হিরা মহলের ইট খুলবেন আ.লীগের রাজনীতি করবেন, এটা ঠিক না: খোকন সাহা

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বন্দরে ২০ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৩১ ডিসেম্বর বিকেলে উপজেলার দড়ি সোনাকান্দায় এ আয়োজন করা হয়। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মো.শফিউল্লাহ’র সভাপতিত্বে ও ২০ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুজ্জামান খোকনের সঞ্চালনায়, অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকোট খোকন সাহা।

এ্যাডভোকোট খোকন সাহা বলেন, অনেকে হিরা মহলের ইট খুলে আনার কথা বলেছেন। হিরা মহলে হাত দিতে চান, কার জায়গায় হাত দিবেন? একজন সৎ, নিষ্ঠাবান, রাজনৈতিক নেতার জায়গায় হাত দিবেন? ঠিক না। জোহা সাহেব কে ছিলেন, তা আপনাকে জানতে হবে। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। খুব সৎ ছিলেন, সারা জীবন রাজনীতি করেছেন ছেলে মেয়েদের জন্য কিছু রেখে যান নাই। উনার পিতা খান সাহেব ওসমান আলী জোহা সাহেবের নামে এই বাড়িটা দিয়েছিলেন। জোহা সাহেব কিছু করেন নাই। স্বাধীনতার পর আমাদের নেতা জোহা সাহেবের হাতে শত শত লাইসেন্স ইস্যু হয়েছে। ৭৫ এর পর জিয়াউর রহমান তাকে মন্ত্রীত্ব দিতে চেয়েছিল, তিনি যান নাই। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে অনেক নেতাদের জন্য, আওয়ামী লীগ নেতার জন্য আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছিল। সব আমরা জানি। কারা সম্পত্তি দখল করেছে আমরা জানি। ৮ টা, ১০ টা বাড়ি আমার নেতা রেখে যান নাই। পৈতৃক সম্পত্তির একটা বাড়িই রেখে গেছেন। হিরা মহলের ইট খুলবেন আর আওয়ামী লীগের রাজনীতি করবেন, এটা ঠিক না।


প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নিজের কথোপকথনের বিষয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আপাকে বলেছিলাম, আপা রাজনীতি অনেক দিন করেছি এবার ছেড়ে দেই। আপনার নামে স্কুল দেই। আপা বলেছেন, তুমি রাজনীতি করো’।

দেশের উন্নয়ন প্রসঙ্গে এ্যাডভোকেট খোকন সাহা বলেন, করোনায় সারা বিশ্বে অর্থনীতির ধ্বস। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশে ধ্বস নেই। সমস্ত উন্নয়ন নেত্রীর। নেত্রীর কাছ থেকে শামীম ওসমান বিশ্ববিদ্যালয় চেয়ে এনেছেন। নারায়ণগঞ্জবাসীর দুঃখ দুর্দশা লাঘবের জন্য। লিংক রোড প্রশস্ত হবে, শেখ রেহানার নামে মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হবে, হার্টের চিকিৎসার জন্য ঢাকা সোহরাওয়ার্দী যেতে হবে না, হার্টের চিকিৎসার ব্যবস্থা নারায়ণগঞ্জেই হবে। শীতলক্ষ্যা ব্রিজের কাজ চলছে, সরকার ক্ষতিপূরণ দিয়ে কাজ করছে। উন্নয়ন প্রচার হয় না, আপনারা যারা আছেন সবাই একজন ১০ জনের কাছে নেত্রীর উন্নয়ন প্রচার করেন। আমার নেতা স্বাধীনতার পর শামসুজ্জোহা উন্নয়ন করেছেন। তারপর নাসিম ওসমান করেছেন। বর্তমানে করছেন শামীম ওসমান, নাসিম ওসমান।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, যারা ভাস্কর্যে হাত দিয়েছে তারা স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের উপর হাত দিয়েছে। তারা সিরিয়া, আফগানিস্থান বানাতে চায়। আমরা বেঁচে থাকতে তাদের অকার্যকর রাষ্ট্র ঘোষণার সুযোগ দিবো না। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে বার বার নারায়ণগঞ্জের কথা বলেছেন। এই নারায়ণগঞ্জ থেকে মৌলবাদী বিরোধী আন্দোলন আমার নেতা শামীম ওসমান ডাক দিয়েছেন। আমরা জাতির জন্য মেসেজ দিতে চাই। নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনার ঘাঁটি। আমরা রিকস নিয়েছি। অতীতে নিয়েছিলাম পরিণামে ২০টি তাজা প্রাণ হারিয়েছি, চন্দনশীল পা হারিয়েছে। ওরা নারায়ণগঞ্জকে নেতৃত্ব শূণ্য করতে চেয়েছিল। বার বার টার্গেটে আমরা। ১৫ বছর থেকে রাজনীতি করে, আজ বয়স ৬০। ১৪ ডিসেম্বর কি করতে চেয়েছিল ওরা সে কথা বলবো, কারা করতে চেয়েছিল সেটাও বলবো। সেনাবাহিনী, পুলিশ বাহিনীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে ওরা। এই বাহিনী করোনাকালে ভূমিকা রেখেছে, শ্রদ্ধার সাথে তাদের স্মরণ করবো। বিতর্কিত করার চেষ্টা করবেন না, দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে। ৯ তারিখে আপনারা আসবেন নারায়ণগঞ্জে, আমাদের টার্গেট লক্ষাধিক মানুষ হবে। আমরা জাতির কাছে মেসেজ পৌঁছে দিবো।


অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- মহানগর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ন কবির মৃধা, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইশরাত জাহান স্মৃতি, বন্দর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ছালিমা হোসেন শান্তা, আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক শহিদুল হাসান মৃধাসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin