মেজর সিনহা হত্যা: কক্সবাজার এপিবিএনের তিন পুলিশ গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

বাংলাদেশে পুলিশের গুলিতে নিহত সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোঃ রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের তিনজন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সম্পৃক্ততা পাওয়ায় সোমবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করার প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ।

মঙ্গলবার তাদের আদালতে হাজির করে রিমান্ড আবেদন করে র‍্যাব। আদালত তিন এপিবিএন সদস্যকে সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।

মেজর (অব) সিনহা হত্যাকাণ্ডের মামলায় এ নিয়ে দশ পুলিশ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হলো।

এপিবিএন সদস্যদের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ

র‍্যাবের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ওই চেকপোস্টটি এপিবিএন পরিচালনা করছিল। অভিযুক্ত সদস্যরা সেই সময় সেখানে দায়িত্ব পালন করছিলেন। মেজর (অব) সিনহার গাড়িটিও এই সদস্যরা থামিয়েছিলেন।

মামলার তদন্তে ঘটনার সময় এপিবিএনের এই সদস্যদের সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়। হত্যাকাণ্ডের আগে এবং পরে তারা লিয়াকতসহ অন্য অভিযুক্ত সদস্যদের সহায়তা করেছিলেন বলে তদন্তে পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের কর্মকর্তারা।

বাহারছড়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ লিয়াকতের গুলিতে তিনি নিহত হলেও এই চেকপোস্টটি পরিচালনা করছিল এপিবিএন।

গ্রেপ্তার করা তিনজনের একজন এপিবিএনের সহকারী উপপরিদর্শক এবং অন্য দুজন কনস্টেবল। ঘটনার দিন এই তিনজনই এপিবিএনের চেকপোস্টে দায়িত্ব পালন করেছেন।

র‍্যাব জানিয়েছে, এই কারণে সোমবার এপিবিএনকে চিঠি দিয়ে তিন পুলিশ সদস্যকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন র‍্যাবের তদন্তকারী কর্মকর্তা। ঘটনায় তাদের জড়িত থাকার তথ্যপ্রমাণ পাওয়ার পর তাদের হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

এ নিয়ে দশ পুলিশ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হলো।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin