মানসিক ভারসাম্যহীন কবির পাশে টিম খোরশেদ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

করোনায় আক্রান্ত মৃতদেহ গোসল, দাফন এবং ফ্রি অক্সিজেন সেবা দিয়ে দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও প্রশংসিত হয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের দল টিম খোরশেদ। এবার কোন দাফন কিংবা গোসল নয়, রাস্তার ধারে পড়ে থাকা মানসিক ভারসাম্যহীন এক কবির চিকিৎসার বন্দোবস্ত করে আলোচনায় এসেছে তার টিম।

নারায়নগঞ্জের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে কবি হিসেবে পরিচিত মুখ ৪২ থেকে ৪৫ বছর বয়সী যুবক। অভিজাত পরিবারের পিতা মাতার একমাত্র সন্তান, মা মারা গেছেন অনেক আগে। পিতা ও পুত্রের সংসার। দেওভোগ বাংলাবাজারে নিজেদের বাড়ী ভাড়া দিয়ে গলাচিপায় ভাড়া বাসায় পিতা-পুত্রের সংসার। অবসর প্রাপ্ত সরকারী কর্মকর্তা বাবার ছেলে সারাদিন সাহিত্য চর্চায় মগ্ন। ২/৩ টি কবিতার বইও প্রকাশিত হয়েছে এই কবির ।বাংলাদেশে ও পশ্চিমবংগের কবি ও কবিতা বিষয়ক কয়েকটি সংগঠনের সাথেও সম্পৃক্ত এই কবি।

এলাকাবাসীর ভাষ্যমতে, বেশ ভালোই চলছিল পিতা-পুত্রের সংসার। গত ১৫ দিন আগে বাবা অসুস্থ হয়ে পরলে ছেলে বাবাকে নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করে দিয়ে গলাচিপায় ফিরে এসে অস্বাভাবিক আচরন শুরু করেন।পোষাক খুলে ফেলে গলাচিপা মসজিদের আশেপাশে রাস্তায় শুয়ে থাকা শুরু করে।অনেক ভাবে তাকে প্রশ্ন করেও জানা যায়নি সে তার বাবাকে কোন হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছে।বা তার বাবার বর্তমান অবস্থান কি? খোদ কাউন্সিলর খোরশেদও তার সাথে কথা বলার অনেক চেষ্টা করেও কোন তথ্য জানতে পারেননি।

গত ১৫ দিনে তার বাবার এক পরিচিতজন ও কয়েক বন্ধু এগিয়ে এলেও তাকে পোষাক পরাতে, ঘরে ফেরাতে কিংবা খাওয়াতে সক্ষম হয়নি। ছেলেটার এমন অবস্থা দেখে গলাচিপা জামে মসজিদের মুসুল্লিরা ও কয়েক বন্ধু তার চিকিৎসার জন্য প্রায় ১৫ হাজার টাকা সংগ্রহ করে। এলাকাবাসীর আহবানে রাস্তা থেকে জোর করে তুলে এনে টিম খোরশেদ এর স্বেচ্ছাসেবকরা তাকে গোসল করিয়ে পোশাক পরিয়ে তাকে এম্বুলেন্সে করে শেরে বাংলা নগর মানসিক স্বাস্থ্য হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিন্তু এনআইডি কার্ড ও বৈধ অভিবাবক না থাকায় তাকে ভর্তি নেয়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।পরে পাশেই একটি প্রাইভেট মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। তার বাবার পরিচিত আমির হোসেন নিয়মিত এই কবির দেখাশোনা করবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন টিম খোরশেদকে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin