রূপগঞ্জে বিদেশে নেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে গার্মেন্টস কর্মীকে গণধর্ষন

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

বিদেশে নেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে রুপগঞ্জের এক গার্মেন্টস কর্মীকে গণধর্ষনের ঘটনা ঘটেছে।

গতকাল মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) রাতে ভূক্তভোগী গার্মেন্টস কর্মী বাদী হয়ে আদম বেপারী হাজী রহিম বাদশাসহ অজ্ঞাত নামা আরো এক ধর্ষককে আসামী করে বন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে এ মামলা দায়ের করেন।

ঘটনার বিবরনে জানা যায়, বরগুনা সদর থানার ৩নং ওয়ার্ডস্থ পূর্ব গদিপিঠা এলাকার ১৮ বছরের তরুনী নারায়ণগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ থানার বরপা শান্তিনগর এলাকায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে বরপা ডিজনি সুয়েটার র্গামেন্টসে দীর্ঘ দিন ধরে সেলাই কাজ করে আসছে। পারিবারিক ও অভাব অনটনের কারনে গার্মেন্টস কর্মী তরুনী বিদেশ যাওয়ার জন্য ইচ্ছা পোষন করলে ওই সময় তারেই আরেক সহকর্মীর মাধ্যমে বন্দর থানার বারপাড়াস্থ শাঁসনেরবাগ এলাকার মৃত আম্বি মেম্বারের ছেলে আদম বেপারী হাজী রহিম বাদশার সাথে পরিচয় হয়। ওই পরিচয় সূত্র ধরে লম্পট আদম বেপারী হাজী রহিম বাদশা গত ১৩ মার্চ রোববার বিকেলে বিদেশ নেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ৩০ হাজার টাকা নিয়ে তার বাড়িতে আসতে বলে। ভূক্তভোগী গার্মেন্টস কর্মী তরুনী আদম বেপারী কথা মতে গত ১৪ মার্চ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় তার নিজবাড়ী বারপাড়াস্থ শাসনেরবাগ এলাকায় আসে। ওই সময় ওই গামেন্টস কর্মী ও আদম বেপারী সাথে কথা বিনিময় হওয়ার সময় হঠাৎ এক অজ্ঞাত নামা ব্যাক্তি আদম বেপারী বাড়িতে এসে হাজির হয়। বিদেশ নেওয়ার বিষয়ে কথা বলার সময় অজ্ঞাত নামা ব্যাক্তি ওই গামেন্টর্স কর্মী কুপ্রস্তাব দেয়। কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় অজ্ঞাত নামা লম্পট ব্যাক্তি ও লম্পট আদম বেপারী হাজী রহিম বাদশা ওই গামেন্টর্স কর্মীকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক ধর্ষন করে তার সাথে থাকা ৩০ হাজার টাকার মধ্যে ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে ঘর থেকে বের করে দেয়। এ ঘটনায় ভূক্তভোগী গামেন্টর্স কর্মী বাদী হয়ে বন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে ডাক্তারি পরিক্ষা শেষে বুধবার দুপুরে ২২ ধারায় আদালতে প্রেরণ করেছে।

এ ব্যাপারে বন্দর থানার অফিসার ইনর্চাজ দীপক চন্দ্র সাহা জানান, গনধর্ষেন ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা ধর্ষনের মামলার আসামীদের গ্রেপ্তারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান অব্যহত রেখেছে। ভিকটিমকে ডাক্তারী পরিক্ষার পর ২২ ধারায় আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin