বাবা দিবসে অটোচালক বাবার ব্যতিক্রমী পিতৃস্নেহ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

আজ বিশ্ব বাবা দিবস। সারাবিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও পালিত হচ্ছে এই দিবস। বাবা দিবস এদেশের সবার কাছে এখনও সেইভাবে পৌছায়নি। সমাজের শিক্ষিত ধনী আর মধ্যবিত্তের মাঝে এই দিন উদযাপন চললেও গরীব-শ্রমজীবি মানুষের কাছে এই দিন কেবলই বিলাসিতা।

বিখ্যাত কথা সাহিত্যক হুমায়ুন আহমেদ একবার বলেছিলেন, পৃথিবীতে খারাপ মানুষ পাওয়া গেলেও একজন খারাপ বাবা পাওয়া যাবেনা। বাবারা আসলেই ভিন্নরকম। হাসিমুখে সন্তানের জন্য সব ত্যাগ করতে দ্বিধা করেন না।

এরকমই এক বাবার ঘটনা ঘুরে ফিরছে নারায়ণগঞ্জের অনলাইন দুনিয়ায়। ব্যক্তিগত কাজ শেষ করে চাষাড়া থেকে পঞ্চবটী ফিরছিলাম। বৃষ্টির কারনে রাস্তায় জ্যাম,রিক্সা পাচ্ছিলাম না। একটা অটো পেলাম।পেছনে চারজন বসেছে,সামনে ড্রাইভার সহ দুইজন বসা। আমিও ড্রাইভারের সাথে বসলাম।কিছুদূর যাওয়ার পরেই ড্রাইভার আরেকজন যাত্রি তুলে তার পাশে বসালেন।আর পাশে বসা বাচ্চাকে কোল নিয়েই অটো চালাচ্ছেন।
অবাক হয়ে জিজ্ঞাস করলাম,এই বাচ্চা পেসেঞ্জার না?উনি বললেন এটা ওনার ছেলে।
ছেলের মা অন্য কোন পুরুষের হাত ধরে চলে গেছে। বাচ্চার স্কুল বন্ধ,বাসায় একা রেখে আসলে সারাদিন চিন্তায় থাকে,তাই প্রতিদিন এভাবেই বাচ্চা সাথে নিয়েই অটো চালায় উনি।
শ্রদ্ধায় মাথা নত হয়ে গেলো।
বাচ্চাটা খুব ভদ্র,ক্লাস ফাইভে পড়ে। অটো থেকে নেমে ভাড়া মিটিয়ে দিয়ে বাচ্চার হাতে কিছু টাকা দিয়ে বললাম তোমার পছন্দ মত কিছু কিনে নিও কিন্তু কিছুতেই সে টাকা নিবে না,চোখে মুখে একটা লজ্জার ছাপ,যা এই বয়সি বাচ্চাদের বেলায় দেখা যায়না। বাচ্চার বাবা কে অনুরোধ করলাম,এর পরে বাচ্চাটা টাকাটা নিলো।

আজকের বাবা দিবসে আমার দেখা সেরা বাবা উনি।
পৃথিবীর সকল বাবাই সেরা। কোন দিবস লাগেনা বাবাদের সম্মানিত করতে। সন্তানের কাছে প্রতিটি দিন বাবার জন্য। ভালো থাকুক সব বাবারা।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin