মাসদাইরে হাত পা বেধেঁ কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ

শেয়ার করুণ

ফতুল্লায় এক কিশেরীকে হাত পা বেঁধে ধর্ষণের অভিযোগে সৎ বাবাকে আটক করেছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) রাতে ফতুল্লার মাসদাইর এলাকাতে ঘটনাটি ঘটেছে। পরে জরুরী সেবা ৯৯৯-এ ফোন পেয়ে অভিযুক্ত ধর্ষক সৎ বাবা মো. জাবেদ আলী ওরফে শফিক বাবুর্চিকে (৫৫) আটক করে থানায় নিয়ে আসে। আটককৃত জাবেদ আলী ওরফে শফিক বাবুর্চি ময়মনসিংহ জেলার ফুলবাড়িয়া থানার বাকতা গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দিনের পুত্র।

ধর্ষিতা কিশোরী জানায়, গত তিন বছর পূর্বে তার বাবা বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা যায়। তার বাবা মারা গেলে গত এক বছর পূর্বে তার মা জাবেদ আলী ওরফে শফিক বাবুর্চিকে বিয়ে করে। বিয়ের পর থেকে সে তার মা এবং সৎ বাবার সাথেই মাসদাইরে একটি রুম নিয়ে ভাড়ায় বসবাস করে আসছিলেন। দুই সপ্তাহ পূর্বে তার সৎ বাবা তার হাত পা বেধে মুখ চেপে তাকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি সে তার মাকে জানালে তার তা আমলে না নিয়ে তাকে মিথ্যেবাদী বলে আখ্যায়িত করে। পরবর্তীতে বুধবার ২৩জুন মধ্যরাতে ঘুমন্তবস্থায় তার হাত-পা বেঁধে দ্বিতীয় দফা`য় তাকে ধর্ষণ করে। সে সময় সে ঘুম থেকে জেগে উঠলে ধর্ষণের বিষয়টি আচ করতে পেরে চিৎকার করতে চাইলে তার মুখ চেপে ধরে তাকে ধর্ষণ করে। এ বিষটি তার মাকে সকালে জানিয়ে সে তার নিজ কর্মস্থলে চলে যায়। সেখানে গিয়ে সে তার হোসিয়ারী মালিককে জানালে তার মালিক বিষয়টি বাড়ীর মালিক কে জানায়। পরে বাড়ীর মালিক জরুরী সেবা ৯৯৯ এ ফোন করে বিষয়টি জানায়।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রকিবুজ্জামান জানান, জরুরী সেবা ৯৯৯ এ ফোন পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়ে ধর্ষিতা কিশোরীর সৎ বাবাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষিতা কিশোরীর সৎ বাবা জাবেদ আলী ওরফে শফিক বাবুর্চি ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। তার বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুণ