ফতুল্লায় গার্মেন্টস শ্রমিকের আত্মহত্যা

শেয়ার করুণ

ফতুল্লার লামাপাড়া থেকে সোহাগ (৩০) নামক এক গার্মেন্ট শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার রাত এগারোটার দিকে ফতুল্লার লামাপাড়াস্থ রুপসী গার্মেন্ট সংলগ্ন এমানউল্লাহ হাজীর বাড়ীর নীচতলা থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ।

নিহত সোহাগ চাদঁপুর জেলার মতলব থানার মৌটুপি বাগান বাড়ীর আবুল কালামের পুত্র। সে লামাপাড়াস্থ রুপসী গার্মেন্টসের শ্রমিক এবং একই এলাকার এমান উল্লাহ বাড়ীতে স্ত্রী কে নিয়ে ভাড়ায় বসবাস করে আসছিলো। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী ফাতেমা খাতুন বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, নিহত সোহাগের সাথে তার প্রথম স্ত্রীর সাথে চার বছর পূর্বে বিচ্ছেদ হলে ১৮ মাস পূর্বে বাদী কে বিয়ে করে। তারপর থেকে তারা বর্তমান ঠিকানার বাসায় বসবাস করে গার্মেন্টসে কাজ করে আসছিলো।

প্রতিদিনের মতো সোমবার সকালে তারা নিজ নিজ কর্মস্থলে চলে যায়। দুপুরে তার স্বামী বাসায় এসে খাওয়া-ধাওয়া করে আবার নিজ কর্মস্থলে চলে যায়। সন্ধ্যায় বাদী কে ফোন করে খোঁজ -খবর নেয়।

রাত আটটা দশ মিনিটে নিহত সোহাগ বাসায় ফিরে এসে ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্নহত্যা করে। রাত সাড়ে আটটার দিকে বাদী নিজ কর্মস্থল থেকে বাসায় ফিরে দরজা বন্ধ দেখে তা ধাক্কা দিলে দরজা খুলে গেলে তিনি দেখতে পান গলায় ফাঁস লাগানো নিহত সোহাগের ঝুলন্ত লাশ। সংবাদ পেয়ে পুলিশ রাত ১১ টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার উপপরিদর্শক শাহাদাত হোসেন জানান, আত্নহত্যার কারন সম্পর্কে পরিবারের সদস্যরা তেমন কেউ অবগত নয়।

নিউজটি শেয়ার করুণ