হার না মানা এক নেতা পলাশ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে একজন আলোচিত নেতা হলেন জাতীয় শ্রমিকলীগের বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক ও আগের কমিটিতে শ্রমিক উন্নয়ন ও কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক পদে থাকা কাউসার আহমেদ পলাশ। সকল বাধা বিপত্তিকে মোকাবেলা করে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে শক্ত অবস্থান ধরে রেখে এগিয়ে চলছেন তিনি।

জানা যায়, সম্প্রতি জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে জায়গা করে নিয়েছেন কাউসার আহমেদ পলাশ। এর আগের কমিটিতে শ্রম ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। এবার তিনি সাংগঠনিক পদে পদায়িত হয়েছেন। আর এভাবেই তিনি তার লক্ষপানে ছুটে চলেছেন।

গত ১৮ অক্টোবর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত চিঠিতে জাতীয় শ্রমিক লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়। আর এই কমিটিতে শ্রমিক লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন ফজলুল হক মন্টু এবং সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন কেএম আজম খসরু। কার্যকরী সভাপতি হয়েছেন মোল্লা আবুল কালাম আজাদ।

এর আগে গত ১২ অক্টোবর পাগলা বাজার এলাকায় জাতীয় শ্রমিকলীগ ফতুল্লা আঞ্চলিক শাখা আয়োজিত শ্রমিকলীগের ৫১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শ্রমিক সমাবেশের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে বেশ কঠোর ভাষায় বক্তব্য দেন কাউসার আহমেদ পলাশ। যা এর আগে কখনও এরকম কঠোর ভাষায় বক্তব্য দিতে দেখা যায়নি।

ওই সমাবেশে কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, আওয়ামী লীগ যখন বিরোধী দল তখন আমরা মিছিল করতাম। ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী করতে দেওয়া হতো না। আমাদের দাঁড়াতে দেয়নি। এ পাগলায় এখন নব্য আওয়ামী লীগকে দেখা যায়। অনেক হাইব্রিডকে দেখা যায়। তাদের অনেক ভাবসাব রয়েছে। তারা কথায় কথায় বলেন আমরা ‘এমপির লোক’ আমরা দল করি। ঠ্যাঙ ভেঙে হাতে ধরিয়ে দিব। আওয়ামী লীগের জোতের মালিক আমরা। আমরা এখানে আওয়ামী লীগের জন্ম দিয়েছি। কেউ যদি আওয়ামী লীগকে বিক্রি করে জুলুম করেন, কায়েমী স্বার্থ প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেন তাহলে কিন্তু আমরা দাঁড়িয়ে যাবো রাজপথে। আমরা কিন্তু আঙুল চুষবো না। দাত ভাঙা জবাব দিব।

তিনি আরও বলেন, আমরা কয়েক বছর ধরে দেখছি হাইব্রিডদের আনাগোনা। আপনি এমপি সাহেব না কার লোক সেটা দেখবো না। আমরা দেখবো আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে ছিলেন কি না সেটা দেখবো। এমপির নাম ভাঙিয়ে স্বাধীনতা বিরোধী বিএনপি-জামায়াত সন্ত্রাসীদের নিয়ে এই এলাকায় নিরীহ মানুষের উপর জুলুম অত্যাচার সহ যা খুশি তা করে জননেত্রী শেখ হাসিনার দুর্নাম করে বেড়াবেন তা এই এলাকার প্রকৃত নেতারা মেনে নিবেননা। নব্য আওয়ামী লীগারদের এসব অপকর্মের জবাব কঠোরভাবে দেওয়া হবে।

পলাশ বলেন, বিএনপির সময়ে আপনারা সেন্টু চেয়ারম্যান (কুতুবপুরের চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা) এর হাত পা টিপতে টিপতে ব্যস্ত ছিলেন। বিএনপি ক্ষমতা গেছে এখন আওয়ামী লীগে দৌড় পারেন। ওই একটা বালাখানা আছে। বালাখানায় দৌড়া আর এমপি সাহেব জিন্দাবাদ। কাল যদি আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না থাকে তাহলে আপনাদের খুঁজে পাওয়া যাবে না।

এদিকে গত ১৮ অক্টোবর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত চিঠিতে জাতীয় শ্রমিক লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সাংগঠনিক পদ পেয়ে কাউসার আহমেদ পলাশ একের পর এক কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে যাচ্ছেন।

যার ধারাবাহিকতায় গত ২০ অক্টোবর রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সরকারী বাসভবনে গিয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন কাউসার আহমেদ পলাশ। এসময় পলাশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ও প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান তাকে জাতীয় শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদে পদায়িত করায়। সেই সাথে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব সততা ও ন্যায় নিষ্ঠার সাথে পালনের প্রতিশ্রুতি দেন। জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও তাকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান এবং সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করার জন্য দোয়া করে দেন।

এরপর গত ২৩ অক্টেবর ধানমন্ডি ৩ নম্বরে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন কাউসার আহমেদ পলাশ। পরে নবনির্বাচিত কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ মন্ত্রীর সাথে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, সংগঠনকে অধিকতর গতিশীল করা সহ সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে মন্ত্রীর সাথে আলোচনা করেন।

আর এভাবেই দিন দিন সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জের আলোচিত শ্রমিক নেতা কাউসার আহমেদ পলাশ। বর্তমানে তিনি নারায়ণগঞ্জের অনেক নেতার প্রতিই কেয়ার ভাব দেখাচ্ছেন না।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin