কাউন্সিলর খোরশেদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে নারায়ণগঞ্জের একটি আদালত।

আজ বুধবার (১৭ নভেম্বর) খোরশেদের দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করা সাইদা আক্তার শিউলির দায়ের করা ধর্ষণ মামলায় নারায়ণগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক নাজমুল হক শ্যামলের আদালত
এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জসিম উদ্দীন।

উল্লেখ্য চলতি বছরের ২৫ আগস্ট কাউন্সিলর খোরশেদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলাটি দায়ের করেন তার দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করা ব্যবসায়ী সাইদা আক্তার শিউলি।মামলায় উল্লেখ করা হয়- সাঈদা আক্তারের বিয়ের পর প্রথম স্বামীর সংসারে তার ৩টি সন্তান রয়েছে। বনিবনা না হওয়ায় প্রথম স্বামীর সঙ্গে তার বিচ্ছেদ হয়। এরপর থেকে কাউন্সিলর খোরশেদ তার সঙ্গে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে তুলেন। গত বছরের ২ আগস্ট বিকালে সাঈদা আক্তারের কাঁচপুরে অবস্থিত এসএস ফিলিং স্টেশনে খোরশেদ একজন লোককে কাজী বলে সাঈদাকে পরিচয় করিয়ে দেন খোরশেদ। এরপর সেই কাজী তার রেজিস্ট্রারে সাঈদার স্বাক্ষর নিয়ে বলেন আপনারা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।

ঐ দিন রাতে এবং পরে বিভিন্ন সময়ে স্বামী-স্ত্রীর দাবিতে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বলে উল্লেখ করা হয় মামলায়। এছাড়াও খোরশেদের কাছে একাধিকবার সাঈদা আক্তার বিয়ের কাবিননামা চাইলে খোরশেদ কাবিননামা না দিয়ে চলতি বছরের ১৯ জানুয়ারি রাত ১১টায় আবারো সাঈদা আক্তারের বাসায় গিয়ে ধর্ষণ করেন বলে উল্লেখ করা হয় মামলায়।

নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইবুনালে মামলা করা হলে মামলাটি তদন্তের জন্য পিবিআইকে হস্তান্তর করা হয়। তদন্ত শেষে কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের বিরুদ্ধে আনা ধর্ষণের অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে পিবিআই।

পিবিআই এর নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম জানান, তদন্তে খোরশেদের বিরুদ্ধে ওই নারীকে ধর্ষণের অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে গত ৪ নভেম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে এস আই তৌহিদুল ইসলাম তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। গত সপ্তাহের মঙ্গলবার এই মামলার শুনানির দিন ধার্য ছিল। পরবর্তীতে ১৭ নভেম্বর বুধবার শুনানির দিন ধার্য্য করা হয়। যার ফলশ্রুতিতে আজ অভিযুক্ত খোরশেদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করলো আদালত।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin