নাসিম ওসমানের আমার প্রতি আস্থা ছিলো অনেক: সেলিম ওসমান

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

৩০ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ-৫ আসন থেকে চারবার নির্বাচিত প্রয়াত সংসদ সদস্য নাসিম ওসমানের মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১৪ সালের এ দিনে তিনি ইন্তেকাল করলে ওই বছরের ২৬ জুন উপ নির্বাচনে ছোট ভাই সেলিম ওসমান লাঙল প্রতীকে এমপি নির্বাচিত হন।

নাসিম ওসমানকে স্মরণ করে সেলিম ওসমান বলেন, নাসিম ওসমান কখনোই আমাকে ছোট ভাই হিসেবে দেখতেন না। আমার প্রতি তাঁর অনেক আস্থা ছিল। সে আমাকে পরিবারের সব থেকে বেশি দায়িত্বশীল মনে করতো। আবার তাঁর সাথে আমি বন্ধুর মত ঝগড়া করতাম। সে আমাদের পরিবারের সব থেকে মেধাবী ছিল। বাবা আমার জন্য ৫০ টাকায় মাস্টার রেখে ছিলেন আর ওর জন্য রেখে ছিলেন ১৫০০ টাকার মাস্টার। ৭৫ এরপর আমাদের পরিবারের উপর যখন নির্যাতন চালিয়ে আমাদের পরিবারকে পথে বসিয়ে দেওয়া হয় তখন আমাকে সংসারের দায়িত্ব নিতে। আর নাসিম ওসমান রাজনীতি আসার সিদ্ধান্ত নেয়। সে কিভাবে যেন নারায়ণগঞ্জের মানুষের সাথে মিশে গিয়েছিলো। তার দায়িত্বও আমাকে নিতে হয়েছিলো। এমনকি তার মেয়ের বিয়ে কথা বললে সে আমাকে বলতো ওই দায়িত্ব আমার না সেটা তোমার দায়িত্ব। মেয়ের বিয়েটাও সে আমার উপর চাপিয়ে দিয়েছে। নির্বাচন এলে সে একটা বাচ্চা ছেলের মত আমার অফিসে গিয়ে বসে থাকতেন। তার দলের নেতাকর্মীদের সাহায্যের জন্য আমার কাছে চিরকুট লিখে পাঠিয়ে দিতো। মাসে অন্তত এরকম ১০টা চিরকুট আমার কাছে সে পাঠাতো। তার মেয়ের বিয়ের সময় তার সাথে আমার একটু কথা কাটাকাটি হয় বিয়েটা দিতে দেরি করায়। তখন তাকে আমি বলে ছিলাম আমি তোমার কাছে কতটাকা পাই এগুলো কবে দিবা? সে আমাকে বলেছিলো আমি তোমাকে এমন একটা জিনিস দিবো যা তুমি পড়ে বুঝবা।

সেলিম ওসমান আরো বলেন, গত ৭ বছরে আমি বন্দরের প্রায় সর্বত্র গিয়েছি। আমি বুঝতে পেরেছি বন্দরের মানুষ তাঁকে কতটা ভালবাসতো এবং এখানো ভালবাসে। বন্দর নিয়ে তাঁর অনেক স্বপ্ন ছিলো, অনেক কিছু করার ইচ্ছা ছিলো কিন্তু বাস্তবায়ন করে যেতে পারেনি। এটা যদি আমি আগে বুঝতে পারতাম তাহলে আমি আমার সর্বস্ব দিয়ে দিতাম তার কাছে বন্দরের মানুষের কল্যান করার জন্য। তাই গত ৪টি বছর আমি নাসিম ওসমানের অসমাপ্ত স্বপ্নগুলো বাস্তবায়নে আমার সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করেছি। যার মধ্যে হয়তো কিছু কাজ বাস্তবায়িত হওয়ার পথে রয়েছে। আল্লাহ যদি আমাকে হায়াত দেন তাহলে বাকি স্বপ্নগুলোও বাস্তবায়ন করবো। এরজন্য আমি বিগত সময় গুলোর দলমত নির্বিশেষে উন্নয়নে সকলের সহযোগীতা কামনা করছি।

প্রসঙ্গত ২০১৪ সালের ৩০ এপ্রিল ভারতের রাজধানী দিল্লীর দেরাদুন শহরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করেন প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমান। তিনি নারায়ণগঞ্জ-৫ আসন থেকে ১৯৮৮৪, ১৯৮৬, ২০০৮ ও ২০১৪ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে ছিলেন। প্রয়াত নাসিম ওসমান নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের প্রয়াত ভাষা সৈনিক ও স্বাধীনতা পদক প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠন, সাবেক এম এল এ, বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহোচর ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠার অন্যতম ব্যক্তিত্ব মরহুম একেএম শামসুজ্জোহা ও প্রয়াত ভাষা সৈনিক নাগিনা জোহার বড় ছেলে এবং বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ-৫ ও ৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান ও একেএম শামীম ওসমানের বড় ভাই। সেই সাথে তিনি ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসন থেকে সব থেকে বেশি মেয়াদে নির্বাচিত ৪ বারের সংসদ সদস্য।
সূত্র:নিউজ নারায়াণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin