সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকা অফিসে হামলার ঘটনায় পারভীন ওসমানের দুঃখ প্রকাশ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়ণগঞ্জের মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী
হত্যাকাণ্ডের সংবাদ প্রকাশের জেরে দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকা অফিসে হামলা চালিয়ে ভাঙচুরের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের প্রয়াত এমপি নাসিম ওসমানের সহধর্মিনী পারভীন ওসমান।

গত ২৩ ফেব্রুয়ারি (বুধবার) সন্ধ্যায় শহরের চাষাঢ়ায় প্রেসিডেন্ট রােডের সিরাজ ম্যানশনের চতুর্থ তলায় দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকা অফিসে আসেন পারভীন ওসমান।

এসময় তিনি বলেন, যারাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে তারা অতি উৎসাহী হয়ে হামলা চালিয়েছেন। আমরা কাউকে নির্দেশ দেইনি। তবে পত্রিকার সম্পাদক জানান, মামলা অব্যাহত থাকবে। অপরাধীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লেখনি চলতে থাকবে।

উল্লেখ্য, ১২ ফেব্রুয়ারী শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় শহরের চাষাঢ়ায় ‘দৈনিক সময়ের নারায়াণগঞ্জ’ পত্রিকা অফিসে হামলা হয়।

এসময় অফিসের সিসিটিভি ক্যামেরা ভাঙচুর করে সন্ত্রাসীরা। এছাড়াও সম্পাদককে গুলি করে হত্যার
হুমকি দেয়। ওই ঘটনায় ১৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরাে ৪০ জনকে আসামী করা হয়। ইতােমধ্যে ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ১১ জনই রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করে তদন্তকারী সংস্থা ডিবি। তবে এখনাে হামলার প্রধান আসামীরা গ্রেপ্তার হয়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, পারভীন ওসমান এসে প্রথমেই অফিসের সাংবাদিকদের সঙ্গে পরিচিত হন। তিনি ওই দিনের ঘটনার সম্পর্কে শুনেন।প্রায় এক ঘণ্টা কথা বলার পর পৌনে ৮টার দিকে তিনি অফিস থেকে বের
হয়ে যান। এসময় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ ও
সাবেক সভাপতি আবু সাউদ মাসুদ, দৈনিক শীতলক্ষার প্রকাশক ও সম্পাদক আরিফ আলম দিপু, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসােসিয়েশন নারায়ণগঞ্জ
জেলার সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম সবুজ প্রমুখ।

পারভীন ওসমান বলেন, সংবাদটি নিয়ে আমরা নিজেরাই প্রতিবাদ বা পদক্ষেপ হয়তাে নিতাম। কিন্তু এভাবে অফিসে এসে হামলা করার বিষয়টি খুবই কষ্টদায়ক। এজন্যই আমি এসেছি দুঃখ প্রকাশ করতে। ওই সময়ে পারভীন ওসমানকে দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জের প্রকাশক ও সম্পাদক জাবেদ আহমেদ জুয়েল বলেন,“আপনি এসেছেন। আপনার অবস্থানগত দিক থেকে। এর আগেও প্রেসক্লাব, টিভি জার্নালিস্ট, আওয়ামীলীগ, বিএনপি সহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সম্মানী ব্যক্তিরা এসেছেন অফিসে। যেহেতু হামলার ঘটনা ঘটেছে সেহেতু হামলাকারীদের কোন ধরনের ছাড় দেওয়া যাবে না।জুয়েল জানান, পারভীন ওসমান জানিয়েছেন তিনি ও তার ছেলে আজমেরী ওসমান বিষয়টি জানতেন না। এজন্যই দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

তবে আমরা তাকে জানিয়েছি মামলা ও হামলাকারী নিয়ে আমাদের কোন আপস চলবে-না। তাদের শাস্তি হওয়া উচিত। এখনও পর্যন্ত পুলিশ মূল আসামিদের গ্রেপ্তার করেনি। অবিলম্বে আসামিদের গ্রেপ্তার করা হােক অপরাধীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লেখনি চলতে থাকবে।

সূত্রঃ সময়ের নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin