ঘুরতে বের হয়ে আটক, দিলেন জরিমানা

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

আজ সকাল থেকে মৌলভীবাজার সদরসহ বিভিন্ন উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে স্থানীয় প্রশাসন। শহরের পশ্চিমবাজার এলাকা থেকে তোলা।
আজ সকাল থেকে মৌলভীবাজার সদরসহ বিভিন্ন উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে স্থানীয় প্রশাসন। শহরের পশ্চিমবাজার এলাকা থেকে তোলা।


মৌলভীবাজারে সকাল থেকেই বৃষ্টির হানা। লকডাউন আর বৃষ্টি উপেক্ষা করেই অকারণে ঘুরতে বেরিয়েছেন অনেকে। পথ চলতে গিয়ে এসব মানুষ প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জেরার মুখে পড়েছেন। বেশির ভাগের মুখে মাস্কও নেই। এতে অনেককে গুনতে হয়েছে জরিমানা। কারও কারও পকেটে আবার জরিমানার টাকাও নেই। তাই সাময়িকভাবে আটক হতে হয়েছে তাঁদের।

আজ শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মৌলভীবাজার জেলা সদরসহ বিভিন্ন উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৪৫ জনকে আটক করা হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, লকডাউন উপেক্ষা করে অকারণে বাইরে ঘোরাফেরা, দোকানপাট খোলা ও যানবাহন চালানোর কারণে তাঁদের আটক করা হয়। এর মধ্যে অনেককে জরিমানাও করা হয়।

সকালে শহরের পশ্চিমবাজার এলাকায় জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অর্ণব মালাকার ও ফয়সাল মাহমুদ ফুয়াদের নেতৃত্বে দুটি দল ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি না মানার কারণে সাত ব্যক্তিকে সাময়িক আটক করা হয়। পরে স্বাস্থ্যবিধি পালনের অঙ্গীকার করিয়ে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এ ছাড়া একই এলাকা থেকে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করায় ২৮ জনকে জরিমানা করে প্রশাসন। তাঁদের কাছ থেকে ১০ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

অর্ণব মালাকার প্রথম আলোকে বলেন, ‘বেশির ভাগের মুখেই মাস্ক নেই। কোনো কারণ ছাড়াই অনেকে ঘুরতে বেরিয়েছেন। এঁদের মধ্যে কেউ কেউ জরিমানার টাকা দিতে পেরেছেন। তবে যাঁরা টাকা দিতে পারেননি, তাঁদের সাময়িক আটক করা হয়েছে। যেন তাঁদের মধ্যে আইন না মানার অনুশোচনা তৈরি হয়।’ লকডাউন নিশ্চিত করতে পুরো জেলায় ২৩টি দল মাঠে কাজ করছে বলে জানান তিনি।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin