দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচন করলে নেতাকর্মীরা পাশে থাকবে নাঃ গিয়াসউদ্দিন

শেয়ার করুণ

দলের সিদ্ধান্তের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করে সিটি করপোরেশন নির্বাচন থেকে সরে এসেছেন সাবেক এমপি মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন। দলীয় সিদ্ধান্ত না মেনে বিএনপি থেকে কেউ নির্বাচন করলে নেতাকর্মীরা তার পাশে থাকবেন না বলে জানান তিনি।

গতকাল বুধবার (১৫ ডিসেম্বর) সকালে জেলার জনপ্রিয় পত্রিকা নারায়ণগঞ্জ টুডে’র সাথে একান্ত আলাপকালে নির্বাচন বর্জন ও বিএনপির রাজনীতি নিয়ে তিনি কথা বলেন।

সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিন বলেন, নির্দলীয় তত্বাবধায়ক সরকার ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠনসহ খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য মুক্তি না দেওয়া পর্যন্ত বিএনপি কোনো নির্বাচনে অংশ নিবে না বলে অনেক আগেই জানিয়েছে। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনেও দল কোনো প্রার্থী দিবে না এবং দলীয় কোনো নেতাকর্মীকেও এই নির্বাচনে অংশ না নিতে নির্দেশ দিয়েছেন দলীয় হাই কমান্ড। সেই নির্দেশনা মোতাবেক আমি বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য হয়ে নির্বাচনে অংশ নিতে পারি না।

তিনি আরও বলেন, জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দলীয় চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। এমন পরিস্থিতিতে আমাদের একমাত্র দাবি হচ্ছে তার মুক্তি এবং উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করা। এর বাইরে দল কিংবা তৃনমুল কর্মীদের বিকল্প কোন চিন্তার সুযোগ নেই। দলের চেয়ারপার্সনকে এমন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে রেখে আমরা নির্বাচন করতে পারি না। বিএনপির কোনো নেতাকর্মীরাও এই নির্বাচনে অংশ নিতে পারে না। দলের এমন সিদ্ধন্তের পরও যদি কেউ নির্বাচনে অংশ নেয় তাহলে সেটা দলের শৃঙ্খলা বিরোধী বলেই বিবেচিত হবে।

সাবেক এই জনপ্রতিনিধি আরও বলেন, সরকার বা সরকার দলীয় প্রভাবশালীদের প্রলোভনে পড়ে যদি কেউ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে তাহলে তার পাশের বিএনপির কোনো নেতাকর্মী দাঁড়াবে না, যাবেও না। আমি আশা করি, আমাদের আরও যারা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন তারাও দলের প্রতি অনুগত্য থেকে, দলের নির্দেশনা মেনে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবেন।

প্রসঙ্গত, বিএনপি থেকে ৪ জন হেভিওয়েট প্রার্থী মনোনয়ন সংগ্রহ করলেও তৈমুর আলম বাদে কেউ মনোনয়ন জমা দেন নি। মনোনয়ন জমাদানের শেষ দিন বিএনপি প্রার্থী গিয়াসউদ্দিন ও অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন নিজেদের প্রত্যাহার করে নেন দলীয় নির্দেশের কথা বলে।

নিউজটি শেয়ার করুণ