দল যদি বলে আমি নির্বাচনে দাঁড়াবোঃ তৈমুর

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

বিএনপির নেতাকর্মীরা সরব আছে বলে মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার।

মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) রাতে একটি গণমাধ্যমকে দেওয়া এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই দিনভর আমার বাড়ি লোকে লোকারণ্য হয়ে যাচ্ছে। সবার দাবি, আমাকে নির্বাচনে দাঁড়াতেই হবে।

নেতা-কর্মীদের বলেছি, দল যদি বলে আমি নির্বাচনে দাঁড়াবো। আমি যেহেতু দলের আহ্বায়ক ও চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা সেহেতু আমার স্বতন্ত্র প্রতীকের প্রার্থী হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

বিএনপি যদি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অফিসিয়ালি অংশ নেয় তাহলেই আমি প্রার্থী হবো। কিন্তু স্বতন্ত্র প্রার্থী কোনমতেই নয়।

তৈমুর বলেন, ব্যবসায়ীক মহল থেকে শুরু করে বিভিন্ন মহল থেকে অনেকেই আমাকে প্রার্থী হওয়ার তাগিদ দিয়েছে। ২০১১ সালে আমাকে নির্বাচনের আগ মুহূর্তে বসিয়ে দেওয়া হয়েছিল, যে কারণে ২০১৬ সালে আমি প্রার্থী হতে চাইনি। কিন্তু এবার আমি দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিতে রাজী আছি কিন্তু দলকে অফিসিয়ালি নির্বাচনে অংশ নিতে হবে। নয়তো স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আমি নির্বাচনে অংশ নিবোনা।

এদিকে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার দলীয় প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নিলে তার জন্য মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারসহ তার পক্ষে সবাই একযোগে কাজ করবেন বলেও প্রত্যাশা করেন ইতোমধ্যে নাসিক নির্বাচনে মনোনয়নপত্র সংগ্রহকারী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল।

অপরদিকে অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন বলেন, বিএনপির সিদ্ধান্ত এ সরকারের অধীনে দলীয়ভাবে কোনো নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা যাবে না। তবে নারায়ণগঞ্জের এ নির্বাচন জাতীয় সংসদ নির্বাচন নয়। তাই মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি। তবে দল যে সিদ্ধান্ত নিবে আমি তা মেনে নেব।

গত ৫ ডিসেম্বর মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছে দুই বিএনপি নেতা। তারা হলেন, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল ও সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নিলে তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে ইচ্ছুক বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন।

২০১১ সালের ৩০ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে ভোটের মাত্র সাত ঘণ্টা আগে অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার মেয়র পদ থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নিজের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেন। ২০১৬ সালের নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে অংশ নেন অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন।

আগামী ১৬ জানুয়ারি নাসিক নির্বাচনে ভোট গ্রহণ। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন আগামী ১৫ ডিসেম্বর। মনোনয়নপত্র বাছাই ২০ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৭ ডিসেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ ও প্রচারণা শুরু ২৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হবে।

সূত্রঃ বিডি নিউজ ২৪

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin