হেফাজতের অভ্যন্তরীণ কোন্দল চাপা দিতেই মামলাঃমাওলানা হামিদী

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

‘হেফাজত ইসলামের আমীর আহমদ শফি সাহেবের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে হেফাজতে ইসলামের চরম কোন্দল ধামাচাপা দিতে মুফতী আলাউদ্দিন জিহাদীর নামে মামলা করেছে বলে আমরা মনে করি। আজকে ‘হেফাজতে ইসলাম’ ইসলামের হেফাজতের নামে উগ্রবাদ প্রচার করে যাচ্ছে। এদেশে জঙ্গি কর্মকান্ড, শিশু বলৎকার, কুরআন শরীফ পুড়ানো সহ তাদের মাধ্যমে বিভিন্ন উগ্রবাদী কর্মকান্ড বিভিন্ন সময়ে মিডিয়ার বদৌলতে আপনারা অবলোকন করছেন।’

২৩ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকেলে শহরের চাষাঢ়ায় একটি চাইনিজ রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এসব কথা বলেন আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত ঐক্য পরিষদ জেলার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাওলানা মহিউদ্দিন হামিদী।

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত’র সদস্য আল্লামা মুফতী আলাউদ্দিন জিহাদীর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে সংগঠনের পক্ষ থেকে ওই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রয়াত আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মৃত্যু নিয়ে কটুক্তির অভিযোগে এনে দেওভোগ মাদ্রাসার খতিব হারুনুর রশীদ বাদী হয়ে মুফতি আলাউদ্দিন জিহাদীর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের একটি মামলা করা হয়। ওই মামলায় গত ২০ সেপ্টেম্বর দুপুরে ফতুল্লার মাহমুদপুর এলাকার নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ওই মামলায় মঙ্গলবার পুলিশ একদিনের রিমান্ডে নেয়।

লিখিত বক্তব্যে মাওলানা মহিউদ্দিন হামিদী বলেন, ‘যারা ইসলামের অপব্যাখা করে ইসলামের নামে নবী পাকের শান ও মানকে ছোট করে উপস্থাপন করতো, সেই সমস্ত উগ্রবাদী ইসলামের সাবাধনিতা বিরোধী শক্তির জন্য তিনি একজন বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর মুফতি আলাউদ্দিন জিহাদী। আজকে সেই উগ্রবাদী ইসলামের অপব্যাখ্যাকারী ধর্মীয় গ্রুপের নীলনকশা ও ষড়যন্ত্রের শিকার আল্লামা মুফতী আলাউদ্দিন জিহাদী। সেই ষড়যন্ত্রের বাস্তবিক রূপ হচ্ছে এ মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা। এই উগ্রবাদীরা আজ শাক দিয়ে মাছ ঢাকার অপচেষ্টায় লিপ্ত। তাদের নিজেদের অভ্যন্তরীন কোন্দল ভিন্ন দিকে প্রবাহিত করার জন্য এ অপচেষ্টা। যার প্রমাণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হেফাজতের নেতাদের বক্তব্য কমেন্টের মাধ্যমে দেখতে পেরেছেন। আমাদের হাতে ফেসবুকের এই স্ক্রীনশট রয়েছে। তাদের দলের কর্মীরা বলছেন, আল্লামা শফি কে পিটিয়ে মারতে আমি একাই যথেষ্ট এবং আরও অনেক কমেন্ট। যদি কাউকে গ্রেফতার করতে হয় তাহলে হেফাজতের ঐসব নেতাদের গ্রেফতার করতে হবে। তারা নিজেরাই তাদের নেতা আল্লামা শফি সাহেবকে হত্যা করতে চেয়েছে। আবার কেউ কেউ আল্লামা শফি সাহেব কে দালাল, বাটপার বলে আখ্যায়িত করেছে এবং তারা তাদের নিজেদের মাদরাসায় ব্যাপক ভাংচুর তান্ডবলীলা চালিয়েছেন, যা সারা বিশ্ব মিডিয়ার কল্যানে অবলোকন করেছেন। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এহেন ঘৃন্য কার্যকলাপের পরেও সরকার তাদের ব্যাপারে নিশ্চুপ।

তিনি আরো বলেন, ‘সম্প্রতি হেফাজতে ইসলামের আমির আহমদ শফি সাহেবের মৃত্যুর পর মুফতী আলাউদ্দিন জিহাদী নিজে আহমদ শফি সাহেবের বিরুদ্ধে কোন স্ট্যাটাস দেননি। যেহেতু তার নামীয় আইডি থেকে একটি স্ট্যাটাস দেওয়া হয়েছে , তার জন্য উক্ত স্ট্যাটাসটি ডিলেটের ব্যবস্থা করে দুঃখ প্রকাশ করেন। এ ঘটনায় তিনি গত ১৯ সেপ্টেম্বর ফতুল্লা মডেল থানায় জিডি করেছেন।’

তিনি বলেন, ‘একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে তিনি তার দায়িত্ব পালন করেছেন। তারপরও উগ্রবাদীরা মুফতী আলাউদ্দিন জিহাদীর বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করেন। হেফাজত ইসলামের আমীর আহমদ শফি সাহেবের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে হেফাজতে ইসলামের চরম কোন্দল ধামাচাপা দিতে মুফতী আলাউদ্দিন জিহাদীর নামে মামলা করেছে বলে আমরা মনে করি। আজকে ‘হেফাজতে ইসলাম’ ইসলামের হেফাজতের নামে উগ্রবাদ প্রচার করে যাচ্ছে। এদেশে জঙ্গি কর্মকান্ড, শিশু বলৎকার, কুরআন শরীফ পুড়ানো সহ তাদের মাধ্যমে বিভিন্ন উগ্রবাদী কর্মকান্ড বিভিন্ন সময়ে মিডিয়ার বদৌলতে আপনারা অবলোকন করছেন।’

মাওলানা মহিউদ্দিন হামিদী বলেন, ‘অবিলম্বে মুফতী আলাউদ্দিন জিহাদীর নামে দায়েরকৃত মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহার করে নিঃশর্তে মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত ঐক্য পরিষদ নারায়ণগঞ্জের উদ্যোগে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচী দেয়া হবে।

সূত্রঃ নিউজ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin