার করে তারা যাতে ভারতের ম্যাপ সংশোধন করে নেয়, তার আবেদন করা হয়েছে। একই বিবৃতিতে ভারত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ। এ কথা সকলকে মনে রাখতে হবে।

মাস কয়েক আগে নেপাল প্রথম মানচিত্র বিতর্কের জন্ম দেয়। নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি ওলি সংসদে একটি নতুন মানচিত্র পেশ করেন। সেখানে ভারত-নেপাল সংলগ্ন কয়েক অঞ্চল নেপালের অংশ বলে দেখানো হয়। যদিও ভারতের দাবি ওই এলাকাগুলি ভারতের। দীর্ঘদিন ধরেই তা ভারতের মানচিত্রে আছে। বিষয়টি নিয়ে বহু জলঘোলা হয়। তারই মধ্যে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান একটি বিতর্কিত মানচিত্র পেশ করেন। সেখানে দেখা যায় কাশ্মীর, লাদাখের কিছু অংশ এবং গুজরাতের কিছু অংশ পাকিস্তানের মানচিত্র ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। পাকিস্তানের ওই মানচিত্র নিয়েও ভারত তীব্র প্রতিবাদ জানায়। আন্তর্জাতিক মহলেও বিষয়টি নিয়ে আলেোচনা হয়। সম্প্রতি মস্কোয় একটি অধিবেশনে পাকিস্তান ওই একই মানচিত্র দেখালে ভারতের নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে যান।

এ বার সেই একই বিতর্কে শুরু হলো সৌদি আরবকে নিয়েও। যদিও বিশেষজ্ঞদের একাংশের বক্তব্য, নেপাল বা পাকিস্তানের মতো ইচ্ছাকৃত ভাবে সৌদি এ কাজ নাও করে থাকতে পারে। গত বছর ভারত সফরে এসেছিলেন সৌদি আরবের রাজা। সে সময় প্রোটোকল ভেঙে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তাঁকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানাতে পৌঁছে যান। বিশেষজ্ঞদের অনেকেই মনে করেছিলেন, দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের এক নতুন দিগন্ত তৈরি হয়েছিল ওই বৈঠকে। সৌদি আরব যদি বারতের কথা মেনে ম্যাপে বদল করে তো ঠিক আছে, না হলে  ম্যাপ বিতর্কে সেই সম্পর্কে ছেদ পড়তে পারে বলেও অনেকে মনে করছেন।

সূত্রঃ ডয়েচ ভেলে

মুসলমানদের অধিকার রয়েছে ফরাসিদের শাস্তি দেওয়ার: মাহাথির

মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ বলেছেন, মুসলমানদের অধিকার রয়েছে ফরাসিদের শাস্তি দেওয়ার। বৃহস্পতিবার এক ব্লগ পোস্টে তিনি এই মন্তব্য করেছেন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এখবর জানিয়েছে।

মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের জেরে এক মুসলিম উগ্রবাদী কর্তৃক একজন ইতিহাস শিক্ষককে হত্যার পর থেকেই উত্তপ্ত ফ্রান্স। এই ঘটনায় মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন ম্যাক্রোঁ। তার এ ঘোষণায় মুসলিম বিশ্বে তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়। ইসলামের প্রতি এমন মানসিকতার জন্য ম্যাক্রোঁর মানসিক চিকিৎসা দরকার বলে মন্তব্য করেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান। এমন পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার একটি গির্জায় ছুরি হামলায় তিন জন নিহত হন।

মাহাথিরের ব্লগ পোস্টে নিসের হামলার কথা উল্লেখ নেই। অন্যদের সম্মান করুন- শিরোনামের লেখা শুরু হয়েছে ফরাসি শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটি হত্যার কথা তুলে ধরে। টুইটারেও তা প্রকাশ করা হয়েছে। তবে লাখ লাখ ফরাসিকে হত্যার পোস্টটি টুইটার মুছে দিয়েছে।

৯৫ বছরের মাহাথির মুসলিম বিশ্বের শ্রদ্ধাভাজন এক নেতা। তিনি বলেছেন, মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন কিন্তু তা অন্যকে অপমান করার জন্য যেন ব্যবহৃত না হয়।

ব্লগ পোস্টে মাহাথির লিখেছেন, অতীতের হত্যাযজ্ঞের জন্য মুসলমানদের ক্ষুব্ধ ও লাখো ফরাসি জনগণকে হত্যার অধিকার রয়েছে। কিন্তু মোটের উপর মুসলিমরা চোখের বদলে চোখ আইন প্রয়োগ করেনি। মুসলিমরা করেনি। ফরাসিদের করা উচিত না। এর পরিবর্তে ফরাসিদের উচিত তাদের জনগণকে অন্য মানুষের অনুভূতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া শিক্ষা দেওয়া।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ সভ্য নন এবং আদিম বলে অভিযোগ করেন মাহাথির। তাকে ইঙ্গিত করে মালয়েশীয় রাজনীতিক লিখেছেন, এক রাগান্বিত ব্যক্তির দায় যখন পুরো মুসলিম ও মুসলিমদের ধর্মের উপর চাপাচ্ছেন তখন ফরাসিদের শাস্তি দেওয়ার অধিকার রয়েছে মুসলমানদের। এত বছর ধরে ফরাসিরা যে ভুল করে আসছে পণ্য বর্জনে তার ক্ষতিপূরণ হবে না।

মাহাথির আরও লিখেছেন, এটি ইসলামের শিক্ষার সঙ্গে যায় না। কিন্তু ধর্ম নির্বিশেষে রাগান্বিত মানুষ হত্যা করে। ইতিহাসের পরিক্রমায় ফরাসি লাখ লাখ মানুষকে হত্যা করেছে। তাদের অনেকেই ছিলেন মুসলিম।

বৃহস্পতিবারের হামলার নিন্দা জানিয়েছেন ক্যাথলিকদের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা পোপ ফ্রান্সিস, জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেল, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কন্তেসহ অনেক রাষ্ট্রপ্রধান।

সূত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন  

পবিত্র কোরআন অবমাননার অভিযোগে উত্তপ্ত লালমনিরহাট

দেশের উত্তরাঞ্চলের জেলা লালমনিরহাটের পাটগ্রামের বুড়িমারী স্থল বন্দর কেন্দ্রীয় মসজিদে মুসলমানদের ধর্মীয় গ্রন্থ পবিত্র কোরআন শরীফ অবমাননার অভিযোগে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করেছে বিক্ষুদ্ধ জনতা।

পরবর্তীতে অবমাননাকারির লাশ পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তবে নিহতের পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি।

পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মোহন্ত বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
বৃহস্পতিবার বিকেলের এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় উত্তেজনা চলছে।
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ফাঁকা গুলি করেছে।

ওসি সুমন কুমার মোহন্ত জানান, আজ বিকেলে মোটরসাইকেলে করে ওই মসজিদে আসে দুজন ব্যক্তি। তারা মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করে কোরআনের ওপর পা তুলে দেয়। সেটা দেখে ফেলায় স্থানীয়রা তাদের মারধর করেন। পরে তাদের মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। সেই আগুনে তাদের একজনকে পোড়ানো হয়। আরেকজনের কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।ধারণা করা হচ্ছে, সে পালিয়ে গেছে।

সূত্রঃ ইনসাফ২৪

মুসলিম বিশ্ব ফ্রান্সকে বয়কট করায় পাশে দাঁড়াল ভারত

মহানবী হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লামকে রাষ্ট্রীয় সহয়তায় অবমাননা করার প্রতিবাদে ফ্রান্সকে যখন মুসলিম বিশ্ব বয়কট করেছে, ঠিক তখনই প্যারিসের পাশে দাঁড়িয়েছে ভারত।

সোমবার এবং মঙ্গলবার (২৮ অক্টোবর) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে ‘হ্যাশট্যাগ আমি ফ্রান্সের পাশে আছি; এবং ‘হ্যাশট্যাগ আমরা ফ্রান্সের সাথে আছি’ শিরোনামে ভারতের হাজারো টুইটার ব্যবহারকারী ইসলামবিদ্বেষে জড়িত ফ্রান্সের পাশে দাঁড়ানোর প্রচারণা চালায়।

টুইট বার্তায় এক ভারতীয় বলেন, ফ্রান্স যা কিছু করছে তাতে আমি আনন্দিত। ম্যাক্রোঁর লড়াইয়ে ভারতীয়দের সমর্থন দেওয়া উচিৎ। ফ্রান্সের প্রশংসা করা উচিৎ। ভারত সবসময় ফ্রান্সের সঙ্গে আছে।

সূত্র: আল জাজিরা

বাংলাদেশে মোবাইল ডাটার গতি নেপাল, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তানের চেয়েও কম

মোবাইল ডাটার গতির হিসাবে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের অবস্থান শুধুমাত্র আফগানিস্তানের ঠিক ওপরে। বৈশ্বিক মোবাইল ও ব্রডব্র্যান্ড ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের মানের তালিকায় বাংলাদেশের এই অবস্থান।

ওকলা’স স্পিডটেস্ট গ্লোবাল ইনডেক্স মতে, ১৩৮টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩৩। গত সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে মোবাইল ডাটার ডাউনলোড গতি ছিল প্রতি সেকেন্ডে ১০ দশমিক ৭৬ মেগাবাইট (এমবিপিএস)। বিশ্বে গড় গতি ছিল ৩৫ দশমিক ২৬ এমবিপিএস।

বাংলাদেশে গড় মোবাইল আপলোড গতি ছিল ৬ দশমিক ৯৬ এমবিপিএস এবং ল্যাটেনসি ছিল ৩৯ মিলিসেকেন্ড (এমএস)। বৈশ্বিক গড় ছিল ১১ দশমিক ২২ এমবিপিএস এবং ৪২ এমএস।

মোবাইল ইন্টারনেট গতির হিসাবে দক্ষিণ এশিয়ায় মালদ্বীপের অবস্থান সবার ওপরে। তালিকায় দেশটির অবস্থান ৫৭। সেখানে ডাউনলোডের গতি ৩৫ দশমিক ৭০ এমবিপিএস, যা বৈশ্বিক গড় গতির সামান্য বেশি।

এরপর, শ্রীলঙ্কার অবস্থান ১০২। সেখানে গতি ১৯ দশমিক ৯৫ এমবিপিএস। পাকিস্তানের অবস্থান ১১৬ (গতি ১৭ দশমিক ১৩ এমবিপিএস), নেপালের অবস্থান ১১৭ (গতি ১৭ দশমিক ১২ এমবিপিএস), ভারতের অবস্থান ১৩১ (গতি ১২ দশমিক ৭ এমবিপিএস) এবং আফগানিস্তানের অবস্থান ১৩৮ (গতি ৭ দশমিক ২৬ এমবিপিএস)।

এই তালিকায় ভুটানকে রাখা হয়নি।

ব্রডব্র্যান্ড ইন্টারনেট গতির হিসাবে বাংলাদেশের অবস্থান তুলনামূলকভাবে কিছুটা ভালো। তালিকায় ১৭৫টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৯৮ এ। বাংলাদেশে ডাউনলোড গতি ২৯ দশমিক ৮৫ এমবিপিএস, আপলোড গতি ৪৫ দশমিক ৭৪ এমবিপিএস এবং ল্যাটেনসি ২১ এমএস। যা বৈশ্বিক গড় ডাউনলোড গতি ৮৫ দশমিক ৭৩ এমবিপিএসের তুলনায় অনেক কম।

ভারতের অবস্থান ৭০ (গতি ৪৬ দশমিক ৪৭ এমবিপিএস), শ্রীলঙ্কার অবস্থান ৯৪ (গতি ৩১ দশমিক ৪২ এমবিপিএস), নেপালের অবস্থান ১১৩ (গতি ২২ দশমিক ৩৬ এমবিপিএস), মালদ্বীপের অবস্থান ১১৭ (গতি ২১ দশমিক ৫৬ এমবিপিএস), ভুটানের অবস্থান ১২৬ (গতি ১৯ দশমিক ০৯ এমবিপিএস), আফগান্তিানের অবস্থান ১৫৭ (গতি ১০ দশমিক ৩১ এমবিপিএস) এবং পাকিস্তানের অবস্থান ১৫৯ (গতি ১০ দশমিক ১০ এমবিপিএস)।

অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটরস অব বাংলাদেশ (এএমটিওবি) এর সাধারণ সম্পাদক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) এসএম ফারহাদ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘করোনা মহামারির কারণে হঠাৎ করে মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার কয়েকগুণ বেড়ে গিয়েছিল। তা ইন্টারনেট সেবায় প্রভাব ফেলতে পারে।’

দেশে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি ফোরজি সেবার জন্যে ডাউনলোড গতি ৭ এমবিপিএস নির্ধারণ করে দিয়েছে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহিরুল হকের সঙ্গে গতকাল সন্ধ্যায় যোগাযোগ করা হলে তিনি সেই সূচকটি দেখেননি বলে জানান।

সূত্রঃ দ্যা ডেইলি স্টার

প্রতারণার মামলায় কারাগারে দেবাশীষ বিশ্বাস

২০১৭ সালে করা একটি প্রতারণার মামলায় উপস্থাপক ও নির্মাতা দেবাশীষ বিশ্বাসকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান নূর তাঁর জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে এ আদেশ দেন।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, আসামি দেবাশীষ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি থাকায় এদিন দুপুরে আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন তিনি। আদালত তাঁর আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার বিবরণীতে জানা যায়, সিএনটিভি ইউটিউব চ্যানেলের মালিক লিটন সরকার ইমন নামের এক ব্যক্তি দেবাশীষ বিশ্বাসের মা গায়ত্রী বিশ্বাস প্রযোজিত চারটি বাংলা চলচ্চিত্র—‘মায়ের মর্যাদা’, ‘শুভ বিবাহ’, ‘অপেক্ষা’ ও ‘অজান্তে’ ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার করতে ৬০ বছরের জন্য ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় ২০১৯ সালের ৩০ জুলাই বাণিজ্যিক শর্তে কিনে নেন।

তিনি ছবিগুলো ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করলে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ চ্যানেল বন্ধ করে দেয়।
পরে তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, এই চার চলচ্চিত্র আসামিরা তার আগেই ২০১৭ সালে অন্য দুজন ব্যক্তির কাছে বিক্রি করেন। যার কারণে ইউটিউব চ্যানেল কর্তৃপক্ষ ছবিগুলো আপলোড করার পর লিটন সরকার ইমনের চ্যানেল বন্ধ করে দেয়।
এরপরই ২০১৯ সালের ৮ সেপ্টেম্বর সিএমএম আদালতে লিটন সরকার ইমন বাদী হয়ে দেবাশীষ বিশ্বাস ও তাঁর মায়ের নামে প্রতারণার মামলা করেন। পরে আদালত এ বিষয়ে মিরপুর রূপনগর থানাকে তদন্তের নির্দেশ দেয়। তদন্ত কর্মকর্তা ও রূপনগর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো. মোকাম্মেল হোসেন তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

আদালত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে ২০১৯ সালের ৫ ডিসেম্বর আসামিদের আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেন। আসামিরা হাজির না হওয়ায় চলতি বছর ২১ অক্টোবর বাদীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ারা জারি করেন।

দেবাশীষ বিশ্বাস চলচ্চিত্র পরিচালক প্রয়াত দিলীপ বিশ্বাসের ছেলে। একটা সময় ‘পথের প্যাঁচালী’ নামের একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনার মাধ্যমে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন তিনি। তাঁর পরিচালিত প্রথম ছবি ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’ ২০০১ সালে মুক্তি পায়। আর প্রথম ছবিই ব্যবসায়িকভাবে সফলতা লাভ করে। এরপর পরিচালকের ‘শুভ বিবাহ’, ‘ভালোবাসা জিন্দাবাদ’, ‘চল পালাই’ ছবিগুলো মুক্তি পায়। দেবাশীষ ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ-২’–এর কাজ শেষ করছেন। এতে জুটি হিসেবে রয়েছেন জনপ্রিয় নায়ক বাপ্পি চৌধুরী ও চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস। ছবিটি মুক্তির অপেক্ষায়।

সূত্রঃ প্রথম আলো

মায়ের সঙ্গে অভিমান করে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা


২৭ অক্টোবর (মঙ্গলবার) রাতে ফতুল্লার দেওভোগ নূর মসজিদ এলাকায় নিজ বাড়িতে এঘটনা ঘটে। নিহত ছাত্রীর নাম তামান্না (১৮) সে নারায়ণগঞ্জ মর্গ্যান স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্রী।

নিহত তামান্নার বাবা আফজাল হোসেন জানান, তামান্না অনেকটা জেদী প্রকৃতির মেয়ে ছিলো। নতুন বাড়ি করার পর সেই বাড়িতে স্ত্রী ও কন্যা সন্তানকে নিয়ে বসবাস করতাম। ঘটনার দিন বিকেলে তামান্না তার মায়ের সঙ্গে ঘর গোছানো নিয়ে তর্কে জড়িয়ে পড়ে। এনিয়ে তামান্না অভিমান করে। রাতে ঘরের দরজা বন্ধ দেখে জানালা দিয়ে তার মা দেখেন ফ্যানের সঙ্গে শাড়ি কাপড় বেধে গলায় ফাস দিয়ে ঝুলে আছে তামান্না। এরপর আশপাশের লোকজনদের নিয়ে দরজা ভেঙ্গে তামান্নার নিথর দেহ উদ্ধার করে ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে জরুরী বিভাগের চিকিৎসক তামান্নাকে মৃত ঘোষনা করেন।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

একজন আউয়াল মেম্বার, দক্ষিন মাসদাইরের এক অভিবাবকের নাম

এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের একজন সুপরিচিত জনপ্রতিনিধির নাম ছিলো মীর আব্দুল আউয়াল মেম্বার। এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ডে দীর্ঘ ২০ বছরের মত মেম্বার ছিলেন তিনি। বাড়ৈভোগ-ঘোষেরবাগ এলাকার বাসিন্দাদের আশা ভরসা আর আস্থার নাম ছিল মীর আব্দুল আউয়াল মেম্বার। মানুষের যে কোনো সমস্যা সমাধানে ঝাপিয়ে পড়তেন। অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে কখনো পিছ পা হন নি।

আর এ জন্যই তার অনেক শুভাকাঙ্ক্ষী থাকলেও ছিলো অনেক শত্রুও। দলমত নির্বিশেষে তিনি ছিলেন সবার অভিভাবক, দলীয় সমস্যা থেকে শুরু করে বিভিন্ন পারিবারিক সমস্যা সমাধান করতেও তিনি ছিলেন সমান পারদর্শী। দক্ষিন মাসদাইরের এই সিংহ পুরুষ ২০১৭ সালের ২৯ অক্টোবর প্যানক্রিয়াস ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ভারতের চেন্নাইয়ে চিকিৎসারত অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। বলা হয় যে তার জানাজাটি ছিলো মাসদাইরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড়, যা একটি তার জনপ্রিয়তা এবং এলাকাবাসীর ভালবাসার অন্যতম নিদর্শন।

এই মেম্বার এর স্বরনে তার এক বাল্য বন্ধু বলেন, “এই এলাকায় অনেকেই প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন তার হাত ধরেই, তিনি অনেক বড় মনের মানুষ ছিলেন, কখনো নিজের জন্য ভাবতেন না। তিনি নিজের জন্য ভাবলে অর্থনৈতিকভাবে অনেক কিছুই করতে পারতেন কিন্তু তিনি মানুষের জনপ্রতিনিধি ছিলেন এবং নিজের যা ছিলো তা মানুষের সাথেই ভাগাভাগি করছেন। দক্ষিন মাসদাইরের অপর একজন ভোটার বলেন, আউয়াল মেম্বার ছিলেন সাহসী লোক, কাউকে ভয় পেয়ে কথা বলতেন না, তাই তার সময় এলাকায় অরাজকতা করতে দুষ্কৃতকারীদের ভাবা লাগতো কিন্তু এখন আর সেই পরিস্থিতি নেই। তার মৃত্যুতে আমরা একজন বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর হারিয়েছি।

তার মৃত্যর পরে অভিবাবকহীন হয়ে পড়া দক্ষিন মাসদাইরবাসী মনে করেন, তার চলে যাওয়াতে তার স্থান অপূরনীয়। তার পরিবার বন্ধু-বান্ধব ও এলাকাবাসী চোখের জলে এখনো মনে করেন তাকে। মীর আব্দুল আউয়াল মেম্বারের ব্যাপারে তার পরিবার থেকে তার একমাত্র ছেলে মাজহারুল ইসলাম মুন্না জানান, “আমার পিতার নামে আমাদের পরিবার থেকে মীর আব্দুল আউয়াল মেম্বার ফাউন্ডেশন নামে একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান করা হয়েছে, যেখানে কাজ করছে তরুন মেধাবী ও মাসদাইরের ক্লীন ইমেজের কিছু উদীয়মান তরুন।

তারা মনে করেন কৃর্তীমানের মৃত্যু নেই, তাই আউয়াল মেম্বার ফাউন্ডেশন এর সামাজিক গঠনমুলক কাজের মাধ্যমে বেঁচে থাকবেন মীর আব্দুল আউয়াল মেম্বার। আসলে আমার আব্বু মারা যাবার পর অনেকেই কথা দিয়েছিলো পাশে থাকবে, কিন্তু মারা যাবার তিন বছরেও তার কাছের কেউ জিজ্ঞেসা করেনি আমরা কেমন আছি? তার নামে একটি রাস্তা হবার কথা ছিলো সেটিও হয়নি, আসলে সেই সব কিছু শুধুই মিথ্যা প্রতিশ্রুতি আর কালক্ষেপন ছাড়া আর কিছুই না। তবে এটা মনে করি, তাকে মানুষ এমনি মনে করবে কারন তার বিকল্প এখনো হয়নি এই এলাকায়।

“আজ মরহুম আব্দুল আউয়াল মেম্বারের ৩য় মৃত্যূবার্ষিকী। দক্ষিন মাসদাইরের এই অবিভাবকের এই মৃত্যুবার্ষিকীতে তার পরিবারের পক্ষ থেকে মরহুমের আত্মীয়-স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী ও এলাকাবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন মরহুমের একমাত্র পুত্র এবং মীর আব্দুল আউয়াল মেম্বার ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট মোঃ মাজহারুল ইসলাম মুন্না।

রূপগঞ্জে এখন বালুর চাষ হচ্ছে :তৈমূর আলম খন্দকার

বিআরটিসির সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, রূপগঞ্জে এখন বালুর চাষ হচ্ছে। মাছ ফসলের চাষ হয় না। বৃটিশরা যেভাবে দালাল সৃষ্টি করেছে তেমনিভাবে ভূমিদস্যুরা দালাল সৃষ্টি করেছে। দালালদের অত্যাচারে এলাকাবাসী তটস্ত্র। সাংবাদিক ছাড়া আমাদের আর সহযোগিতা করার কেউ নেই। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে এলাকাবাসীকে হয়রানি করে।

কায়েতপাড়া ইউনিয়নে জোরপূর্বকভাবে কৃষকের তিন ফসলি জমি বালি ভরাট করার প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে তিনি এসব কথা বলেন।

২৭ অক্টোবর মঙ্গলবার সকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সামনে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। মানববন্ধনে রূপগঞ্জের ভুক্তভোগী এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী বার বার বলছেন তিন ফসলি জমি ভরাট করা যাবে না। জলাশয় ভরাট করা যাবে না। পুকুল খাল বিল ভরাট করা যাবে না। কিন্তু ভূমিদস্যুরা ইস্ট ওয়েস্ট ডেপলপমেন্ট কোম্পানীর আবাসন প্রকল্প করার নামে কায়েতপাড়া সহ বিভিন্ন এলাকার তিন ফসলি জমি ভরাট করে ফেলেছে। সেকানের জমিগুলো খুবই উর্বর। তারা কৃষকের কাছ থেকে জমি কিনে নাই।

তিনি আরও বলেন, দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী জেলা প্রশাসকের কাছে দায়িত্ব দেয়া আছে এই জমিগুলো রক্ষা করার জন্য। জেলা প্রশাসককে অনুরোধ করবো আপনি জমিগুলো রক্ষা করেন। কৃষকদের এই জমি না কিনেই ভূমিদুস্যরা দখল করছে। কৃষকদের পক্ষে কেউ দাঁড়াচ্ছে না। তাই এলাকার কৃষকগণ এখানে উপস্থিত হয়েছেন স্মারকলিপি দেয়ার জন্য। পরবর্তী সময়ে স্মারকলিপি অনুযায়ী কাজ না হলে আমরা দাবী আদায়ের জন্য গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সাংবিধানিক পদ্ধতি যা যা করার দরকার আমরা করবো।

প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ তৈমূর বলেন, আপনি সবসময় বলেন ফসলি জমি ভরাট করা যাবে না। তারপরেও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ফসলি জমি। প্রশাসন এ ব্যাপারে কোনো ভূমিকা পালন করে না। প্রশাসনকে নির্দেশ দেন যেন ভূমিদুস্যরা জমি দখল করতে না পারে। বৃটিশরা যেভাবে দালাল সৃষ্টি করেছে তেমনিভাবে ভূমিদুস্যরা দালাল সৃষ্টি করেছে। দালালদের অত্যাচারে এলাকাবাসী তটস্ত্র।

সূত্রঃ নিউজ নারায়ণগঞ্জ

আমাদের ছাত্রদের জানার ইচ্ছা আছে,শুধু নেই সমন্বয়ঃডিসি

‘একদিকে পলিথিনে আটকাচ্ছে ড্রেনের পানি। অন্যদিকে আধা ঘন্টার বৃষ্টিতে কাচা বাজারের সবজী চাল ডাল ভেসে যাচ্ছে। বিজ্ঞান মনষ্ক না হওয়ায় তল্লায় গ্যাসের পাইলাইনের লিকেজ থেকে মসজিদে বিস্ফোরণে মানুষ মারা গেলো। তা ছাড়া সামান্য গরম লাগার কারণে ২ নম্বর বৈদ্যুতের লাইনে দেওয়া হলো এসির সংযোগ। তাহলে কোথায় বিজ্ঞান মনষ্কতা?’

নারায়ণগঞ্জের বাস্তব চিত্র গুলো তুলে ধরে মঙ্গলবার সকালে ৩ দিন ব্যাপী ৪১ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের উদ্বোধনী অনলাইন অনুষ্ঠানে এ ভাবেই কথা গুলো বলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন। আগামী ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে মেলাটি।

নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) রেবেকা সুলতানার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক।

তার ভাষ্য, ‘আমাদের লাইব্রেরী আছে, শিক্ষক আছে, ছাত্রদের মধ্যে জানার ইচ্ছাও আছে। শুধু নেই সমন্বয়। সেই সমন্বয়টা করতে হবে। মেলা করেই এই বিজ্ঞান সপ্তাহ শেষ করা যাবে না, আমাদের অনেক জানতে হবে, জানাতে হবে এবং কাজে লাগাতে হবে।’

জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন বলেন, ‘আমরা বিজ্ঞানে যে ভাবে এগুচ্ছি সেই দ্বারা অব্যাহত রাখার জন্য আইনস্টাইন, গ্রামবেল আমাদের ড. জাফর ইকবালকে নিয়ে আগাতে হবে। নাসার বিজ্ঞানী বাংলাদেশীও আছে কয়েকজন। আমরা আরও অনেক জন চাই। তাহলেই সাফলতা পাবো। আমাদের উন্নয়নকে ধরে রাখতে হলে বিজ্ঞান মনষ্ক এক জাতি প্রয়োজন।’

এ সময় নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য এম আরিফ মিহির এর সঞ্চালনায় অনলাইন কনফারেন্সে জুম মিটিংয়ের এর মাধ্যমে যোগ দিয়েছেন জেলার বিভিন্ন স্কুল এবং কলেজের শিক্ষকরা।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

ইরফান সেলিমকে সংসদ সদস্যের পুত্র পরিচয়ও বাঁচাতে পারে নাই :শামীম ওসমান

সংসদ সদস্যের পুত্র কিংবা কাউন্সিলর এই পরিচয়ও তাকে বাঁচতে পারে নাই বরং এই পরিচয়ের করণে এত দ্রুত বিচারের সম্মুক্ষিন হতে হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আমলে কেউ আইনের উপরে নয়, সে যেই হোক, সবাই আইনের নিচে।এ সময় ইরফান সেলিমের কর্মকাণ্ডের নিন্দা জানান এই নেতা।


সংসদ সদস্য হাজি সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমের কাণ্ডে নিয়ে বেসরকারি একটি টিভি চ্যানেলের টকশোতে এ কথা বলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

শামীম ওসমান বলেন, সংসদ সদস্য হাজি সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম প্রাপ্ত বয়স্ক। তাঁর কর্মকাণ্ডের জবাব তাকেই দিতে হবে। আমি মনে করি, এখানে সামাজিকতার অবক্ষয় করা হয়েছে। বাবা-মার উচিৎ সন্তানের প্রতি খেয়াল রাখা। সেটা যেই হোক পলিটিশিয়ান, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী বা সাধারণ জনগন- কোন রকম ক্ষমতার দাম্ভিকতা না।

শামীম ওসমান আরও বলেন, জাতীর পিতাকে হত্যার পরে খুনিদের বিএনপি সরকার ক্ষমতায় বসিয়ে ছিলেন। দুনিয়ার শুরু থেকেই অপরাধ ছিল। দেখতে হবে রাষ্ট্র অপরাধকে আশ্রয় দেয় কি না? আমাদের প্রধানমন্ত্রী প্রমান করেছেন, অপরাধী যেই হোক কোন আশ্রয় আমরা দেই না। ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদন্ড করা হয়েছে বলে ধর্ষণ বন্ধ হয়ে যাবে, ব্যাপারটা কিন্তু তা নয়। আমাদের সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে, সেই ক্ষেত্রে কোন ধর্ম বা দল কোন কিছুর পার্থক্য করলে চলবে না। আমরা সবাই যদি এক সাথে মিলে কাজ করতে পারি, তা হলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার সপ্ন ও আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেই বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন, তা সফল হবে।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

তৃণমূল নেতা-কর্মীদের বঞ্চনা সহ্য করব না : সভাপতি খোরশেদ

নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সভাপতি ও নাসিক ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেছেন, ২০০৮-২০১৯ সাল পর্যন্ত সকল আন্দোলন সংগ্রামে মহানগর যুবদলের নেতা-কর্মীদের কার্যক্রম ছিল। ইনশাল্লাহ আগামী মাস থেকে সেন্ট্রালের যে কোন আন্দোলন সংগ্রামে মহানগর যুবদল রাজপথে থাকবে।

দলের কোন নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে বিষোগদার ও বদনাম করবেন না, আমরা সবাই একটি দল করি। লোভের কারণে অনেকে দিকে গেছে, অন্য কিছু করতাছে। এই লোভটা সাময়িক, যারা লোভের কারণে এসব করছে তাদের কোন দোষারূপ করছি না। তাদের লোভী করে তুলছে তারা হলে যুবদলের বাহিরে বিএনপি কিছু নেতা। করোন কালীন সময় ও আগে পরে আপনাদের সহযোগিতায় রাজনীতি ও মানবসেবা কারণে সুনাম হওয়ায়, অনেকে মধ্যে কষ্টের কারণে হয়ে উঠেছে।

অনেকে মনে করছে, আমি এই নির্বাচন করমু, আমি ওই নির্বাচন করমু। এই চিন্তার কারণে আমাদের দলের কিছু নেতাদের উপর নকল ভালবাসা দিয়ে সরিয়ে রেখেছে। সারা বাংলাদেশের মধ্যে অন্যতম সংগঠন হলো মহানগর যুবদল। এই যুবদলকে নষ্ট করার চেস্টা করে যাচ্ছে কিছু মেয়র ও এমপি প্রার্থী নেতারা। আল্লাহ সকল ক্ষমতা ও সম্মানের মালিক। তিনি যাকে উঠায়, তাকে সেই বুঝে ধরে রাখেন। যারা নকল ভালবাসায় সরে আছে তারা আমাদের বিরুদ্ধে কথা বার্তা বলবে, সেগুলো শুনে আল্লাহর কাছে বিচার দিয়ে রাখবেন।

পদ পদবী নিয়ে তূণমূল উদ্দেশ্যে খোরশেদ বলেন, ১৩/১৪ বছর যাবৎ যুবদলের সাথে জড়িত আছি। কে কোথায় কিভাবে যুবদলের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছে। আপনারা কারা কোন পদে যাবেন, আমাদের নেতৃবৃন্দ সিদ্ধান্ত নিবেন। আপনাদের নিয়ে আগামী সকল আন্দোলন গড়ে তুলবো, ইনশাল্লাহ।

মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর বিকাল সাড়ে ৩টায় মজলুম মিলনায়তনে জাতীয়তবাদী যুবদলের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের সভাপতি’র বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

এ সময় উপস্থিত ও বক্তব্য রাখেন মহানগর যুবদলের সহ সভাপতি রানা মজিব, দুলাল হোসেন, রিটন দে, দপ্তর সম্পাদক শওকত খন্দকার, সাংগঠনিক সম্পাদ রশিদুর রহমান রশো, প্রচার সম্পাদক রাসেল আহমেদ মনির, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জুলহাস, আলামিন খান, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল প্রধান, সাংগঠনিক সম্পাদক জুয়েল রানা, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, মো. বাহার, মো. নূর আলম, ইব্রাহিম, বন্দর থানা যুবদলের সভাপতি আমির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আলী নওশাদ, সহ সভাপতি পারভেজ খান, নজরুল ইসলাম, সদর থানা যুবদল নেতা রানা মুন্সি, এম এম সাজাদ সহ প্রমুখ।

খোরশেদের উদ্দেশ্যে তৃণমূল নেতারা বলেন, বড় গাছের উপর দিয়ে ঝড় যাবে, এটা স্বাভাবিক। আপনি ভাঙ্গবেন না। কর্মীরা পাশে আছি, থাকবো। সুযোগ সন্ধানের পায়তারা পড়েছে তারা। ভুল বুঝে ফের দলের পতাকা তলে আসবে। নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের দেশের সকল যুবদলের কাছে মডেল হয়ে আছে। সভাপতি খোরশেদ শুধু বিএনপি যুবদলের হিরো না, তিনি করোনা হিরো, তিনি বিদেশেও হিরো হয়ে আছেন। কর্মীদের মূল্যায়িত করে তাদের যথাস্থানে দিয়েছেন খোরশেদ সাহেব। কিন্তু অনেক পদ পেয়ে নিজের ক্ষমতা দেখানো জন্য দলের জীবনে দেখি নাই, তারা এখন ওয়ার্ড থানা বনে যাচ্ছে।

বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও বর্ণাঢ্য আয়োজনে বন্দরে জশনে জুলুস পালিত

বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যদিয়ে বন্দরে ৪৬তম ঐতিহাসিক জশনে জুলুস ঈদ এ মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭অক্টোবর) সকাল ১০টায় মদনগঞ্জ বটতলাস্থ্য আসাদ প্রধানের চেম্বার থেকে জশনে জুলুস শোভাযাত্রা শুরু হয়ে বন্দরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে কদমরসূল দরগাহ শরীফে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয়।

জশনে জুলুস ঈদ এ মিলাদুন্নবী (সাঃ) শোভাযাত্রায় নেতৃত্বদান এবং আখেড়ী মোনাজাত পরিচালনা করেন আওলাদে রাসুল পীরে কামেল আল্লামা সৈয়দ বাহাদুর শাহ মোজাদ্দেদী আল আবেদী (মা.জি.আ.)।

৪৬তম ঐতিহাসিক জশনে জুলুসে সভাপতিত্ব করেন উদযাপন কমিটির সভাপতি মোবারক হোসেন কমল খান।

জশনে জুলুস শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান ও বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এম এ রশীদ।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পীরজাদা সৈয়দ জাহের শাহ মোজাদ্দেদী আল আবেদী (মা.জি.আ.)।

সকাল ১০টায় জশনে জূলুস মিছিল মদনগঞ্জ বটতলা থেকে শুরু হয় এসময় উপস্থিত ছিলেনজুলুস উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাজী আসাবুদ্দিন আশু, বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক কাজীম উদ্দিন প্রধান, ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফয়সাল মোহাম্মদ সাগর, মাওলানা তামিম বিল্লাহ আল কাদরী, আনোয়ার হোসেন প্রধান, যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবুর রহমান কমল, শরীফ হাসান চিশতি, সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিম দেওয়ান, প্রচার সম্পাদক সোহেল খান, ইসলামী ছাত্র সেনা নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি রাহাত হাসান রাব্বি প্রমুখ।

আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করেন আওলাদে রাসুল পীরে কামেল আল্লামা সৈয়দ বাহাদুর শাহ মোজাদ্দেদী আল আবেদী (মা.জি.আ.)।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জশনে জুলিুস কমিটির সাবেক সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান সেক্রেটারী, মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা শরীফউল্লাহ শাহিন, মোতাওয়াল্লী কমিটির নজরুল ইসলাম, রবিউল আউয়াল, শামিউল ইসলাম উচ্ছাস, আরাফাত হোসেন জুবায়ের প্রমুখ। উল্লেক্য যে, ১৯৭৪ সালে রাসুল (সাঃ) এর ৪০তম বংশধর জশনে জুলুসে ঈদ এ মিলাদুন্নবী (সাঃ) এর প্রতিষ্ঠাতা আকবু নসর সৈয়দ মোঃ আবেদ শাহ আল মাদানী (রঃ) এর নেতৃত্বে সর্বপ্রথম বন্দরে জশনে জুলস শোভাযাত্রা উদযাপন করা হয়, এ বছর ৪৬তম জশনে জুলুস উদযাপিত হয়।

খোরশেদকে নেতাকর্মীরা : ভেঙে পড়বেন না, কর্মীরা আছি

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে রাজনৈতিকভাবে ভেঙে না পড়ার আহবান রেখেছেন দলটির নেতাকর্মীরা।

২৭ অক্টোবর বিকেলে শহরের মাসদাইরে মজলুম মিলনায়তনে ওই সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে দলের বিভিন্নস্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

একই সময়ে দলের একটি অংশ পৃথকভাবে শহরের নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের সামনে মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খানের উপস্থিতিতে আলাদা অনুষ্ঠান করেন।

খোরশেদের উদ্দেশ্যে তৃণমূল নেতারা বলেন, বড় গাছের উপর দিয়ে ঝড় যাবে, এটা স্বাভাবিক। আপনি ভাঙ্গবেন না। কর্মীরা পাশে আছি, থাকবো। সুযোগ সন্ধানের পায়তারা পড়েছে তারা। ভুল বুঝে ফের দলের পতাকা তলে আসবে। নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের দেশের সকল যুবদলের কাছে মডেল হয়ে আছে। সভাপতি খোরশেদ শুধু বিএনপি যুবদলের হিরো না, তিনি করোনা হিরো, তিনি বিদেশেও হিরো হয়ে আছেন। কর্মীদের মূল্যায়িত করে তাদের যথাস্থানে দিয়েছেন খোরশেদ সাহেব। কিন্তু অনেক পদ পেয়ে নিজের ক্ষমতা দেখানো জন্য দলের জীবনে দেখি নাই, তারা এখন ওয়ার্ড থানা বনে যাচ্ছে।

সূত্র বলছে, ২০১৮ সালের ১৯ অক্টোবর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে সভাপতি, মনতাজ উদ্দিন মন্তুকে সাধারণ সম্পাদক, মনোয়ার হোসেন শোখনকে সহসভাপতি মনোয়ার হোসেন শোখন, সাগর প্রধানকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও রশিদুর রহমান রশোকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছিল। সেই আংশিক কমিটি ঘোষণার প্রায় ৫ মাস পর নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের ২০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা কমিটি ঘোষণা করা হয়। তবে এখনও তাদের অধীনে থাকা থানা ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হয়নি।

জানা যায়, সাম্প্রতিক সময়ে মহানগর যুবদলের অধীনে থাকা থানা ও ওয়ার্ড কমিটি গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। কিন্তু এই কমিটি গঠন নিয়েই নেতাকর্মীদের মাঝে বিপত্তি ঘটতে শুরু করছে। মহানগরের অধীনে থাকা সিদ্ধিরগঞ্জ থানা কমিটি কমিটি গঠন নিয়ে সাধারণ সম্পাদক মনতাজ উদ্দিন মন্তু চাচ্ছেন তিনি নিজে আহবায়ক হতে। কিন্তু সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ চাচ্ছেন অন্য কাউকে এখানে আহবায়ক করতে।

আর এটা মেনে নিতে পারছেন না সাধারণ সম্পাদক মনতাজ উদ্দিন মন্তু। তিনি আলাদাভাবে পথ হাটতে শুরু করেছেন। প্রথমদিকে সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ ও সাধারণ সম্পাদক মনতাজ উদ্দিন মন্তু এক কাতারে ও এক মঞ্চে থাকলেও এখন আর তাদেরকে একসাথে দেখা যাচ্ছে না। তাদের মধ্যে পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষভাবে মতবিরোধ পরিলক্ষিত হচ্ছে। মনতাজ উদ্দিন মন্তু এখন খোরশেদের সাথে না গিয়ে কমিটি গঠনের প্রথম থেকেই বিপরীতে থাকা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাগর প্রধানের সাথে মিলে দলীয় কার্যক্রম পরিচালনার করছেন।

এদিকে গত ১০ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সুপার ফাইভের শীর্ষ ৫ নেতার সঙ্গে কমিটি গঠনের বিষয়ে বৈঠক করে কেন্দ্রীয় যুবদল। বন্দর, সদর ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবদলের কমিটি গঠনে খসড়ায় গড়মিল থাকায় পূণরায় কমিটি গঠনের জন্য নতুন করে প্রক্রিয়া শুরু করতে নির্দেশ দেন। কেন্দ্রীয় যুবদলের নির্দেশ প্রতিটি থানা এলাকার যুবদল নেতাদের তথ্য সংগ্রহ করে কেন্দ্রে জমা দিতে হবে। তারপর কমিটি গঠন করা হবে। সেজন্য সুপার ফাইভের নেতাদের নিয়ে প্রতিটি এলাকায় তথ্য সংগ্রহ ফরম বিতরণের জন্য মহানগর যুবদলের হাতে ফরম তুলে দেয় কেন্দ্রীয় যুবদল।

ওই বৈঠকে মহানগর যুবদলের শীর্ষ নেতাদের বক্তব্যে বেশ তোপের মুখে পড়েন খোরশেদ। ওইদিন কেন্দ্রীয় নেতাদেরকে মহানগর যুবদলের তিন নেতা জানান, করোনাকালে মহানগর যুবদলের ব্যানারে খোরশেদ একটি কর্মসূচিও পালন করেননি। তিনি টিম খোরশেদ নামে ব্যক্তি প্রচারনায় ব্যস্ত ছিলেন। দীর্ঘ ৫টি মাস তিনি করোনাকালে কাজ করলেও দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নামটিও মুখে নেননি। আর এসকল বিষয় মিলিয়ে বর্তমানে কিছুটা চাপের মুখে রয়েছেন মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।

তবে মহানগর যুবদলের শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন, আমাদের মাঝে ব্যক্তিগত কোনো মতবিরোধ নেই। মতবিরোধ হচ্ছে সাংগঠনিক কার্যক্রম নিয়ে। যদি সকলেই দলীয় নীতির মধ্যে থেকে সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত নেয় তাহলে আমাদের মাঝে কোনো মতবিরোধ থাকবে না। আবারও সকলেই একমঞ্চে ফিরে আসবে।

সূত্রঃ নিউজ নারায়ণগঞ্জ

সিদ্ধিরগঞ্জে চোরাই তেলসহ সিরাজ মন্ডলের ভাই আটক

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে র‌্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমাণ চোরাই তেলসহ আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের ছোট ভাই আটক হয়েছেন। সোমবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জের এসও রোডের মেঘনা ওয়েল ডিপো এলাকায় অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় ১১৫০ লিটার চোরাই তেলসহ মাহবুবুর রহমান মামুনকে (৪৫) আটক করে র‌্যাব।

আটক মামুন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সংগঠনের নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের ছোট ভাই।

অভিযান শেষে র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন চৌধুরী প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানান, দুপুর দেড়টার দিকে এসও রোডের মেঘনা তেল ডিপো এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি দল। এ সময় ৭টি ড্রামভর্তি ১১৫০ লিটার চোরাই তেল জব্দ করা হয়। চোরাই তেল চক্রের সাথে জড়িত থাকায় আটক করা হয় মাহবুবুর রহমান মামুনকে। চোরাই সিন্ডিকেটের আরেক সদস্য আরিফ (৩৫) পালিয়ে গেছে বলেও জানায় র‌্যাব।

প্রাথমিক অনুসন্ধানের ভিত্তিতে র‌্যাব জানায়, সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল এলাকায় অবস্থিত মেঘনা ও পদ্মা ডিপোকেন্দ্রিক বেশ কয়েকটি চোরাই তেলের সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। এই ডিপোগুলো হতে প্রতিদিন শত শত তেলের লরি তেলভর্তি করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যায়। এই সিন্ডিকেটের কাছে কিছু অসাধু লরির ড্রাইভার ও হেলপার নামমাত্র মূল্যে তেলভর্তি লরি থেকে চুরি করে তেল বিক্রি করে। চোরাই চক্র এই তেলের সাথে ভেজাল তেল মিশিয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের কাছে সরবরাহ করে। এই তেল ব্যাবহার করে গাড়ীর ইঞ্জিন ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। আটক মাহবুবুর রহমান মামুনকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে ও পলাতক আসামি আরিফ (৩৫) আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য দীর্ঘদিন যাবৎ তেল চুরির অবৈধ সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে। তারা অভিনব কৌশলে অবৈধ উপায়ে জ্বালানী তেল সংগ্রহ এবং ঝুঁকিপূর্ণভাবে মজুদ করে অবৈধভাবে কেনাবেচা করে আসছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে। আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন জানান র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন।

উল্লেখ্য, এর আগে গতকাল (২৫ অক্টোবর) একই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩৭ টি ড্রামভর্তি ৭৬৬০ লিটার চোরাই তেল উদ্ধারসহ মো. শাহাজাহান (৩৫) নামে চোরাই চক্রের সক্রিয় এক সদস্যকে আটক করে র‌্যাব।

সূত্রঃ প্রেস নারায়ণগঞ্জ

স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ: তক্কারমাঠের কিশোর গ্যাং লিডার গ্রেপ্তার

ফতুল্লা করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ১৩ বছরের স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সানি নামের যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। স্থানীয়রা দাবী করছেন, ‘সানি কিশোর গ্যাংয়ের লিডার’।

সোমবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে ফতুল্লার শিয়াচর তক্কারমাঠ এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত সানী ফতুল্লা থানার শিয়াচর গনি হাজী বাড়ীর মোড় এলাকার আক্কাস আলীর ছেলে ও শ্রমিক লীগ নেতা ইমান আলীর ভাতিজা।

অভিযোগপত্রে স্কুল ছাত্রীর মা জানান, স্থানীয় একটি কিন্ডারগার্টেন স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেনীতে পড়ালেখা করতেন তার মেয়ে। গত ২৫ অক্টোবর পাশের ফ্ল্যাটের এক মহিলার কাছে মেয়েকে রেখে চাষাঢ়ায় ডাক্তারের নিকট চিকিৎসার জন্য গিয়েছিলো। দুপুরে খাবার খেতে মেয়েটি নিজের ঘরে প্রবেশ করতেই দরজা খোলা পেয়ে বখাটে সানী ডুকে পরেন। পরে দরজা বন্ধ করে মেয়েকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি টের পেয়ে পাশের ফ্ল্যাটের মহিলাসহ একাধিক ব্যক্তি দরজায় টোকা ও চিৎকার চেচামেচি করলেও ২০ থেকে ৩০ মিনিট পর দরজা খুলে বের হয়ে যায় সানি। চলে যাবার সময় সানী তার মেয়েকে বলে যায়, মুখ খুললে তাকে সহ পরিবারের সদস্যদেরকে হত্যা করা হবে।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন বলেন, অভিযুক্ত ধর্ষক সানীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং তার বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে। তবে, সানি কিশোর গ্যাংয়ের লিডার কিনা জানা নেই।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

সোনারগাঁয়ে দিন দুপুরে অস্ত্রের মহড়ায় ১৮ কো‌টি টাকার জমি দখলের অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার বিন্নিপাড়ায় সরকারি খাসজমি, খাল ও ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি দিন দুপুরে গুলিবর্ষণ ও অস্ত্রের মহড়া দিয়ে দুর্বৃত্তরা দখল করে বালু দিয়ে ভরাট করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় কয়েকজন ভুক্তভোগীর থেকে জানা গেছে, উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের কাবিলগঞ্জ গ্রামের বাসিন্দা মৃত শামসুদ্দিনের ছেলে আশরাফ মিয়া ও শাহাবুদ্দিন ২০–২৫ জনের একদল দুর্বৃত্ত নিয়ে কয়েক মাস ধরে শিল্পকারখানা করতে দিনদুপুরে অস্ত্রের মহড়া ও গুলিবর্ষণ করে ওই ইউনিয়নের বিন্নিপাড়া ও কাবিলগঞ্জের বাসিন্দাদের ফসলি জমি, সরকারি খাসজমি ও শত বছরের পুরোনো একটি খাল দখল করে ভরাট করছেন। এ ঘটনায় গত ১১ আগস্ট স্থানীয় গ্রামবাসী একত্র হয়ে দখলদার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেন। এ সময় দুর্বৃত্তরা বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করলে গ্রামবাসী প্রাণে বাঁচতে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যান।

কাবিলগঞ্জ গ্রামের আরও এক বাসিন্দা থেকে জানা যায়, ‘প্রভাবশালী আশরাফ ও শাহাবুদ্দিন দুই ভাই এরই মধ্যে আমাদের এলাকার বাসিন্দাদের ২০ বিঘা জমি বালু দিয়ে ভরাট করে দখল করে নিয়েছেন। ২০ বিঘা জমির বর্তমান বাজারমূল্য প্রায় ১৫ কোটি টাকা। এ ছাড়া এই দুই ভাই এরই মধ্যে তিন বিঘা সরকারি খাসজমি ও দুই বিঘা সরকারি খাল দখল করেছেন, যার বাজারমূল্য প্রায় ৩ কোটি টাকা।’

সে আরও জানান, ‘দুর্বৃত্তরা অস্ত্রের মহড়া ও গুলিবর্ষণ করে চর দখলের মতো গ্রামবাসী ও সরকারি জায়গা দখল করে নেওয়ার পর আমরা থানায় মামলা দিতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। এ ছাড়া বিষয়টি স্থানীয় ভূমি কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের জানালেও তাঁরা তাৎক্ষণিকভাবে কোনো ব্যবস্থা নেননি।’

এবিষয়ে সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, এইসব কথার কোন সত্যতা নেই। যখনই বিষয়টি আমরা জানতে পারি তাৎক্ষণিক আমাদের অফিসার পাঠিয়ে তাদের কাজ বন্ধ করে দেয়ার পাশাপাশি জমি ভরাট করার ড্রেজার ও জমি দখলের বেরা ভেঙ্গে দেই। কেউ আমাদের থানায় অভিযোগ দিলে আমরা অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অবশ্যই আইনগত ব্যাবস্থা নেই।

স্থানীয় মোগরাপাড়া ইউনিয়ন ভূমি কার্যালয়ের ভূমি সহকারী কর্মকর্তা জালাল উদ্দিন আহম্মেদ জানান, ‘স্থানীয় প্রভাবশালী দুই ভাই আশরাফ ও শাহাবুদ্দিন দুর্বৃত্তদের জড়ো করে প্রকাশ্যে দিনদুপুরে চর দখলের মতো গ্রামবাসীর জায়গা, সরকারি জমি ও খাল দখল করে নিচ্ছেন। আমি বিষয়টি লিখিতভাবে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। কিন্তু তাঁদের দখলবাজি বন্ধ হচ্ছে না।’

ইতি মধ্যেই দুই ভাই কাবিলগঞ্জ গ্রামের বাসিন্দা মোশারফ হোসেনের ৩ বিঘা, রানা সরকারের ৪ বিঘা, আনোয়ার আলীর ২৫ শতাংশ, আবদুল মান্নানের ১০ শতাংশ, ওয়ালিদ মিয়ার ৪৫ শতাংশ, সালাউদ্দিন মিয়ার ১৪ শতাংশ, স্বপন মিয়ার ৪২ শতাংশ, আজিজুল ইসলামের ১২ শতাংশ, মানিক প্রধানের চার বিঘা জমিসহ গ্রামবাসীর ২০ বিঘা জমি বালু দিয়ে ভরাট করে দখল করে নিয়েছেন।

গতকাল সোমবার দুপুরে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, আশরাফ ও শাহাবুদ্দিনের সহযোগীরা খননযন্ত্রের সাহায্যে সরকারি খাল ও গ্রামবাসীর ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি ভরাট করে দখল করে নিচ্ছেন।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

না.গঞ্জে মাকসুদ এলাহি’র মৃত্যুতে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর শোক বার্তা

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ বন্দর থানা শাখার আহবায়ক মাকসুদ এলাহি’র মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম।সোমবার ২৭শে অক্টোবর এক শোক বার্তায় তিনি মাকসুদ এলাহির মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন।এছাড়াও শোক জানিয়েছেন সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার খোকা বীরপ্রতীক ও সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম দেলোয়ার ।

মাকসুদ এলাহি’র প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, “ দেশের জরুরী অবস্থার সময় যখন প্রায় সবাই ভীতসন্ত্রস্ত তখন মাকসুদ এলাহি ছিলেন হিমালয়ের মতো দৃঢ়চিত্ত। তিনি একজন উদার এবং দানশীল মানুষ ছিলেন।”তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজনের প্রতি সমবেদনা জানান।