ছাত্রলীগ নেতার ডোপ টেস্টে মাদক মিলেনি

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক তোফা আহমেদের পক্ষে তার বাবা মির্জা হাসানুজ্জামান ও মাতা শায়লা আক্তার কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে গণমাধ্যমের সংবাদ ভিত্তিহীন দাবী করে তোফার শিক্ষাজীবন ও এবং উজ্জল ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে সুষ্ঠু তদন্তের আবেদন করেছেন। ইতোমধ্যে তার ডোপ টেস্টের প্রতিবেদন এসেছে। সেখানে মাদকের সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়নি।

ওই আবেদনে তোফার বাবা মির্জা হাসানুজ্জামান ও মাতা শায়লা আক্তার উল্লেখ করেন, তাদের সন্তান মির্জা তোফা আহমেদ তোলারাম কলেজের রসায়ন বিভাগের ৩য় বর্ষের একজন ছাত্র। একাদশ শ্রেণি অধ্যয়নরত অবস্থায় আজ থেকে ৬ বছর পূর্বে কিছু বন্ধু বান্ধবের ছলনার শিকার হয়ে সে কিছু ছবি তুলে যা বিভিন্ন গণমাধ্যমে পৌছায়। কিন্তু তার পড়াশোনার উন্নতি এবং চলাফেরায় সে মোটেও এরকম নয়।

তোফার বাবা ও মা এটা নিশ্চিত সে মাদকাসক্ত নয় ও মাদকের সাথে লিপ্ত কোনো কর্মকান্ডে সে জড়িত নয়। গণমাধ্যমের এই সংবাদ সম্পূর্ণরূপে ভিত্তিহীন।

অতএব সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে তাদের বিনীত প্রার্থনা তাদের সন্তানের শিক্ষাজীবন ও উজ্জল ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে গণমাধ্যমের এই ভিত্তিহীন সংবাদের সুষ্ঠু তদন্ত করে যেন যথযোগ্য সিন্ধান্ত গ্রহণ করেন।

প্রসঙ্গত, সাম্প্রতিক সময়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর শাখার অর্থ বিষয়ক সম্পাদক তোফা আহম্মেদের মাদক সেবনের ছবি বেশ কয়েকটি স্থানীয় এবং জাতীয় গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়। সংবাদ প্রকাশের পর তোফাকে আগামী ৩ দিনের মধ্যে ডোপ টেস্টের মাধ্যমে সে মানদসেবী কি না সেই প্রমাণ দিতে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে তোফার বাবা মায়ের লিখিত দরখাস্তও চেয়েছে ছাত্রলীগ। ডোপ টেস্টের সার্টিফিকেট না দেওয়া পর্যন্ত মহানগর ছাত্রলীগের সকল কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

২২ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ ও সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দুর স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এমন তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করেন, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, নারায়ণগঞ্জ মহানগর শাখার অর্থ বিষয়ক সম্পাদক তোফা আহম্মেদের বিরুদ্ধে কয়েকটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে মাদকসেবনের অভিযোগ প্রকাশিত হয়। সেই প্রেক্ষিতে তোফা আহম্মেদকে নোটিশ জারি করা হল। আপনি মাদক সেবী কিনা আগামী ৩ দিনের মধ্যে ডোপ টেস্টের সার্টিফিকেট এবং উক্ত বিষয়ে আপনার বাবা মায়ের লিখিত দরখাস্ত নারায়ণগঞ্জ মাহনগর ছাত্রলীগের দপ্তর সেলে জমা দিতে হবে।’

‘এই মর্মে বিষয়টি সমাধান কিংবা প্রমাণ না হওয়া পর্যন্ত তোফা আহম্মেদ নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের সকল কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেয়া হলো। ডোপ টেস্টসহ অন্যান্য কাগজপত্র হাতে পাওয়ার পরেই আমরা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

এ প্রসঙ্গে মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ বলেন, ‘ছাত্রলীগের যে কোনো কর্মীই হোক না কেন তাঁদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এটি একটি সতর্কবার্তা। একেএম শামীম ওসমান এবং অয়ন ওসমানের নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জে ছাত্রলীগের কার্যক্রম পরিচালনা হচ্ছে। ছাত্রলীগে কোনো মাদকসেবী, সন্ত্রাসীর স্থান নাই।’

সূত্রঃনিউজ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin