ঘরের ভিতর লুকিয়ে ছিল, রাত গভীর হতে ধর্ষণের চেষ্টা

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

তরুণীর ঘরের ভিতরে ঢুকে লুকিয়ে ছিল। রাত গভির হতেই জাপিয়ে পরেন, করে ধর্ষণের চেষ্টা। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে ওয়ারড্রপের সাথে ধাক্কা মেরে মাথা ফাটিয়ে ফেলে তরুণীর। চিৎকার, চেচামেচিতে শুনে পাশের ঘর থেকে ছুটে আসে মা-বাবা। হাতেনাতে আটক করেন প্রতিবেশী যুবককে।

সোমবার (৫ অক্টোবর) বিকেলে ১৬ বছরের তরুণী ‘ধর্ষণ’র বর্ণনা করেন। সেই জবানবন্দী ২২ ধারায় রেকড নেন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুন্নাহার ইয়াসমিন।পরে আটক যুবককে কারাগারে প্রেরণের আদেশ দেন আদালত।আদালত পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইফুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অভিযুক্ত যুবকের নাম মোস্তফা আল মামুন তারেক (২২)। সে নোয়াখালী জেলার ইদিলপুর এলাকার মো. শাহাব উদ্দিন এর ছেলে। বর্তমানে ফতুল্লা থানার তুষার ধারা নুর আলম ভিলা রোড নং ৪ সেক্টরে থাকতেন।

৪ অক্টোবর ওই তরুণীর বাবা ফতুল্লা থানায় মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ এনে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন।বাদী অভিযোগে উল্লেখ করেন, আসামি মোস্তফা আল মামুন তারেক তার মেয়েকে প্রায় সময় রাস্তাঘাটে চলাফেরার পথে উত্যক্ত ও বিভিন্ন ভাবে শ্লীতাহানী করত। আসামি একপর্যায় গত ২ অক্টোবর রাত ১১ টায় বাদীর মেয়ে ঘরে প্রবেশ করে জোর পূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে। সে সময় আমার মেয়ে আসামির হাত থেকে বাঁচতে ধস্তাস্ততি করে ও ডাক-চিৎকার করে।

এত আসামি ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে আমার মেয়েকে মারধর শুরু করে। মারধরের একপর্যায় আমার মেয়েকে জোরে ওয়ারড্রপের সাথে ধাক্কা মেরে মাথা ফাটিয়ে ফেলে। এ সময় মেয়ের ডাক-চিৎকার শুনে বাদী, তার স্ত্রী, ছেলে ও ভাগ্নি জামাই রুমে মেয়েকে উদ্ধার করে দ্রুত ফেরদৌস মেডিকেল হল চেম্বারে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে।

সূত্রঃ লাইভ নারায়ণগঞ্জ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin