নগরীর খানপুরে লাগামহীন বাইকরা !

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নগরীর খানপুর তরুনদের আড্ডা দেবার জন্য অন্যতম জনপ্রিয় একটা জায়গা, এই জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে গড়ে উঠেছে অনেক খাবার ও কফি শপের দোকান। (১৯ ডিসেম্বর) নগরীর খানপুরে গিয়েছিলাম বন্ধুদের সাথে কফি পান করতে, একসময় তাকিয়ে দেখলাম হঠাৎ একটি বাইক অনেক দ্রুত গতিতে এসে একটি রিকশা কে ধাক্কা দিলো, সাথে সাথে রিকসাওয়ালা পড়ে গেলো, মুহূর্তে অনেক মানুষ জড়ো হয়ে গেলো, যেইভাবে রিক্সা ওয়ালা লোকটি ছিটকে পড়েছিলো ভেবেছিলাম ওনি স্পট ডেইথ হয়েছে, তারাতাড়ি করে সামনে গেলাম মানুষজন তাকে উঠিয়ে মাথায় পানি ঢালছে, গুরুতর আহত হয়েছে মাথায় প্রচুর আঘাত পেয়েছে লোকটিকে হাসপাতালে নেওয়া হয় পরে।

কিন্তু প্রশ্ন হলো যারা এমনভাবে রাস্তা বাইক বা গাড়ি চালায় তারা কি প্রমান করতে চায়? তারা কি নিজেদের খুব স্মার্ট ভাবে? যদি খুবই স্পির্ডে বাইক চালাতে ইচ্ছা হয় তাহলে ইন্টারন্যাশনাল কোনো প্রতিযোগিতায় কেনো যায় না ,কই কখনো শুনলাম না তো বাংলাদেশের কেউ বাইক রেসিং- এ দেশের জন্য পদক নিয়ে আসছে।

মানুষ ই তো মারে এরা, এটা কেমন স্মার্টনেস? শুধু যে ঐ রাস্তায় তানা সম্প্রতি কম বেশি সব জায়গাতেই এমন ঝুঁকিপূন বাইক রাইডিং দেখা যায়, যা নিমিষেই একটি বড় দুর্ঘটনা ঘটনাতে পারে। আসলে প্রকৃত বুদ্ধিমান তারাই যারা রাস্তার ভাষা বুঝে ড্রাইব করে, মাচো ম্যান হবার জন্য অনেক পথ খোলা আছে,জোরে বাইক বা গাড়ি ড্রাইভ করে নয়।মনে রাখবেন সময় এর চেয়ে জীবনের মূল্য অনেক বেশি।

আপনার একটি ভুলের কারনে কত গুলো মানুষের জীবন বিপন্ন হতে পারে তা মাথায় রাখা উচিত। পরিশেষে, যারা জনবহুল জায়গা ও অযথা বাইক বা গাড়ি চালায় তাদের সামাজিকভাবে প্রতিরোধ করা উচিত, পাশাপাশি আইন প্রয়োগে আরো কঠিন হতে হবে সরকারকে।

এই ঘটনার পরে স্থানীয় দোকানদারদের সাথে কথা বলে জানা গেলো , খানপুরে প্রায় বাইকের সাথে ধাক্কা লেগে এমন দুর্ঘটনা ঘটে ,যারা বাইকার তারা অনেক প্রভাবশালী মহলের ছেলে বা আত্বীয়স্বজন তাই ভয়ে কেউ তাদের এই অন্যায়ভাবে উচ্চগতিতে বাইক চালানোর ব্যাপারে কথা বলেনা, শুধু বাইক নয় প্রাইভেট কার দিয়েও খানপুর হাসপাতাল রাস্তায় উচ্চগতিতে গাড়ি চালানো হয় এমন একটি জনবহুল জায়গায় অত্যান্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin