চেক ডিজঅনার মামলার সাজাপ্রাপ্ত জসিম উদ্দিন দেড় বছর পলাতক, দুরাবস্থায় ভিপি পাবেল

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

আসামী স্টক লটের মাল দেয়ার কথা বলে হাওলাত বাবদ দুই বছরে প্রায়ই টাকা নিতো। পরিবর্তিতে স্টক লটের মাল দিতো অথবা টাকা ফিরত দিতো। এমনি করে ২৬ লাখ টাকা পাওনা হয়ে যায় মামলার বাদি। সেই টাকার বিপরিতে ২৬ লাখ টাকার একটি চেক দেয় ২০১৬ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের । সেদিনই চেকটি ব্যাংকে জমা দিলে জানা যায়, আসামীর একাউন্ট ক্লোজড ও চেকটি ডিজঅনার হয়। এরপর বাদী আইনজীবির মাধ্যমে ওই বছরের ১৩ অক্টোবর বিবাদীকে লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেন। লিগ্যাল নোটিসের ৩০ দিনের মধ্যে জবাব না দেওয়ায় বাদী এ টি এম মশিউজ্জামান পাবেল Negotiable Instrument Act 1881-138 ধারায় মামলা দায়ের করেন।

দায়রা মামলা নং ৩৭১/২০১৮, সি আর ১২৮৪/২০১৬ এ এই মামলার রায় ঘোষণা হয় ১৫ সেপ্টেম্বর,২০১৯ সালে। আদালত আদেশ দেয়, পলাতক আসামী (১) মোঃ জসিম উদ্দিন, পিতা মোঃ আঃ খালেক সরকার, সাং-১০৫ নং জামতলা, চাষাড়া, থানা ও জেলা- নারায়ণগঞ্জের বিরুদ্ধে Negotiable Instrument Act 1881 এর ১৩৮ ধারার বিধান অনুযায়ী গঠিত অভিযোগ যুক্তিসঙ্গত সন্দেহের উর্ধ্বে প্রমাণিত সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় তাকে উক্ত ধারায় দোষী সাব্যস্থক্রমে ০১(এক) বছরের বিনাশ্রমে কারাদন্ড এবং তর্কিত চেকে বর্ণিত টাকার সমপরিমাণ টাকা অর্থাৎ ২৬,০০,০০০ (ছাব্বিশ লাখ) টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করা হলো। অর্থদন্ডের টাকা বাদী প্রাপ্ত হবেন। পলাতক আসামীর প্রতি সাজা পরোয়ানাসহ গ্রেফতারী পরোয়ানা ইস্যু করা হোক।

পরবর্তীতে ১৬৯(১৩) সিআর- ১২৮/১৬ পি- ৫৩০/১৯ জসিম উদ্দিন (বিবাদী) ৮৪০ শফিক ৪/১১/১৯ সদর মডেল থানায় গ্রেফতারি পরোয়ানা গ্রহণ করা হয়। লিগ্যাল নোটিশে জসিম উদ্দিন, পিতাঃ মো খালেক সরকার, সাং ১০৫ নং জামতলা, চাষাড়া থানা ও জেলা নারায়ণগঞ্জ থাকায় ফতুল্লা থানার অন্তর্গত বাসা হওয়ায় পুনরায় গ্রেফতারি পরোয়ানা করার জন্য জেলা ডিস্ট্রিক্ট জজ-১ এ পাঠানো হয়। ২৩-৯-২০২০ আদেশ জজ কোর্ট পুনরায় ফতুল্লা থানায় গ্রেফতারি পরোয়ানার আদেশ প্রদান করেন। ১৬৯(১৩) ৪/১১/১৯ পি- ৫৪৬/২১ পি-৬৭৫/২০ দায়রা মামলা নং- ৩৭১/২০১৮ সিআর – ১২৮৪/১৬ তাং- ১৪/১০/২০২০ মুন্সি সেলিনা ফতুল্লা থানায় পাঠিয়ে দেন।

এড. সানজিদা খানম এম.পি (ঢাকা-৫) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জাতীয় নেতৃবৃন্দের হাত থেকে মানবাধিকারে বিশেষ অবদান রাখায় এ্যাওয়ার্ড গ্রহন করছেন ভি.পি. মশিউজ্জামান পাবেল।

মামলার বাদী ভিপি পাবেল বলেন, ব্যবসার পুরো টাকা গার্মেন্টসের মালিক আটকিয়ে রাখার কারনে বিশেষ করে ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনা ও ভরন-পোষণ এই মুহুর্তে আমার জন্য অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমতাবস্থায় আমি একজন মানব অধিকার কর্মী হিসেবে পুলিশ সুপারের কাছে আকুল আবেদন জানাচ্ছি। অবিলম্বে ইউরো ফ্যাশনের মালিক জসিম উদ্দিনকে গ্রেফতার করার জন্য ফতুল্লা থানাকে নির্দেশ প্রদান করুন। অন্যথায় ইউরো ফ্যাশন কিল্লারপুল ঘেরাও কর্মসূচি দেয়া হবে ।

সূত্র: লাইভ নারায়ণগঞ্জ।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin