সোনারগাঁয়ে মামুনের বৈঠক, অনুগামীদের নিয়ে এমপি খোকা সিলেটে

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও পৌরসভা নির্বাচন শুক্রবার বড় ধরনের চমক আসতে পারে এমন আগাম খবরে শত শত লোকজন নিয়ে সিলেট সফর করেছেন সেখানকার জাতীয় পার্টির এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা। ৬ নভেম্বর খোকার নেতৃত্বে ৪০টি বাসে করে কয়েক শ লোকজন সিলেট যান।

জানা গেছে, আগামী পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে প্রার্থী বাছাই নিয়ে পৌরবাসীর মতামত গ্রহণ করতে পৌরসভার প্রতিটি এলাকার মানুষকে দাওয়াত করেন শিল্পপতি সিআইপি ফেরদৌস ভূইয়া মামুন।

৬ নভেম্বর শুক্রবার বিকেলে পৌরসভার গোয়ালাদি এলাকায় সিআইপি মামুন ভূইয়ার বাড়িতে এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়। সেখানে তিনি উপস্থিতিদের উদ্দেশ্যে ছগির আহমেদকে আগামীতে মেয়র মনোনয়ন ও নির্বাচিত করার ব্যাপারে নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টার প্রতিশ্রুতি দেন।

এদিকে এমপি খোকা ও তার অনুগামীরা ইতোমধ্যে অর্ধশত বাস ঠিক করেন। শুক্রবার সকালেই রওনা দেন সিলেটের উদ্দেশ্যে। মাজার শরীফ জিয়ারত করে সেখানে ভুড়িভোজ শেষে আবারো ফিরে আসেন সোনারগাঁয়ে।

প্রসঙ্গত আসন্ন সোনারগাঁ পৌরসভা নির্বাচনে হঠাৎ করেই আলোচনায় চলে এসেছেন শিল্পপতি মামুন ভূইয়া। তিনি এবার নির্বাচনে সোনারগাঁয়ে কোন ‘প্রবাসী’ প্রার্থীকে ভোট না দিয়ে সোনারগাঁয়ের স্থানীয় কাউকে মনোনয়ন দেওয়ার দাবী তুলেছেন। ইতোমধ্যে তিনি দুই দফা বৈঠক করেছেন। আগামী সপ্তাহে আরো একটি বৈঠকের ডাক দিয়েছেন। তাঁর সেই ডাকে সাড়া দিয়ে ইতোমধ্যে সোনারগাঁও পৌরসভায় বিরাজ করছে ভিন্ন এক পরিস্থিতি। সেখানকার ভোটাররাও প্রার্থী নির্বাচনে নতুন করে ভাবতে শুরু করেছে।

সোনারগাঁয়ে এখনো তফসিল এখনও ঘোষণা না করা হলেও নির্বাচনী মাঠ গরম করে রেখেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। ইতোমধ্যে নাগরিক কমিটির প্রার্থী হিসেবে সেখানকার জাতীয় পার্টির এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার স্ত্রী ডালিয়া লিয়াকতের নাম ঘোষণা করেছেন বর্তমান মেয়র সাদেকুর রহমান। তিনি এও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি আগামীতে নির্বাচন করছেন না। এখানে আওয়ামী লীগ এখনো স্পষ্ট কিছু ঘোষণা দেয়নি। তাছাড়া জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের সম্প্রতি সোনারগাঁয়ে আসলেও সেখানেও তিনি স্পষ্ট ঘোষণা দিতে পারেনি।

সোনারগাঁয়ের আলোচিত ফারিয়া নিটটেক্সের মালিক সিআইপি ফেরদৌস ভূঁইয়া মামুন। তিনি এবার মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী ছগীর আহাম্মেদের জন্য। যদিও মামুন হলেন বর্তমান মেয়র সাদেকুর রহমানের চাচাতো ভাই।

মামুন ভূঁইয়া বলেন, আগামী পৌরসভা নির্বাচনে অনেকেই নির্বাচনের জন্য মাঠে নেমেছেন। আমি অনেক খোঁজ খবর নিয়ে ছগিরের পক্ষ নিয়েছি। তার অনেক বন্ধুরা বিভিন্ন দপ্তরে চাকরি করেন। ছগির মেয়র হলে তিনি এলাকার কাজ করাতে পারবেন। যদি আপনারা সবাই চান, সবার উপকার হয় তাহলে থাকবো নতুবা থাকবো না। আমরা পৌরবাসীর ভাল চাই, আমরা কোন রিটার্ন চাইনা। সেজন্য চিন্তা ভাবনা করলাম আমরা পৌরবাসীর ভালো কাজে থাকবো।

মামুন ভূঁইয়া বলেন, আমরা ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত থাকি। তারপরও আমরা মানুষের জন্য থাকবো। আল্লাহ বলেছেন আগে তুমি নামাজ পড়ো, তারপরে মানব সেবা করো। মরবো তো একদিন ঠিকি, যখনই মরি, মানব সেবা করে যদি পাই, যদি বেহেসতে যেতে পারি তাহলে সবাইকে নিয়েই গেলাম, সমস্যা নাই।

তিনি আরো বলেন, কিছুদিন আগে একজন জনপ্রতিনিধির লোক একটি হোটেলে বসে আমার সিআইপি নিয়ে কথা বলেন। আসলে তিনি জানেন না সিআইপি কি। এটা অর্জন করে নিতে হয়। কারো পায়ে ধরে পাওয়া যায় না।

মামুন বলেন, ‘সিআইপির বিষয়টি আমাদের বিকেএমইএ সভাপতি সেলিম ওসমানকে জানাবো। তাছাড়া নারায়ণগঞ্জের এমপি শামীম ওসমান আমাদের বটগাছ। ওনি সব সময়ে আমাদের ভালোবেসে কথা বলেন। আমি ওনাদের নিচেই আছি, ওনাদের তলাতেই আছি। আমি তাদের ছায়াতলেই আছি। এমন কোন ব্যক্তি নাই যে আমাদের নারায়ণগঞ্জে ছিড়ে ফেলবে কিন্তু এসবকে আমরা প্রশ্রয় দেই না।’

সূত্রঃ নিউজ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin