এনায়েতনগরে প্রকাশ্যে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত দুইজন গ্রেফতার

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

ফতুল্লার এনায়েতনগরের নয়াবাজারে ইজিবাইকচালক সুজন ফকির হত্যার মূল পরিকল্পনাকারীসহ দুইজনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

আজ সোমবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জে আদমজীনগরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-১১ এর অধিনায়ক তানভীর পাশা জানান
পরকীয়ার জেরেই এই হত্যাকান্ড ঘটেছে ।

ব্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয় গত সোমবার (১৮ অক্টোবর) র‍্যাব-১১ ও র‍্যাব-৫ এর একটি চৌকস আভিযানিক দল নাটোরের বাগাতিপাড়ায় যৌথ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী মো.আব্দুল মজিদ ও হত্যাকান্ডে অংশগ্রহনকারী তার ভাতিজা মো.মজজেম হোসেন।

র‍্যাব-১১ এর অধিনায়ক আরও বলেন, ১৬ অক্টোবর ইজিবাইকচালক সুজন ফকিরের (৪৫) গলাকাটা ও রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে সজিব ফকির বাদী হয়ে ফতুল্লা থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

তিনি আরও বলেন, হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী আব্দুল মজিদের স্ত্রীর সঙ্গে নিহত সুজন ফকিরের পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। এর কারণে সমসাময়িককালে মজিদ ও তার স্ত্রীর মধ্যে দাম্পত্য সম্পর্কের অবনতি ঘটে। ৫ অক্টোবর আব্দুল মজিদের স্ত্রী কাউকে কিছু না বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। অনেক খোঁজাখুঁজির পর স্ত্রীকে না পেয়ে আব্দুল মজিদের সন্দেহ হয় তার স্ত্রী সুজন ফকিরের হেফাজতে আছে। তখন থেকেই তিনি তার ভাতিজা মজজেম হোসেনকে নিয়ে সুজন ফকিরকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। মজজেম তার খালাতো ভাই মো. হাসানকে (২২) সঙ্গে নিয়ে আসে।

তানভীর পাশা বলেন, হত্যাকান্ডের আগের রাতে মজজেম ও হাসান নারায়ণগঞ্জে আসে এবং আব্দুল মজিদের পরিকল্পনা অনুযায়ী তারা ঘটনার দিন সকালে সুজন ফকিরের এলাকায় যান। মজিদ মোবাইল ফোনে সুজনকে ভাতিজা মজজেমের সঙ্গে দেখা করতে বলেন। সুজন দেখা করতে গেলে তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান মজজেম। হত্যাকান্ডে অংশগ্রহণকারী হাসান গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপন করে। তাকে গ্রেফতারে র‌্যাব-১১ এর অভিযান অব্যাহত আছে।

গ্রেফতারকৃতদেরকে সংশ্লিষ্ট মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের পক্ষ থেকে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin