বঙ্গবন্ধু বলেছে ব্যবসা করতে টাকা নয়, সময় লাগে: সেলিম ওসমান

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে সংবর্ধনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমানের উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা, যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারদের মাঝে এ সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। ১৬ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের মাঠ প্রাঙ্গনে এ আয়োজন করা হয়। আয়োজনের সার্বিক সহযোগীতায় ছিল নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাস ও নারায়ণগঞ্জ ক্লাব।


অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক(ডিসি) মো.জসিম উদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার(এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) নাহিদা বারিক, নারায়ণগঞ্জ জেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাসের সভাপতি খালেদ হায়দার কাজল, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহানসহ জেলার মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান বলেন, আমি মুক্তিযুদ্ধে যাওয়ায় ঘর থেকে বের করে দেয়া হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধে যোগদানের জন্য তখন কমান্ডের প্রয়োজন ছিল, যার কমান্ড দিত আমার বাবাসহ আরও অনেকে। আমার বাবার সামনে যখন আমি মৌখিক পরীক্ষা দিচ্ছিলাম তখন আমাকে বাবার নাম জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, তখন আমি বলেছিলাম আমার বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আমার বাবা খুব খুশি হয়েছিল সেদিন। তখন অনেকে বলেছিল ওরে আর ধরে রাখা যাবে না।

সেলিম ওসমান আরও বলেন, আমার পরিবারের দুঃসময়ে বঙ্গবন্ধু আমাকে ব্যবসা করতে বলেছিল। তখন আমি বলেছি টাকা পাবো কোথায়। বঙ্গবন্ধু বলেছিল, ব্যবসায়ীদের জন্য টাকার প্রয়োজন হয় না সময় লাগে। সময়কে ঠিকমতো কাজে লাগাতে পারলে, ভালো ব্যবসায়ী হওয়া যায়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক(ডিসি) মো.জসিম উদ্দিন বলেন, সকল বীরমুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে আমি আমার বাবাকে খুঁজে পাই। মুক্তিযোদ্ধাদের রক্ত বিন্দু যদি এই মাটিতে থাকে, এদেশে অপশক্তিরা আর কোন প্রশয় পাবে না, হুংকার দিবে না। ওরা এখন আর হুংকার দেয় না, ওরা খুব দুষ্টু। এখন ওরা রাতের আধাঁরে জাতির পিতার ভাস্কর্য ভেঙ্গেছে। আমি আমার কর্মকর্তাদের বলেছি, একটা জাতির পিতার ছবি একটা ভাস্কর্য ভাঙ্গলে হাজার হাজার ভাস্কর্য তৈরি হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম বলেন, যাদের জন্য আমার বাংলাদেশ পেয়েছি, যাদের জন্য আমরা সেবার করার সুযোগ পেয়েছি তারাই বীরমুক্তিযোদ্ধা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। আমরা যারা শহীদ পরিবারের সন্তান মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান, আমরা সেই চেতনায় বিশ্বাসী হয়ে আপনাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করবো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আছেন তিনি এখনও আপনাদের নিয়ে কাজ করে।

বীরমুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আপনাদের বাসস্থান করার সুযোগ করে দিচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নানা সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করেছেন। বঙ্গবন্ধু না হলে এই দেশ আমরা পেতাম না। আপনারা সকলে প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করবেন।

অনুষ্ঠান শেষে নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের অন্তভুক্ত বীরমুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin