সঞ্চয়পত্রের নিন্মমুখী মুনাফার হার মধ্যবিত্ত-নিন্মবিত্তের জীবনকে আরো কঠিন করবে

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

সরকার জাতীয় সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার নতুন করে ঘোষনা করেছে। আগের থেকে মুনাফার হার কমিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ। নতুন ঘোষিত এই মুনাফার হার মধ্যবিত্ত এবং নিন্মবিত্ত পরিবারের জীবনকে আরো কঠিন করে তুলবে বলে মনে করেন দেশের অন্যতম নিউজ চ্যানেল ডিবিসি নিউজের সিনিয়র সাংবাদিক আদিত্য আরাফাত।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তিনি লিখেন, চাকরি-ব্যবসার তেমন সুযোগ নেই সমাজের এমন একটা অংশের মানুষ তার পুঁজি দিয়ে সঞ্চয়পত্র কিনেন। বিনিময়ে মাসিক বা ত্রৈমাসিক কিংবা নির্দিষ্ট মেয়াদে মুনাফা পান। এ মুনাফা ব্যাংকের চেয়ে সামান্য বেশি এবং বিনিয়োগও নিরাপদ তাই অনেকে নিজের শেষ পুঁজি দিয়ে সঞ্চয়পত্র কিনেন। সঞ্চয়পত্র সমাজের উচ্চবিত্তরা কিনেন না কারণ এখানে এখন কোটি টাকা বিনিয়োগ করা যায় না। ক্রয় সীমা আছে।

তিনি আরও লিখেন, দেশের মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেনীর একটা অংশই মূলত সঞ্চয়পত্র কিনেন। এর মুনাফা থেকে সংসার, ছেলে সন্তানের পড়ালেখার খরচ চালান। এমনও অনেক বয়স্ক মানুষ আছে যাদের চিকিৎসা খরচসহ ডাল-ভাতের ব্যবস্থা হয় মুনাফার টাকায়। কিছু পরিবার আছে, যাদের পরিবারের কর্তা মারা যাওয়ায় সম্পদ বিক্রি করে সঞ্চয়পত্র কিনেছেন সন্তানদের মুখে দু’মুঠো ভাত তুলে দেয়ার জন্য। একটু ভালো রাখার জন্য।

সঞ্চয়পত্রের উপর এমন নির্ভরশীল মানুষগুলোর এখন মাথায় হাত পড়েছে। এর মুনাফা আরও কমিয়ে দেয়া হয়েছে।এমনিতেই নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়েছে। এ অবস্থায় সঞ্চয়পত্রে নিন্মমুখী মুনাফায় কাঁচি মরার উপরে খরার খা।

সঞ্চয়পত্রের উপর নির্ভরশীল মানুষগুলো একটু ভালো থাকলে রাষ্ট্রের কি ক্ষতি! এ দেশে একটু ভালোভাবে বেঁচে থাকার অধিকারতো তাদেরও আছে। সঞ্চয়পত্রের উপর নির্ভরশীল মানুষগুলোর কাছে মুনাফায় কর্তন মানে রাষ্ট্রের এক নির্দয় আচরণ।

উল্লেখ্য, পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রে বর্তমানে মেয়াদ শেষে ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ মুনাফা পাওয়া যায়। নতুন নিয়মে যাদের এই সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ রয়েছে তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ হারে। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ থাকলে মুনাফার হার হবে সাড়ে ৯ শতাংশ।

এছাড়াও তিন মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক তিন বছর মেয়াদি সঞ্চয়পত্রে বর্তমানে মেয়াদ শেষে মুনাফার হার ১১ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ। সেটি এখন ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কমিয়ে করা হয়েছে ১০ শতাংশ। আর এই সঞ্চয়পত্রে যাদের বিনিয়োগ ৩০ লাখ টাকার বেশি তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ৯ শতাংশ হারে।

লেখকঃ আদিত্য আরাফাত,সিনিয়র রির্পোটার,ডিবিসি নিউজ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin