বন্দরে সন্তানকে দেখতে না দেয়ায় অভিমানে মায়ের আত্মহত্যা

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

বন্দরে সন্তানকে দেখতে না দেয়ায় মা গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। সোমবার (৭ জুন) উপজেলার মুছাপুর এলাকায় দুপুরে নিজ ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। খবর পেয়ে বন্দর পুলিশ বিকালে নিহতের লাশ উদ্ধার করে। নিহতের নাম সুমাইয়া আক্তার (২১)।


সংশ্লীষ্ট সূত্রে জানা যায়, প্রবাসী আজিজ মুছাপুর এলাকার মোশারফ মিয়ার কন্যা সুমাইয়াকে দত্তক এনে অনেক আদর যত্নে লালন পালন করে বিয়ে দেন। কিন্তু স্বামীর নির্যাতনে অতিষ্ট ছিলেন সুমাইয়া। পারিবারিক কলহের কারণে সুমাইয়াকে তালাক দেয় স্বামী আলমগীর।

বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দিপক চন্দ্র কুমার জানান, নিহত সুমাইয়া মুছাপুর এলাকার প্রবাসী আজিজ মিয়ার পালিত মেয়ে। ফতুল্লার পুলিশ লাইন এলাকার আলমগীরের সাথে বিয়ে হয় তার। তাদের দাম্পত্য জিবনে আশিফা নামে তাদের ২ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। প্রায় এক মাস আগে পারিবারিক কলহের কারণে সুমাইয়া ও আলমগীরের মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। ছাড়াছাড়ির পর তাদের কন্যা সন্তানটি বাবা আলমগীরের কাছেই থাকতো। রবিবার সুমাইয়া তার  সন্তানকে দেখতে গেলে, না দেখিয়ে ফিরিয়ে দেয়। পরে সুমাইয়া বাড়িতে এসে অভিমানে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম, তবে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin