সাংবাদিক সবুজের ছেলের উপর হামলাকারীদের জামিন শুনানি আজ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফ উদ্দিন সবুজের বড়ছেলে আহমেদ অনন্ত শাহের উপর হামলার ঘটনায় গ্রেফতার তিন আসামির জামিন শুনানি আজ অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) নারায়ণগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে আসামিদের তোলা হয়।

আদালতে তিন আসামির জামিন আবেদন করেন তাদের আইনজীবী। আদালতে জামিন আবেদনের বিরোধীতা করেন রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি অ্যাড. রকিবউদ্দিন আহমেদ। বাদীপক্ষে আদালতে অ্যাড. মাহবুবুর রহমান মাসুম, অ্যাড. জিয়াউল ইসলাম কাজলসহ কয়েকজন আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন। আদালত জামিন শুনানির জন্য বুধবার (৬ এপ্রিল) নির্ধারণ করেন।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রকিবুজ্জামান জানান, হামলার ঘটনায় জড়িত অন্য আসামিদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। গ্রেফতার আসামিরা কয়েকজনের তথ্য পুলিশকে দিয়েছে। তাদেরও অতিদ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।

গত ৩ এপ্রিল রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাসায় ফেরার পথে কিশোর গ্যাংয়ের হামলায় আহমেদ অনন্ত শাহ্ (১৫) ছুরিকাহত হন। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার জামতলা এলাকায় কেন্দ্রীয় ঈদগাহের সামনে এই ঘটনা ঘটে। অনন্ত নগরীর আইডিয়াল স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র। হামলার ঘটনায় জড়িত তিনজনকে ঘটনার রাতেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতার তিনজনেরই বয়স অনুর্ধ্ব ১৮। তারা সকলেই ফতুল্লার জামতলা ও আল্লামা ইকবাল রোডের বাসিন্দা।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, রোববার রাতে মাসদাইর কবরস্থান জিয়ারত শেষে দুই বন্ধুর সাথে আল্লামা ইকবাল রোডের বাসায় ফেরার পথে জামতলায় ঈদগাহের সামনে হামলার শিকার হয় অনন্ত। এই সময় আসামিরা অনন্ত ও তার বন্ধুদের মারধর করে। পরে দুই বন্ধু ছুটে পালালেও অনন্তকে ঝাপটে ধরে ধারালো সুইচ গিয়ার চাকু দিয়ে আঘাত করে। এতে পিঠ ও হাতে গুরুতর জখম হয় সে। বাঁশ দিয়েও অনন্তকে পেটায় আসামিরা। খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

শরীফ উদ্দিন সবুজ জানান, তার ছেলে আনন্তের বন্ধু সিয়ামের সাথে আসামিদের ‘ছোট ভাই-বড় ভাই’ কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব ছিল। এই দ্বন্দ্বের জেরেই হামলা করা হয়েছে। হামলা আহত অনন্তের শরীরে ১৮টি সেলাই পড়েছে।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রকিবুজ্জামান জানান, এই ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা তিনজনেরই অনুর্ধ্ব ১৮ বছর বয়স। ঘটনার সাথে জড়িত বাকিদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এই ঘটনার খবর পেয়ে সোমবার সকালে সাংবাদিক শরীফ উদ্দিন সবুজের বাড়িতে যান নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। তিনি পরিবারের লোকজনের প্রতি সমবেদনা জানান। নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমানও সাংবাদিক সবুজের বাড়িতে গিয়ে এই ঘটনায় পুলিশ কঠোর ভূমিকা রাখবে বলে জানান। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে কিশোর গ্যাং সংস্কৃতি বন্ধ করতে হলে এর নেপথ্যের লোকজনকে আইনের আওতায় আনতে হবে বলে মন্তব্য করে স্ট্যাটাস দিয়েছেন সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পর্যায়ের লোকজন।

সূত্রঃ প্রেস নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin