রোজায় বাড়বে না চালের দাম

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

রমজান মাস সামনে রেখে চালের দাম বাড়বে না বলে আশ্বস্ত করেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। বুধবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে এ কথা জানান খাদ্যসচিব নাজমানারা খানুম ।

এসময় তিনি আরো বলেন, অস্বাভাবিক হারে চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় দেশে চিকন চালের দাম বেড়েছে। তবে মোটা চালের দাম বাড়েনি। একইসঙ্গে জনস্বার্থে বা ভোক্তাদের খুশি করতে যদি প্রয়োজন হয় তাহলে সরকার সরু চালও আমদানি করবে বলেও জানান তিনি।

মাঠ থেকে শতভাগ আমন ধান উঠে গেছে। চালের সরকারি মজুদও যথেষ্ট। হিসেব অনুযায়ী, সরকারের গুদামে বর্তমানে মোট ১৭ লাখ ১৩ হাজার মেট্রিকটন চাল মজুত রয়েছে। তারপরও বাজারে কমছে না চালের দাম।

টিসিবির তথ্য বলছে, বর্তমানে সরু চাল বিক্রি হচ্ছে ৬০-৬৮ টাকা কেজি এবং মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৫-৫০ টাকায়। আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে এই দুই ধরণের চালেই দাম বেড়েছে সোয়া ৩ ভাগ।

খাদ্য সচিব বলেন, আমাদের অনেক রাইস মিল হয়ে গেছে। আমাদের উৎপাদনও বেশি রাইস মিল বেশি। এখন একজন দরিদ্র ভোক্তার ঘরেও পাঁচ কেজি চাল থাকে। এছাড়া কৃষক ও মিলারদের কাছেও ধান চাল রয়েছে।

আমাদের গুদামেও পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। উৎপাদনও ব্রেকইভেন পর্যায়ে। আমাদের উদ্বৃত্ত উৎপাদনগুলো যদি কৃষকের ঘরে ও মিলারদের কাছে থাকে তাহলে বাজারে কোথা থেকে আসবে। এজন্য ধানের দাম বেশি। ধানের দাম বেশি বিধায় চালের দাম বেশি।

সচিবালয়ে সাংবাদিকদের খাদ্যসচিব জানান, বর্তমানে দেশে চিকন চালের ভোক্তা বেড়েছে কয়েক গুণ। চাহিদা অনুযায়ী এই ধরণের চালের উৎপাদন কম। ফলে চিকন চালের দাম বাড়তি বলে মনে করছেন তিনি। তবে মোটা চালের দাম তেমন বাড়েনি।

আসন্ন রমজানে চাল ও সবজির দাম সর্বকালের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে বলে বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন এ বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে খাদ্যসচিব বলেন, রমজান উপলক্ষে আমি নিশ্চয়তা দিতে পারি যে চালের দাম বাড়বে না। কারণ আমার খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি মার্চ মাস থেকে শুরু হয়েছে যাবে। ৫০ লাখ পরিবার ৩০ কেজি করে চাল পাবে।

চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে আমদানি বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। অনুমতি পেলেই শুরু হবে আমদানি। ফলে রমজানে চালের দাম বাড়বে না বলেও আশ্বস্ত করেন খাদ্যসচিব।

এদিকে, মার্চ মাস থেকে শুরু হচ্ছে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি। । গত বছর সরকার ৩৫ লাখ পরিবারকে আড়াই হাজার টাকা করে দিয়েছিল সেটা এবছর এক কোটি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হবে। সরকার চাচ্ছে নিম্ন আয় বা দরিদ্রদের কোনোভাবে যাতে সমস্যা না হয়। এই বছর ৩০ কেজি করে চাল পাবে ৫০ লাখ পরিবার।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin