নৌকার প্রার্থীকে হারাতে আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার অভিযোগ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার ইউপি নির্বাচনে রাঢ়ীখাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হানিফ বেপারীর বিরুদ্ধে নৌকার প্রার্থীকে হারাতে সতন্ত্র প্রার্থীর কাছ থেকে টাকা নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে দলীয় নেতাকর্মী ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম সমালোচনার ঝড় বইছে।

অভিযোগ উঠেছে, উপজেলার রাঢ়িখাল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল বারেক খান বারীকে পরাজিত করার লক্ষ্যে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রর্থী হারুন উর রশিদ থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়েছেন হানিফ বেপারী।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলছে, হানিফ বেপারী স্বতন্ত্র প্রার্থী হারুন উর রশিদের ছেলে নজরুল ইসলাম লিটুর কাছ থেকে পর্যায়ক্রমে মোট ৬ লাখ ৭০ হাজার টাকা নিয়েছেন। ইউনিয়নটিতে মোট ৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক খান বারী নৌকা প্রতীকে ৪ হাজার ৭৭২ পেয়ে বিজয়ী হন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতীকের প্রার্থী হারুন উর রশিদ ৩ হাজার ৯৫০ ভোট পান। আব্দুল বাকের ৮২২ ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেন। আনারস পরাজিত হওয়ার পর থেকে হানিফ বেপারীর টাকা নেয়ার বিষয়টি প্রকাশ পায়।

তুহেল খান নামে এক যুবলীগ নেতা তার ফেসবুকে স্ট্যাটাসে লিখেছেন, নৌকার বিরুদ্ধে রাঢ়িখাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হানিফ বেপারীর আনারসের পক্ষে কাজ করার জন্য জসিলদা নয়ন মামার বাসায় বসে ৬ লাখ টাকা নিয়েছেন এবং মাইজপাড়ার জন্য ৭০ হাজার টাকা নিয়েছেন। আমরা রাঢ়িখাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ থেকে হানিফ বেপারীর পদত্যাগ চাই।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হারুন উর রশিদের ছেলে নজরুল ইসমলাম লিটু বলেন, মিথ্যা বলবো না আমার বাবাকে বিজয়ী করতে হানিফ বেপারী প্রস্তাব নিয়ে এলে বন্ধু নয়ন মাঝির বাড়িতে বসে আলোচনা শেষ করি। পরে ওই রাতেই ৫ লাখ টাকা দেই হানিফ বেপারীকে। বাকি ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা তার লোকের মাধ্যমে নিয়েছেন।

টাকা নেয়ার বিষয়ে হানিফ বেপারীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে ফেসবুকে যা দেখছেন তা সব মিথ্যা। হারুন বেপারী নির্বাচনে ফেল করায় আমার বিরুদ্ধে এই মিথ্যাচার ছড়াচ্ছে।

শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী তোফাজ্জল বলেন, এই বিষয়ে আমার কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছে। এখনো কেউ কোনো লিখিত অভিযোগ করেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে যদি প্রমাণ পাওয়া যায় হানিফ বেপারী নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করেছে। তবে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লুতফর রহমান বলেন, এই বিষয়ে কোনো প্রার্থী আমাদের কছে এখনো কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।

সূত্রঃ নয়া দিগন্ত

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin