না.গ‌ঞ্জে বা‌সের ভাড়া দ্বিগুণ, মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

দেশে করোনা ভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউ ও সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সারাদেশে গণপরিবহনে ভাড়া ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি করা হয়েছে। কিন্তু কিছু কিছু স্থানে দেখা যাচ্ছে অনিয়ম। কেউ কেউ সরকারের নিয়ম না মেনে ৬২ থেকে ৬৪% ভাড়া বৃদ্ধি করেছেন নিজে থেকেই। এছাড়া যেই কারনে ভাড়া বৃদ্ধি করা হলো সেই করোনা থেকে রক্ষায় স্বাস্থ্য বিধি মানছেনা বেশির ভাগ মানুষ।

বুধবার (৩১ মার্চ) সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেলো এমন দৃশ্য। স্বাস্থ্যবিধি মেনে অর্ধেক আসন খালি রেখে এবং শতভাগ মাস্ক পরিধান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করার নির্দেশ থাকলেও অনেক বাসে বাড়তি ভাড়া নিয়েও পাশাপাশি বসতে দেখা গেছে ২ যাত্রী। অনেকের মুখে নেই মাস্ক। এমনকি বাসের চালক ও হেলপারের মুখেও দেখা যায়নি মাস্ক।

করোনা মহামারি যেখানে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এ অবস্থায় বাস মালিক ও শ্রমিকদের দাবির প্রেক্ষিতে ভাড়া বৃদ্ধি করার ফলে জনগণের জীবন যাত্রায় নতুন একটি ভোগান্তি ও যন্ত্রণা যোগ করেছে বলে মনে করছেন অনেকেই।

৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি করে বর্তমানে বাসের ভারা:

উৎসব-বন্ধন পরিবহন (নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা) আগে ভাড়া ছিলো ৩৬ টাকা যা এখন করা হয়েছে ৫৮ টাকা।

বিআরটিসি পরিবহন (দো-তালা) (নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা) আগে ভাড়া ছিলো ৩০ টাকা যা এখন করা হয়েছে ৫০ টাকা।

বিআরটিসি পরিবহন (এসি) (নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা) আগে ভাড়া ছিলো ৫০ টাকা যা এখন করা হয়েছে ৭০ টাকা।

শীতল পরিবহন (নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা) আগে ভাড়া ছিলো ৫৫ টাকা যা এখন করা হয়েছে ৮০ টাকা।

বন্ধু (চিটাগাং রোড পর্যন্ত) আগে ভাড়া ছিলো ২০ টাকা যা এখন করা হয়েছে ৩২ টাকা।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin