শ্রমিকদের মানসিক স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করবে ‘ওশ ইনিশিয়েটিভ প্রকল্প’

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে বিপর্যস্ত শ্রমিকদের মানসিক স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের উদ্যোগ নিয়েছে ওশ ইনিশিয়েটিভ প্রকল্প। এর আওতায় প্রথম পর্যায়ে পোশাক শিল্পে কর্মরত প্রায় দেড় হাজার শ্রমিক ও পরিবারকে বিনামূল্যে সাইকোলজিক্যাল ফাস্ট এইড(পিএফএ) বা প্রাথমিক মনস্তাত্ত্বিক চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হবে।


এ উপলক্ষ্যে ঢাকার মিরপুর বাংলাদেশ ওশি ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে ৯-১০ নভেম্বর দুইদিনব্যাপী প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন চিকিৎসা মনোবিজ্ঞানী ও সেন্টার ফর মেন্টাল হেলথ এন্ড কেয়ার,বাংলাদেশ (সিএমএইচসি-বি) এর পরিচালক ফারজানা সুলতানা নীলা। এতে ১৮ জন প্রশিক্ষক অংশ গ্রহণ করেন। তারা তৃণমূল পর্যায় ও গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে গিয়ে পোশাক শ্রমিকদের এই সেবা প্রদান করবেন।


এ উদ্যোগের উদ্দেশ্য প্রসঙ্গে প্রকল্প সমন্বয়কারী মো. মাসুদ পারভেজ বলেন, করোনা মহামারীর ফলে শ্রমিকরা কেবল অর্থনৈতিক দিক থেকেই বিপর্যস্ত হয় নি, এই মহামারী শ্রমিকদের মাঝে এক ধরণের আতঙ্ক, ভয় ও অনিশ্চয়তার সৃষ্টি করেছে। যা তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের উপর ভয়াবহ প্রভাব ফেলেছে।

দুই দিনের প্রশিক্ষণে মানসিক স্বাস্থ্যের গুরুত্ব, জরুরী পরিস্থিতিতে কর্মক্ষেত্র ও পরিবারে মানসিক স্বাস্থ্যের সুরক্ষা, সাইকলজিক্যাল ফাস্ট এইড(পিএফএ) প্রদানের নিয়ম-কানুন, মূলনীতি প্রভৃতি বিষয়ে আলোচনা করা হয়। এছাড়া যোগাযোগ দক্ষতা ও মানসিক স্বাস্থ্য প্রদানের ক্ষেত্রে সতর্কতা সমূহ নিয়ে আলোচনা করেন প্রকল্পের যোগাযোগ কর্মকর্তা রিয়াদ আরিফ।

সাইকোলজিক্যাল ফার্স্ট এইড(পিএফএ) হলো মূলত এক ধরণের প্রাথমিক মনস্তাত্ত্বিক চিকিৎসা। কোন দূর্যোগ বা মহামারীর পর তীব্র মানসিক কষ্টে থাকা মানুষদের এ সহায়তা প্রদান করা হয়।


নেতৃত্বে ওশ ইনিশিয়েটিভ প্রকল্পের এ কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে দেশের শীর্ষ ছয়টি সামাজিক ও শ্রমিক সংগঠন। যার নেতৃত্বে রয়েছে বাংলাদেশ অক্যুপেশনাল হেলথ, সেইফটি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট ফাঊন্ডেশন (ওশি) সহ নারীপক্ষ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র , বিলস, বিসিডব্লিউএস ও আইবিসি।
মানসিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের পাশাপাশি পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধেও কাজ করবে এ কর্মসূচী।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin