নিষ্কাশিত খাল ফের দখলঃ বৃষ্টি হলে ডুববে এনায়েতনগর ও মাসদাইর

শেয়ার করুণ

নারায়ণগঞ্জ শহরের কিছু এলাকা ও শহরতলীর এনায়েতনগরের ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার
পানি নিস্কাশনের জন্য গত বছর একটি খাল পরিস্কার
করেছিল সিটি করপােরেশন কর্তৃপক্ষ। শহরের বাইরে
গিয়েই জনস্বার্থে তারা কালিয়ানী ও বিসিক এলাকার
খালগুলাে পরিস্কার করে। কিন্তু বছরান্তে আবার সেগুলাে
দখল হয়ে যাচ্ছে।

ফলে বৃষ্টি আসলেই সেই আগের মত
জলাবদ্ধতা দেখা দেওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।
প্রায় সারা বছর জলাবদ্ধতা থাকে সদর উপজেলার
ফতুল্লার এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের অধিকাংশ
এলাকা। হােসিয়ারি শিল্প নগরী বিসিকে যাতায়াতের
প্রধান সড়কটিও বাদ যায়নি এই তালিকায়। বছরের
অধিকাংশ সময় জলাবদ্ধতায় দুর্ভোগের শিকার
এখানকার কয়েক লাখ শ্রমিক। এই জলাবদ্ধতার প্রধান
কারণ বিসিকের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া কালিয়ানী খাল।


প্রায় ৫ কিলােমিটার দীর্ঘ এ খাল দখল-দূষণে পরিণত হয়েছে সরু এক নালায়।
সময় এখানে ছিল বিস্তৃত কালিয়ানী বিল। পরবর্তীতে পানি নিষ্কাশনের জন্য ফকির এই খাল রেখে বাকি জায়গার ওপরে গড়ে তােলা হয়েছে বিসিক। এ খাল দিয়ে
বৃহত্তর মাসদাইর, শাসনগাঁও, বিসিক শিল্প নগরী, হরিহরপাড়া, জামতলা, এই গলাচিপা এলাকার পানি নিষ্কাশিত হতাে। খালের সংযােগ ছিল ধলেশ্বরী নদীর
সঙ্গে। নকশা অনুযায়ী এক সময় এ খালের প্রশস্ততা ছিল ৪৫ থেকে ৬৫ ফুট। যা মাসদাইর ও হরিহরপাড়ার মৌজার নকশায় উল্লেখ আছে। বেশিরভাগ জায়গায় এটি সরু নালায় পরিণত হয়েছে। খাল দখলের তালিকায়
ও স্থানীয়দের পাশাপাশি আছেন খালের দুই পাশের গার্মেন্টস মালিকরা। খালের ভিতরে ঝুট ও পলিথিন ফেলে কিংবা খালের ভেতরে ভবনের জন্য পাইলিং
করে দখল করা হয়েছে কালিয়ানী খাল। এসব কারণে খালে পানি প্রবাহ কমে গেছে। বর্ষাকালে ডুবে যায় বিসিকসহ এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের
গত বছর টানা ১৩ দিন ধরে কালিয়ানী খালটি উদ্ধার করে জলাবদ্ধতা সমস্যা নিরসনে কাজ করেছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। গত ২৪ জুন খাল উদ্ধার
ও খনন কার্যক্রম শুরু করে সিটি কর্পোরেশন। পরে ৩০ জুন বিশেষ ভেকু দিয়ে খালটি খনন করা শুরু হয়।
ওই সময়ে সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র আফসানা আফরােজ বিভা বলেন, দখল হওয়া খালটির কারণে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের দেওভােগ
ও মাসদাইরসহ কয়েকটি এলাকার মানুষ বর্ষা মৌসুমে পানিবন্দী হয়ে পড়েন। নগরীর দেওভােগ ও মাসদাইর এলাকায় জলাবদ্ধতার কারণ খুঁজতে গিয়ে
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্রতিনিধি দল খাল খননের প্রয়ােজনীয়তা উপলব্ধি করেন। কালিয়ানী খালটি দখল ও দূষণে প্রায় ভরাট হয়ে যাওয়ার
‘কারণে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ব্যাহত হচ্ছে। পরবর্তীতে মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর নির্দেশে খালটিকে দখল ও দূষণমুক্ত করতে মাঠে নামে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। খালের দুই পাশে অবৈধ স্থাপনাগুলাে উচ্ছেদ করতে না।



পারলে এই সুফল দীর্ঘায়িত হবে না। এদিকে চলতি বছরের শুরু থেকে ফকির গ্রুপ বাঁশের খুটি দিয়ে খালটির অংশ দখল করে ও তাদের বাশের খুটির কিছু অংশ হেলে খালের মধ্যে চলে আসে এবং সিটি থেকে নেমে যাওয়া পানি যেতে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সূত্রঃ সময়ের নারায়ণগঞ্জ


নিউজটি শেয়ার করুণ