নারায়ণগঞ্জ হাইস্কুলে শিক্ষার্থীদের প্রহারের অভিযোগ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়নগঞ্জ হাই স্কুল এখন শিক্ষার্থীদের কাছে টর্চার সেলে পরিনত হয়েছে। গত এক সপ্তাহে শিক্ষকরা তিনজন শিক্ষার্থীর উপর অমানুষিক নির্যাতন করেছে বলে অভিভাবকরা অভিযোগ করেছেন।

এসব শিক্ষকের মধ্যে রয়েছে সুমন সাহা, নরেন শিকদার এবং এস এম মামুন। এদের মধ্যে এস এম মামুনকে সভাপতি চন্দন শীলের একক সিদ্ধান্তে ৭ দিনের জন্য সাময়িক বরখাস্ত করা হলেও অন্য দুইজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় সাধারণ শিক্ষক, অভিভাবক এবং শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

৬ষ্ঠ শ্রেনীর এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, নরেন শিকদারের ব্যাচে তার সন্তান কোচিং না করায় সে ক্লাসের মধ্যে ব্যাপক প্রহার করে। এ ব্যাপারে আমি কমিটির সদস্যদের জানানোর পর তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি।

অপর একজন অভিভাবক জানান, আমার ছেলে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিবে। মামুন স্যার তাকে ক্লাসে চড় মারার পর গভর্নিং বডির সদস্য দেলোয়ারা বেগম মায়াকে জানালে তিনি সভাপতির মাধ্যমে অভিযুক্ত শিক্ষককে ৭ দিনের জন্য সাময়িক বরখাস্ত করান।

এদিকে মহিলা অভিভাবক সাজেদা বেগম অভিযোগ করেন, দশম শ্রেনীর ইংরেজির শিক্ষক সুমন সাহার ব্যাচে আমার মেয়ে না পড়ার কারণে শনিবার দুপুরে তার ১৬ বছরের উপযুক্ত মেয়েকে স্কুলের বারান্দায় শতাধিক ছেলে মেয়ের উপস্থিতিতে চড় থাপ্পর মারে। খবর পেয়ে আমি স্কুলে উপস্থিত হয়ে প্রধান শিক্ষককে অবহিত করার পর আজকে পর্যন্ত ওই শিক্ষকের ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় আমি মেয়ের নিরাপত্তার কারনে স্কুলে পাঠানো বন্ধ রাখতে বাধ্য হবো। তিনি বলেন, আমার মেয়ের কোন ক্ষতি হলে তার দায় দায়িত্ব স্কুল কর্তৃপক্ষকে বহন করতে

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin