২৬ সেপ্টেম্বরই হচ্ছে বার কাউন্সিল পরীক্ষা

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

আইনজীবী তালিকাভুক্তি লিখিত পরীক্ষা আগামী ২৬ সেপ্টেম্বরই হচ্ছে। এখন পর্যন্ত পরীক্ষা পেছানোর বিষয়ে কোন ধরনের আলোচনা করেনি বার কাউন্সিল কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ন রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আইনজীবী তালিকাভুক্তি লিখিত পরীক্ষা পেছানোর বিষয়ে কোনো সিন্ধান্ত হয়নি। আইন অনুযায়ী পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। নির্ধারিত দিনেই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।’

এ দিকে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, করোনার মধ্যে আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের পরীক্ষা হবে কি না, সে বিষয়ে বার কাউন্সিলের এনরোলমেন্ট কমিটির সঙ্গে তিনি আলোচনা করবেন।

বার কাউন্সিলের একজন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে বলেন, গুটিকয়েক পরীক্ষার্থী আজকে যারা করোনার কারণ দেখিয়ে পরীক্ষা পেছানোর কথা বলছেন। কিছুদিন আগে তারাই দ্রুত পরীক্ষা নেওয়ার জন্য আন্দোলন করেছেন।

গত ৫ সেপ্টেম্বর বার কাউন্সিলের এনরোলমেন্ট কমিটির আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর ১৩ হাজার শিক্ষার্থীর আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ বার কাউন্সিল।

পূর্বে শুধু মৌখিক পরীক্ষার (ভাইভা) মাধ্যমে আইনজীবীদের সনদ দেওয়া হতো। তবে দিন দিন শিক্ষার্থীদের চাপ বাড়তে থাকায় আইনজীবী হতে বর্তমানে নৈর্ব্যক্তিক, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়। আবার ওই তিন ধাপের যেকোনো একটি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা একবার উত্তীর্ণ হলে পরবর্তী পরীক্ষায় তারা দ্বিতীয় ও শেষবারের মতো অংশগ্রহণের সুযোগ পান।

তবে দ্বিতীয়বারেও অনুত্তীর্ণ হলে তাদের পুনরায় শুরু থেকেই পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। সেই অনুসারে ২০১৭ সালের ৩৪ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে থেকে লিখিত পরীক্ষায় দ্বিতীয় ও শেষবারের মতো বাদপড়া ৩ হাজার ৫৯০ শিক্ষার্থী এবং ২০২০ সালে প্রায় ৭০ হাজার শিক্ষানবিশ আইনজীবীর মধ্যে এমসিকিউ উত্তীর্ণ ৮ হাজার ৭৬৪ শিক্ষার্থীসহ মোট ১২ হাজার ৮৫৮ জন সনদ প্রত্যাশী লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবেন।

আপিল বিভাগের রায় প্রতিপালন না করে অনিয়মিত পরীক্ষাগ্রহণ এবং খাতা রিভিউ সুবিধা প্রদান না করাসহ বেশ কিছু দাবিতে আন্দোলন করছেন শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা। আন্দোলনের মুখে আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর লিখিত পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয় বার কাউন্সিল।

কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে পরীক্ষা না দিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের  কিছু পরীক্ষার্থী  আন্দোলন করে চলছে।

সূত্রঃ রাইজিংবিডি

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin