ফতুল্লা থেকে নিখোঁজ, ৫২ দিন পর মুন্সিগঞ্জে সেপটিক ট্যাংকে লাশ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে নিখোঁজের ৫২ দিন পর যুবকের লাশ মুন্সিগঞ্জের একটি বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) সকালে মুন্সিগঞ্জের রামপাল গ্রামের সিকদার বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত যুবকের নাম রফিকুল ইসলাম রনি। সে ফতুল্লার লালপুরের মৃত কাজী জাহের উদ্দিনের পুত্র।

পুলিশ জানায়, নিহত যুবকের কললিস্টের সূত্র ধরে বুধবার সকালে ঢাকার বাড্ডা থেকে নিহতের দুসম্পর্কের খালা রুমা (৫১) ও তার বাড়ির গৃহপরিচারিকা আম্বিয়াকে (৩২) আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করে। পরে তাদের দেয়া তথ্যমতে গ্রেফতারকৃতের বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে নিহত রনির গলিত লাশ উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামী রুমা রামপাল গ্রামের সিকদার বাড়ির জসিম খন্দকারের স্ত্রী ও গৃহপরিচারিকা আম্বিয়া ফরিদপুরের বোয়ালমারির সামাদ মিয়ার মেয়ে।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন জানান, নিহত রনির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর কীভাবে মারা গেছে তা জানা যাবে। নিহত রনি ও গ্রেফতার রুমার মধ্যে পরকীয়া সম্পর্ক ছিল বলেও তিনি জানান। এ বিষয়ে মুন্সিগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২ নভেম্বর রাত সাড়ে নয়টায় ফতুল্লার লালপুর এলাকার বাসা থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হন রনি। এ বিষয়ে রনির ভাই আমিনুল ইসলাম জনি বাদী হয়ে ফতুল্লা থানায় একটি নিখোঁজের ডায়েরি করেন।

এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আরিফ তালুকদার বলেন, সাধারণ ডায়েরির (জিডি) তদন্ত করতে গিয়ে কললিস্টের সূত্র ধরে বুধবার সকালে ঢাকার বাড্ডা থেকে প্রথমে নিহত রনির দুসম্পর্কের খালা রুমাকে গ্রেফতার করে পরে তার স্বীকারোক্তি মতে তার বাসার গৃহপরিচারিকা আম্বিয়াকে আটক করে পুলিশ। তাদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক তাদের দেখানো মতে মুন্সিগঞ্জের রামপালের সিকদারবাড়ীস্থ রুমার বাড়ির সেপটি ট্যাংকের ভিতর থেকে নিহত রনির লাশ উদ্ধার করা হয়।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin