ফতুল্লার বক্তাবলীতে নারী সাংবাদিককে মারধর

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার বক্তাবলীতে আনন্দ টিভির নারী সাংবাদিক মনি ইসলাম (২৬) কে সন্ত্রাসীরা মারধর করেছে । এ সময় নারী সাংবাদিককে রক্ষা করতে গিয়ে আহত হয়েছেন এশিয়ান টিভি চ্যানেল নারায়ণগঞ্জ এর ক্যামেরা পার্সন আবু বক্করসহ দুজন।

গতকাল শনিবার (২৩ অক্টোবর ) দুপুরে ফতুল্লার বক্তাবলী আকবর নগর এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে। হামলাকারিরা ওই সাংবাদিকদের মোবাইল ফোন, মাইক্রোফোন হ্যান্ডি ক্যামেরা লুটে নিয়ে গেছে। পরে আহত নারী সাংবাদিক আনন্দ টিভি চ্যানেলের ফতুল্লা প্রতিনিধি মনি ইসলাম নারায়ণগঞ্জ শহরের ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

চিকিৎসা শেষে তিনি নিজে বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় হামলাকারিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ তদন্ত শেষে রোববার এ ঘটনায় নিয়মিত মামলা রুজু করেন।

আহত এশিয়ান টিভির ক্যামেরা পার্সন আবু বক্কর ছিদ্দিক জানান, শনিবার দুপুর দেড়টায় মোটর সাইকেল যোগে আনন্দ টিভির ফতুল্লা প্রতিনিধি নারী সাংবাদিক মনি ইসলাম (২৬) ও স্থানীয় দৈকিন অগ্রবানী প্রতিদিন পত্রিকার সাংবাদিক ওমর ফারুক সৌরভ (৩৭) কে নিয়ে আমরা তিনজন ফতুল্লার বক্তাবলি ইউনিয়ন পরিষদে এলাকার উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের সংবাদ সংগ্রহের জন্য যায়। কিন্তু মোটর সাইকেলের চাকা লিক হয়ে যাওয়ায় স্থানীয় একটি গ্যারেজে নিয়ে যাই। তখন মনি ইসলাম দাঁড়িয়ে বক্তবলী আকবর নগর ১নং ওয়ার্ডস্থ মেইন রোডের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলো। সেখানে তাকে দেখে আজেবাজে কথা বলতে থাকে ওই এলাকার সামেদ হাজীর ছেলে মূল অভিযুক্ত ওসমান গনিসহ অজ্ঞাত আরও ৭/ ৮ জন। মনি সেই কথার প্রতিবাদ করতে গেলে বিবাদীসহ তার সহযোগিরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের এলোপাথাড়ি মারধর শুরু করে।

ওই সময় এশিয়ান টিভির ক্যামেরা পার্সন আবু বক্কর সিদ্দিক মনিকে রক্ষা করতে গেলে ওসমান গনির সাথে লোকজন গামছা দ্বারা আবু বক্কর ছিদ্দিক এর গলায় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করার চেষ্টা করে।

মনি আবু বক্কর সিদ্দিককে ছাড়ানোর চেষ্টা করলে ওসমান মনির তলপেটে স্ব-জোরে লাথি মেরে গুরুতর জখম করে। অজ্ঞাতনামা ওই সময় ৭/৮ জন মিলে আবু বক্কর ছিদ্দিককে মারধর করে।

এ সময় ওসমান গনি ও তার লোকজন মনি ইসলামের হাতে থাকা সনি এইচএক্সআর- এমসি ২৫০০ হ্যান্ডি ক্যামেরা যার মূল্য ৯০ হাজার টাকা, একটি সেনিজার মাইক্রোফোন যার মূল্য ৩৫ হাজার টাকা, একটি হাওয়াই মোবাইল যার মূল্য ১৪ হাজার ৯ শত ৯০ টাকা, গলায় থাকা ৬ আনি ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন যার মূল্য ২৫ হাজার টাকা, নগদ ৩১০০ টাকা জোর করে ছিনিয়ে নেয়।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার সদর সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান জানান, আমরা দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin