হকার ইস্যুতে উত্তাল না.গঞ্জ: ‘বাধা আসলে প্রতিহত করবো’

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

পুনর্বাসন ছাড়া হকার উচ্ছেদ চলবে না’ এরকমই শীর্ষক ব্যানারে নারায়ণগঞ্জে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ হকার্স সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে এ আয়োজন করা শহরের চাষাড়াস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। বেলা ১১ টার দিকে শহীদ মিনারে অবস্থান করে কেন্দ্রীয় ও নারায়ণগঞ্জ জেলার হকার নেতৃবৃন্দরা সমাবেশ করে। পরবর্তীতে সেখান থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নগরীর ২ নং রেল গেইট হয়ে প্রেসক্লাবে গিয়ে সমাপ্ত হয়।

সমাবেশে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র’র কেন্দ্রীয় নেতা হাফিজুল ইসলাম বলেন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আমাদের অনুরোধ, আপনারাও আইন অনুযায়ী চলবেন। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীদের প্রতি আমাদের কোন ক্ষোভ নেই। কারণ তারা হুকুমের অনুসারী হুকুম পালন করতে গিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে হকারদের উচ্ছেদ করেন। যে সকল নেতারা উচুঁ গলায় বলে, আমি থাকবো না হলে হকাররা থাকবে তাদেরকে বলছি আপনারা চলে যান। বড় বড় হোটেল, রেস্টুরেন্টগুলো ফুটপাথসহ রাজপথ দখল করে বসে আছে। অথচ তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না, করছে কেবল গরীব হকারদের উপর। পুনর্বাসন ছাড়া হকার উচ্ছেদ সংবিধানে নেই। তাই প্রয়োজন হলে আইনীভাবে মোকাবেলা করে হকারদের কথা তুলে ধরা হবে।

তিনি আরো বলেন, প্রশাসনের লোকদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই আপনারা আমাদের হকার্স মার্কেটটি আছে সেটি পরিদর্শন করুন। ২ফুট আড়াই ফুট করে একেকটি দোকান। একজন মানুষ মৃত্যু বরণ করলে তাকেও কবরে ৫/৬ ফুট জায়গা দেওয়া হয়। আপনারা সেই ২ ফুট জায়গায় দোকান বিক্রি করেছেন। তাও হকারদের নয়, কাদের কাছে বিক্রি করেছেন আমরা জানিনা। আপনারা বলেন হকাররা বিক্রি করে চলে গেছে। কিন্তু সিটি কর্পোরেশনের সম্পত্তি কোনো ব্যাক্তি বিক্রি করার ক্ষমতা আইনে নেই।

এসময় হকার্স সংগ্রাম পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলার আহ্বায়ক আসাদুল ইসলাম আসাদ বলেন, একই বক্তব্য ৪ বছর ধরে বলে আসছি। আমরা হকারদের সমস্যা নিয়ে যত কথাই বলি না কেন। আমাদের কথা তাদের কানে পৌছাঁয় না। যে কথা গরিবের ক্ষেত্রে বাস্তবায়ন হয় না সে কথা সংবিধান থেকে মুছে ফেলা উচিত। তাই আমাদের দাবি আদায়ের জন্য আমাদের রাজপথে লড়াই সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। পাশাপাশি আইনি লড়াইও চালিয়ে যাব। আমাদের হকারদের রুটি রুজিতে যখন বাধা আসবে। আমরা তাৎক্ষণিক সেখানে প্রতিবাদ করবো এবং প্রতিবাদ বিক্ষোভ মিছিল করবো। আজকের কর্মসূচির বরাত দিয়ে বলতে চাই যদি ওনারা আমাদের ডাকে সাড়া না দেয়। আমাদের সমস্যার সমাধান না করে তাহলে ব্যবসা পরিচালনা কালে আমাদের বাধা আসলে আমরা প্রতিহত করবো। আমাদের পরবর্তী কর্মসূচি পর্যায়ক্রমে জানিয়ে দেয়া হবে।

মহানগর হকার্স লীগের সভাপতি আব্দুর রহিম মুন্সি বলেন, আমি জানি না কেন হকারদের কষ্ট দিয়ে সরকারের বদনাম করা হচ্ছে। আজকের সময়ে কেউ গরীবের জন্য কথা বললে সে দোষী হয়ে যায়। বঙ্গবন্ধু সড়কে যে হকাররা বসে তাদের পুনর্বাসন করা মেয়রের কাছে কোন ব্যাপার না। আমরা এত কষ্ট করে হকারি করে রোজগার করছি। কিন্তু আমাদের পরিবার তো কোনো দোষ করে নাই আমাদের বাচ্চাদের কি দোষ। আপনারা কি চান হকারদের সন্তানেরা হকারি করুক। আমি মেয়রকে এই প্রতিহিংসা বাদ দিয়ে হকারদের উন্নয়ন করার আহ্বান জানাই। এবং বলতে চাই আপনি হকারদের পুনর্বাসন করে তারপর তাদের উচ্ছেদ করুন। এছাড়া একজন হকারও উচ্ছেদ করবেন না।

হকার্স সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক আসাদুল ইসলাম আসাদের সভাপতিত্বে ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র জেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেনের সঞ্চালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির জেলা সভাপতিও ট্র্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র,কেন্দ্রীয় নেতা হাফিজুল ইসলাম, মহানগর হকার্স লীগের সভাপতি আব্দুর রহিম মুন্সি, হকার্স ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সেকান্দার হায়াত, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের জেলা সাধারণ সম্পাদক বিমল কান্তি দাস, সহকারী সাধারণ সম্পাদক দীলিপ কুমার দাস, বিপ্লবী শ্রমিক সংহতির আবু হাসান টিপু, শ্রমিক জাগরণের নেতা জাহাঙ্গীর আলম গোলকসহ আরও অনেকে।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin