মুসল্লি সেজে নামাজের পর ইমাম গ্রেপ্তার

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

ময়মনসিংহে তিন মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি আল আমীন ওরফে রায়হানকে (৪৫) কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। গতকাল শনিবার (২ এপ্রিল) বিকেলে আল আমীন ওরফে রায়হানকে চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তোলা হলে বিচারক দেওয়ান মনিরুজ্জামান তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আল আমীন ওরফে রায়হান জেলার গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানা এলাকার টাঙ্গাব ইউনিয়নের রৌহা গ্রামের আবদুল মজিদ ওরফে মোতালেবের ছেলে। চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের কোর্ট ইন্সপেক্টর প্রসুন কান্তি দাস সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আল আমীন ২০১৮ ও ২০২০ সালের তিনটি চেক জালিয়াতি মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি। বিকেলে পাগলা থানার পুলিশ তাকে আদালতে পাঠালে বিচারক কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গত শুক্রবার (১ এপ্রিল) দুপুরে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেন পাগলা থানার উপপরিদর্শক মো. জামাল হোসেন।

উপপরিদর্শক মো. জামাল হোসেন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আল আমীন ওরফে রায়হান একজন প্রতারক। তার বিরুদ্ধে জেলার বিভিন্ন থানায় আরও প্রতারণার মামলা রয়েছে। গত ৫ বছর ধরে তিনি পলাতক। পলাতক থাকা অবস্থায় ২০১৮ ও ২০২০ সালের তিনটি চেক জালিয়াতি মামলায় আদালত তাকে সাজা দেন।

সম্প্রতি তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হলে তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হয়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর জানতে পারি, আল আমীন সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামে বসবাস করছেন। এমন খবর পেয়ে গত শুক্রবার বাহাদুরপুর গ্রামের শরাফত জামে মসজিদে মুসল্লি সেজে নামাজ পড়ার পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, গ্রেপ্তার আল আমিন ওরফে রায়হান প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানান তিনি প্রায় ৫ বছর পলাতক থেকে বাহাদুরপুর গ্রামের একটি মাদরাসায় শিক্ষকতা ও শরাফত জামে মসজিদে ইমামের দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin