সরকার যে শাসন কায়েম করেছে তা মুক্তিযুদ্ধের আকাঙ্ক্ষার বিপরীতঃ না.গঞ্জে সাকি

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

এখন চাকরি পেতে হলে ছাত্রলীগের সাবেক নেতা হতে হয় নতুবা আওয়ামী লীগ করতে হয়। এটা সমতা নয়। দেশের মধ্যে চুরি, দুর্নীতি লুটের বিরুদ্ধে কথা বলতে গেলে গোয়েন্দা সংস্থা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মাধ্যমে তুলে নিয়ে নির্যাতন করা হয়।

শুক্রবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এক সমাবেশে প্রধান বক্তা হিসেবে এ কথা বলেন জোনায়েদ সাকি। যিনি সংগঠনটির প্রধান সমন্বয়কারী। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে গণসংহতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা সমাবেশটির আয়োজন করে।

জোনায়েদ সাকি সে সময় আরও বলেন, বর্তমানে আওয়ামী লীগ সরকার যে শাসন কায়েম করেছে তা মুক্তিযুদ্ধের আকাংখার বিপরীত। জনগণের ন্যূনতম মর্যাদা নেই। আদালতও দখল করে রাখা হয়েছে। সমস্ত ক্ষমতা এখন প্রধানমন্ত্রীর হাতে। এই প্রধানমন্ত্রীর জায়গায় যেই প্রধানমন্ত্রীই বসুক না কেন, ক্ষমতার অপপ্রয়োগ তিনিও করবেন। তাহলে মুক্তি কোন পথে? এই রাষ্ট্রকে সংস্কার না করে একটা নির্বাচনও হবে না। ফলে এই সরকারের পতন আর রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক রূপান্তর; এই দুলে মিলে আজকে এক দফা তৈরি হয়েছে। এই এক দফা সংগ্রাম বাংলাদেশে তৈরি করতে হবে। এটাই হোক বাংলাদেশের ৫০ বছর পূর্তিতে নতুন শপথ।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ছাড়া যেন কেউ যুদ্ধ করেনি। তারা ছাড়া যেন এই মুক্তির সংগ্রামে আর কারও অবদান ছিল না। এই রকম একটা ইতিহাস তারা তৈরি করতে চায়। বর্তমান সময় নিয়ে আওয়ামী লীগ কথা বলে না, তারা ৭১ সালেই ঘুরপাক খায়। পরবর্তীকালের রাজনীতি দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ভূমিকা নির্ধারণ করা যায় না। ৫০ বছরে আওয়ামী লীগের রাজনীতি আর ৭১ এর ভূমিকা এক নয়।

গণসংহতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সমন্বয়কারী তরিকুল সুজন এর সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহ্বায়ক শিল্পী রফিউর রাব্বি, গণসংহতি আন্দোলন জেলা শাখার নির্বাহী সমন্বয়কারী অঞ্জন দাস, শিক্ষা ও রাজনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান রিচার্ড।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin