সোনারগাঁ উপজেলা যুবলীগ সভাপতির বাসভবনে, হামলা–ভাঙচুর !!

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

রিসোর্টের একটি কক্ষে নারীসহ হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে ঘেরাওয়ের জেরে সোনারগাঁ উপজেলা যুবলীগের সভাপতির , বাসভবন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়েকরা হয়েছে।

শনিবার (৪ এপ্রিল) রাতে হেফাহতের ওই হেফাজত নেতার অনুসারীরা হামলা–ভাঙচুর চালান।

ছবিঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের অবরুদ্ধের খবর ছড়িয়ে পড়লে সন্ধ্যার পর কয়েকশ হেফাজত নেতার অনুসারী সোনারগাঁ উপজেলার রয়েল রিসোর্টটির সামনে এসে জড়ো হয়। এ সময় ওই রিসোর্টে ব্যাপক ভাংচুর চালায় হেফাজতে ইসলামের নেতাকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

পরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসগক অবরোধ, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়, সোনারগাঁ উপজেলা যুবলীগের সভাপতির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, বাসভবন ও ব্যক্তিগত গাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। এ সময় সোনারগাঁ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি বাড়িতে না থাকলেও তাঁর পরিবারের সদস্যরা ছিলেন। পরে বিক্ষুদ্ধ হেফাজতকর্মীরা পুনরায় রয়েল রিসোর্টে হামলা করতে গেলে পুলিশ ও র‍্যাব  সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষ হয়। এক পর্যায়ে পুলিশ ও র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান ফাঁকা গুলি ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

ছবিঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

এছাড়াও ওই নেতার শ্বশুর বাড়িতেও হামলা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এদিকে, কেন্দ্রের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহিদ বাদল, সোনারগাঁ আসনের সাবেক এমপি কায়সার হাসনাত ও আওয়ামী লীগের নেতা আবু জাফর চৌধুরী বিরুসহ আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা পরিদর্শন করে নিন্দা প্রকাশ করেছেন।

ছবিঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

এ ব্যাপারে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম নান্নু বলেন, ‘ভাঙচুরের ঘটনায় আইনানুক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে, সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, এখন পর্যন্ত আওয়ামী লীগের কারো কোন অভিযোগ হাতে পাইনি। পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ছবিঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin