প্রতারণার অভিনব ফাঁদ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

মাস তিনেক আগের কথা। যথারীতি বিকালে ফেসবুকে চোখ বুলাচ্ছিলাম। হঠাৎ একটা নিউজ দেখে চোখ আটকে গেল। একটি মোবাইল বিক্রির বিজ্ঞাপন দেখে। গত কয়েক বছর ধরে আমাদের দেশে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন জিনিসপত্র বেচা বিক্রির হার বেড়েছে। অনেকেই বিভিন্ন গ্রুপে বেচাকেনার বিজ্ঞাপন দেয়। গ্রুপটায় অনেকে ভালো ভালো রিভিউ দিয়েছিল। তাই আমিও ভাবলাম হয়তো প্রতারিত হবার সুযোগ নেই। যোগাযোগের প্রদত্ত নাম্বারে যোগাযোগ করলাম।

কথা শুনে মনে হলো কোন অভিজাত পরিবারের মেয়ে। তাও কোন রিস্ক নিলাম না। যমুনা ফিউচার পার্কে এসে মোবাইল দিতে বললাম। কোন রকম ঝুট ঝামেলা ছাড়াই মোবাইল কিনলাম। করোনার জন্য আর্থিক সংকটে পড়ে মহিলা মোবাইল বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছেন শুনে খুব খারাপ লাগলো। ভিতরে ভিতরে আবার এটা ভেবে ভালোও লাগছিলো যে খুবই সস্তায় এমন দামি মোবাইল হাতে পেয়েছি বলে। ৯০ হাযার টাকার মোবাইল মাত্র ২৩ হাযার টাকায়! ভাবতেই অবাক হয়ে যাচ্ছিলাম। মহিলার ভাই দুবাই থেকে মোবাইলটা এনেছিল বলে কোন বক্স বা পেপার ছিল না। আমিও সরল মনে বিশ্বাস করে মোবাইল নিয়ে বাসায় ফিরি। এক চাপা উত্তেজনা ভর করেছিল আমার উপর।

বাসায় এসেই খুটিনাটি দেখে আরো আনন্দিত হলাম। মোবাইল একেবারে নতুন। মনে মনে মহিলার জন্য খারাপ লাগছিল কত কষ্ট করে শখের জিনিসটা বিক্রি করে দিল। মোবাইলে ছবি তুলা, গেমস খেলা, ফেসবুকিং ভালোই চলছিল

হঠাৎ একদিন সকালে বাসায় হৈচৈ শুনে ঘুম ভাঙ্গে। বাসায় পুলিশ এসেছে। অল্পবয়সী পুলিশ পরিদর্শক, সাথে ২ জন হাবিলদার নিয়ে এসেছেন। সাথে ছিলেন সাদা পোশাকে আরো একজন। পরে পুলিশ পরিদর্শক আমাকে যা বললো শুনে তো আমার চোখ চড়কগাছ। আমার হাতের মোবাইলটা কিছুদিন আগে ছিনতাই হয়েছিল। সাদা পোশাকের লোকটির মোবাইলটি ছিনতাই চক্রের সদস্যরা রাজধানীর উত্তরা থেকে ছিনিয়ে নেয়।

মোবাইলের ইএমআই নাম্বার ট্রেক করে পুলিশ আমার পর্যন্ত পৌছেছে। ভাগ্যিস পুলিশকে আমি বুঝাতে সক্ষম হয়েছিলাম যে আমি এটা কিনেছি। মোবাইল কিনার সম য় ছবি তুলে ছিলাম বলে এ যাত্রায় রক্ষা পেলাম। না হয় নির্ঘাত হাজতবাস করতে হতো। পরে থানায় গিয়ে আনুষঙ্গিক কিছু কাজ সেরে বাসায় ফিরলাম।

আমার মত অসংখ্য মানুষ নানা রকম প্রতারণার স্বীকার। দিনে দিনে নিত্য নতুন প্রতারণার ফাদ পাতছে প্রতারক চক্র। কখনো শিশু, মহিলাদের ব্যবহার করা হচ্ছে তাদের এই প্রতারনার কাজে। তাই অনলাইনে যে কোন কিছু কিনার আগে অবশ্যই সতর্ক হোন। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছাড়া কোন কিছু কিনা থেকে বিরত থাকুন। আর আপনি প্রতারিত হয়েছেন বুঝতে পারলে দ্রুতই নিকটস্থ থানায় যোগাযোগ করে আইনি পদক্ষেপ নিন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin