পরীমনির সর্বনাশ, এমদাদুলের পৌষ মাস

শেয়ার করুণ

পরিমনীর গ্রেফতার দেশের শোবিজ অঙ্গনে বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করলেও হাসি ফুটিয়েছে মাস্ক ব্যবসায়ী এমদাদুলের। জীবিকা নির্বাহ করতে মাস্ক বিক্রির ব্যবসা শুরু করেছিলেন বরগুনার মোঃ এমদাদুল হক। প্রতিদিন তার টার্গেট কমপক্ষে ২০০ মাস্ক বিক্রি করা। গত কয়েকদিন টার্গেট পূরণ না হয়ে একটু হতাশই ছিলেন।

কিন্তু গতকাল বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে একটি ক্যান্টিনের টিভিতে চিত্রনায়িকা পরীমনিকে তার বনানীর বাসা থেকে আটকের খবর পান এমদাদুল। টেলিভিশনের সংবাদ প্রতিবেদনে দেখেন নায়িকার বাসার সামনেই ভিড় জমিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। করোনা পরিস্থিতিতে এতো ভিড় ঠেকাতে বনানী সোসাইটি থেকেও মাস্ক পরার মাইকিং করছিলো। এতো মানুষের সংবাদ দেখেই মাস্কের ব্যাগ হাতে নিয়ে চলে যান পরীর বাসার সামনে। পরের ৩০ মিনিটে বিক্রি হয়ে যায় এমদাদুলের সব মাস্ক। পরে স্ত্রীর মাধ্যমে বাসা থেকে আরো মাস্ক আনান এমদাদুল। সেগুলোও বিক্রি করছেন সুযোগ বুঝে। এতেই মাত্র ৩০ মিনিটেই রমরমা হয়ে যান এমদাদুল। একেই বুঝি বলে, ‘কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ।’

নিউজটি শেয়ার করুণ