কদম রসুল ব্রিজের কাজটি প্রথম শুরু করতে চাচ্ছি: মেয়র আইভী

শেয়ার করুণ

শহর-বন্দরবাসীর দুর্ঘব লাঘবের জন্য কদমরসুল সেতুর কাজ দিয়েই তৃতীয় মেয়াদে কাজ শুরু করতে চান বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নব-নির্বাচিত মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মেয়র আইভী বলেন, দলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে কথাটি বলেছেন উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য; আমরা সেটি করতে চাচ্ছি। নারায়ণগঞ্জে প্রচুর কাজ হয়েছে।

বিগত ১০ বছরের সেই ধারা আমরা অব্যাহত রাখব। নতুন কাজ যেগুলো আছে তা আমরা প্রজেক্ট আকারের জমা দেব।কিন্তু সবচেয়ে যেটা জরুরী নারায়ণগঞ্জে পূর্ব পশ্চিম পাড়ে একটা ব্রীজ করা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০১৮ একনেকে অনুমোদন দিয়েছিলেন, এটি আমরা কোভিডের জন্য পিছিয়ে গিয়েছে, এই কদম রসুল ব্রিজের কাজটি প্রথম শুরু করতে চাচ্ছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এর ভিত্তিপ্রস্তর করবেন। আমরা সেই কাজটি বেশি জোর দেবো।

এবার নগরবাসীর জন্য বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের উপর গুরুত্ব দিয়ে আইভী বলেন, ঢাকা ওয়াসা থেকে নারায়ণগঞ্জ ওয়াসা নিয়ে নিয়েছি। সেই কাজটি ভালো ভাবে করার চেষ্টা করব। যাতে সর্ব প্রত্যেকটা ওয়ার্ডে আমরা বিশুদ্ধ পানি পৌঁছে দিতে পারি। এবং আর যে মেগা প্রজেক্টগুলো আছে সেই কাজগুলোকে ধরে রাখার চেষ্টা করবো।

দল-মত নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবেন জানিয়ে ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, আমরা মিলেমিশেই তো আছি। সবাই একসাথে তো কাজ করছি, জনগণকে নিয়েইতো কাজ করছি।

নারায়ণগঞ্জে কাউন্সিলর ৩৬ জন দলের মতো আছে তাদেরকে নিয়েই কাজ করছি। ভবিষ্যতে তাদেরকে নিয়ে কাজ করব। কিছু কিছু সমন্বয়হীনতা আছে, শুধু এখানে না সারা বাংলাদেশ আছে। আর সমন্বয়হীনতাকে কিভাবে সমাধান করা যায় সেই চিন্তা-ভাবনা কিন্তু স্থানীয় সরকারও করছে। সেইভাবেই কিন্তু বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ইনস্ট্রাকশন দেওয়া হচ্ছে। আশা করি, আমরা সবাই মিলে মিশে কাজ করবো, কিছু প্রবলেম তো থাকবেই। সেই প্রবলেমগুলোকে ওভারকাম করে আমরা ভালোভাবে কাজ করার চেষ্টা করব।

গত ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের তৃতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেলিনা হায়াৎ আইভীর নৌকা প্রতীকের সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে হাতি প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন বিএনপি নেতা তৈমূর আলম খন্দকার।

আইভী নৌকা প্রতীকে ১ লাখ ৫৯ হাজার ৯৭টি ভোট পান। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তৈমূর আলম পান ৯২ হাজার ৫৬২ ভোট। তাদের মধ্যে ভোটের ব্যবধান ৬৬ হাজার ৫৩৫। এর আগে ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটির প্রথম ভোটে এবং নারায়ণগঞ্জ পৌরসভাতেও মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন সেলিনা হায়াৎ আইভী। এরপর ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর দ্বিতীয়বারের মতো নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আইভী নৌকা প্রতীক নিয়ে জয়লাভ করেন।

সেবার তিনি বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীকের মো. সাখাওয়াত হোসেনকে ৭৯ হাজার ৫৬৭ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেন। পরে ২০১৭ সালের ৫ জানুয়ারি দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি শপথ গ্রহণ করেন। ২০২২ সালে সিটি করপোরেশন নির্বাচনের গেজেট প্রকাশিত হয় ২৭ জানুয়ারি।

এবার আইভীর নির্বাচনী ইশতিহারে মূল গুরুত্ব ছিল কদমরসুল সেতু। শহর-বন্দরের লাখো মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে এই সেতু হবে অন্যতম মাধ্যম। ৬০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য এই সেতুর অনুমোদন একনেকে পাশ হয়ে গিয়েছে।

সাড়ে তিন কিলোমিটারের এপ্রোচ রোড এবং ৩৮০ মিটারের মূল সেতু তৈরি করার কাজটি টেন্ডার পর্যায়ে রয়েছে। শহরের ৫নং গুদারাঘাট এলাকা থেকে শীতলক্ষ্যা নদীর উপর ঝুলন্ত এই সেতু নির্মাণের স্বপ্ন দীর্ঘদিনের।

গত দুই মেয়াদে আইভীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই সেতুর অনুমোদন একনেকে পাশ করেন। কোরিয়ান কোম্পানির মাধ্যমে টেন্ডার পর্যায়ে রয়েছে সেতুর কাজ। আইভীর হাত ধরে মাত্র দুইবছরের মধ্যেই এই সেতু ব্যবহারের সুবিধা নিতে পারবে শহর ও বন্দরবাসী এমটা আশা করা হচ্ছে । নদী পারাপারের যে অসহনীয় দুর্ভোগ এবং বিপত্তি তা হ্রাস পাবে এই সেতুর মাধ্যমে।

নিউজটি শেয়ার করুণ