ফতুল্লার লালপুরে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

জেলার সদর উপাজেলার ফতুল্লা থেকে প্রবাসীর স্ত্রীকে অপহরন করে জোরপূর্বক ধর্ষনের অভিযোগে আকাশ নামে অভিযুক্ত যুবককে গ্রেপ্তার করেছে ফতুল্লা থানা পুলিশ।

আজ বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তাকে ফতুল্লা থানার শাহজাহান রি-রোলিং মিল এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে ভুক্তভোগী গৃহবধূ বাদী হয়ে অপহরণ করে আটকে রেখে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ এনে আকাশ ও তাকে সহায়তার অভিযোগ এনে আকাশের বোন ফাতেমাকে আসামী করে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার বিবরনীতে উল্লেখ করা হয়, ভুক্তভোগী গৃহবধুর স্বামী একজন প্রবাসী। তিনি চার সন্তানকে নিয়ে লালপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করেন। আকাশ তার স্বামীর নিকট আত্মীয় হওয়ার সুবাধে মোবাইল ফোনে প্রায়ই তাদের মধ্যে কথা হতো। আত্মীয়তার সুবাদে প্রায়ই আকাশ বাদীর লালপুরস্থ বাসায় আসতো। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৩ সেপ্টেম্বর সকাল ৮ টার দিকে আকাশ এবং তার বোন একটি অজ্ঞাতনামা সিএনজি যোগে বাদীর লালপুরস্থ বাসায় আসে। এক পর্যায়ে তাকে তার বাসা থেকে সিএনজিতে করে কৌশলে কেরানীগঞ্জে আকাশ তার ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে আটকে রেখে টানা ৭ দিন ধর্ষন করে। গত ২০ তারিখ রাতে গৃহবধূ পালিয়ে নিজ বাসা থেকে লালপুরে চলে আসে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয় মামলায়।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হুমায়ন কবির জানান, ধর্ষনকারীর কবল থেকে পালিয়ে এসে ভুক্তভোগী নারী ফতুল্লা থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রধান আসামী আকাশকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার দুপুর বারোটার দিকে ফতুল্লা থানার শিয়াচর লালখাঁ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত আকাশ শরিয়তপুর জেলার নড়িয়া থানার চর মোহন লাউরানির সোবহান হাওলাদারের পুত্র ও ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের চুন কুটিয়ার সোহাগের বাড়ীর ভাড়াটিয়া।

তিনি আরও জানান, মামালায় অভিযুক্ত অপর আসামীকে গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। অচিরেই তাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা সম্ভব হবে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin