বন্দর প্রেসক্লাব থেকে কাজিমকে স্থায়ী বহিষ্কার

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

দুই তৃতীয়াংশ সদস্যরের অনাস্থা প্রস্তাবের কারণে সাধারণ সম্পাদক ও দুই বছরের সশ্রম সাজার কথা গোপন করায় বন্দর প্রেসক্লাবের স্থায়ী সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার হলেন কাজিম আহমেদ।

২ মে (শনিবার) বিকালে বন্দর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে কার্যনির্বাহী পরিষদের সভায় উপস্থিত ১২ জন সদস্য সর্বসম্মতিতে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ, ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত কাজিমউদ্দিন নিজের মামলার বিষয়টি ২০১১ সাল থেকে গোপন রেখে আসছিলেন ও পুনরায় সদস্য হয়েছেন। ২০০৭ সালে বন্দর থানার মামলায় গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘদিন জেলহাজতে ছিলেন। সেই সময় তাকে বন্দর প্রেসক্লাব থেকে বহিস্কার করা হয়। জামিন নিয়ে বিদেশ চলে যায়। দেশে এসে ২০১১ সালে বন্দর প্রেসক্লাবে সদস্য হওয়ার জন্য পুনরায় আবেদন করেন এবং প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষকে আপনি মামলার দায় হতে খালাশ পেয়েছেন মর্মে অবহিত করেন। ২০১৩ সালে উল্লখিত মামলায় বন্দর থানার গ্রেফতারি পরোয়ানা আসে এবং ০৪/৪/২০২১ ইং তারিখে একটি গ্রেফতারি পরোয়ানা বন্দর থানায় তামিলের জন্য এসেছে।

সবশেষ ১৯-৪-২০২১ ইং তারিখে কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাবে উল্লেখ করেন মহামান্য হাইকোর্ট গত ৩১-১-২০১৮ ইং তারিখে তাকে খালাশ দিয়াছেন কিন্তু এর স্বপক্ষে কোন কাগজ বা আদালতের সার্টিফাইড কপি প্রদান করেননি। বন্দর প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষকে ২০১১ সালে ও ২০১৩ সালে এইরুপ ঘটনায় নিজেকে খালাশ প্রাপ্ত বলে আসছেন।

বন্দর প্রেসক্লাবের মোট সদস্যদের দুই-তৃতীয়াংশ সদস্য স্বাক্ষরকৃত অনাস্থা প্রস্তাবের আবেদন ১৭-৪-২০২১ ইং তারিখে কার্যনিবাহী পরিষদের জরুরী সভায় সর্বসম্মতিতে কাজিমকে সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।

কাজিম সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তি হয়েও ২০১১ সাল থেকে সাজার কথা গোপন করায় বন্দর প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী অনুচ্ছেদ ১১ (ক) ধারার বিধান বন্দর প্রেসক্লাবের স্থায়ী সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

সূত্র: নিউজ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin