বেহেশতের ডিএনডি এখন অভিশাপঃ শামীম ওসমান

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

শামীম ওসমান বলেন, যখন ডিএনডি তৈরি করা হয়েছিল তখন ছিল বেহেশতের টুকরো এখন তা অভিশাপ। ফতুল্লার লালপুর যা অভিশপ্ত এলাকা হয়ে গেছে। জায়গাটা হল নিচু এবং পানি বের হওয়ার যে রাস্তাগুলো আছে সেগুলো উচু।

রোববার (৪ জুলাই) বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত জলাবদ্ধতা নিরসন বিষয়ক সভার শেষ দিকে এ কথা বলেন শামীম ওসমান।

তিনি আরো বলেন, নিচু জায়গা থেকে তো পানি আর উচু জায়গায় যেতে পারবে না। লিংক রোডের কাজের জন্য প্রায় আট কিলোমিটার রাস্তায় আমরা বালু ভরাট করছি। ওই আট কিলোমিটার রাস্তায় ডিএনডির যে খালগুলো তাদের কোন সংযোগ আছে কী না আমরা তা জানি না। কুতুবপুরে ওয়াসার পাশে আমাদের একটা রাস্তা আছে। আগে সেই এলাকায় প্রতি বর্ষায় ওয়াসা দশটি করে অস্থায়ী পাম্প বসাতো। এখন ঢাকা সিটি করপোরেশন ওয়াসার দায়িত্ব নিয়েছে। ফলে সেই পাম্পটা এখন চলছে না। তাদের সাথে আমার কথা হয়েছে। আশাকরি তারা সেই পাম্পগুলো চালু করে দেবেন।

এছাড়া তিনি বলেন, আমার প্রশ্ন গতবছর বৃষ্টিতে তো এমন বাজে অবস্থা হয়নি। এবার এমন এত বাজে অবস্থা। সিটি করপোরেশন এলাকার পানিটা গোরস্থানের দিক দিয়ে এসে ফতুল্লা গাবতলী হয়ে বেরিয়ে যাচ্ছে। সেটা যেখান দিয়ে বের হওয়ার কথা সেই জায়গাটা আটকে যাচ্ছে এবং এইসব এলাকার মানুষ পানিতে ভাসছে। সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকাতে আমি কোন ড্রেন করতে পারছি না। কারণ সেটা সিটি করপোরেশনের।

দুই বছর আগে জালকুড়িতে সিটি করপোরেশনকে ডাম্পিং করার জন্য জায়গা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যেন সেখানে ময়লা ফেলে তা দিয়ে ইলেক্ট্রিসিটি উৎপাদন করা যায়। জালকুড়ির মানুষের চরম আপত্তির পরেও জেলা প্রশাসন ওই জায়গা বরাদ্দ দেন। আজ পর্যন্ত সেই কাজের কোন অগ্রগতি নেই। ময়লাটা ফালানো হচ্ছে লিংক রোডের পাশে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin