আপিল বোর্ডকে কড়া হুঁশিয়ারি দিলেনঃ জায়েদ খান

শেয়ার করুণ

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে আগামী দুই বছরের জন্য সভাপতি হিসেবে ইলিয়াস কাঞ্চন এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জায়েদ খান নির্বাচিত হয়েছেন। ২০২২-২৪ মেয়াদের দ্বিবার্ষিক এই নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে চিত্রনায়ক জায়েদ খানের কাছে মাত্র ১৩ ভোটে হেরেছেন চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার। তবে নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের পদটি বাতিল হতে পারে।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় হয়ে গত বুধবার (২ ফেব্রুয়ারি) আপিল বিভাগের কাছে এ বিষয়ে দিকনির্দেশনামূলক চিঠি আসে। তবে এ চিঠি মানতে নারাজ জায়েদ খান।

দিকনির্দেশনা চেয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে আসা চিঠি নিয়ে শনিবার জায়েদ খান ও নিপুণকে নিয়ে মিটিং করার কথা আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান সোহানুর রহমান সোহানের। উক্ত মিটিংয়ে যাওয়া প্রসঙ্গ নিয়ে সাফ ‘না’ করে দিলেন জায়েদ খান।

শুধু না করেই ক্ষান্ত হননি, আপিল বোর্ডকে কড়া হুঁশিয়ারি বার্তাও দিলেন। জানালেন, কোনো অবৈধ কমিটির মিটিংয়ে তিনি বসবেন না। দিয়েছেন আইনি নোটিশও।

এ প্রসঙ্গে শুক্রবার জায়েদ বলেন, ‘তিনি বা চুন্নু কেউই উপস্থিত হবেন না মিটিংয়ে। আমি কেন অবৈধ কমিটির কাছে যাব। কেন? আর গেলেই বা কী। মিটিংয়ে যে রায় হবে, তাতে আমার কিছুই যায়-আসে না।

কারণ, তারা অবৈধ কমিটি। তাদের চ্যালেঞ্জ করতে হলে আদালতে যেতে হবে।২৯ জানুয়ারি আমাকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত করা হয়েছে। তারপরও তারা যদি এটি নিয়ে লড়তে চান, সেটা আদালতে হবে। আপিল বোর্ডের কোনো কার্যকারিতাই নেই। আমার আইন উপদেষ্টা একই কথা বলছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপিল বিভাগ হাস্যকর কর্মকাণ্ড করছে। তারা বলেছে, ২৯ তারিখে মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে। আমরা সেই চিঠি বের করে দেখেছি, সেটা ১ ফেব্রুয়ারিতে পাঠান।

২৯ জানুয়ারি আপিল বিভাগের কার্যকারিতা শেষ। ১ ফেব্রুয়ারি তারা মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠাতে পারে না। মন্ত্রণালয়ের কাছেও ওই চিঠি গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।’

আইনি নোটিশ নিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘আপিল বিভাগের কার্যকারিতা সম্পর্কে হয়তো জানে না মন্ত্রণালয়। এ কারণেই এসব ভুল কার্যক্রম বন্ধ করতে মন্ত্রণালয়সহ আপিল বিভাগের পাঁচজনের বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছি। এই কার্যক্রম থামানোর অনুরোধ করছি। যদি তা না করে ৫ ফেব্রুয়ারি মিটিং করে, তাহলে এই অবৈধ কার্যক্রমের কারণে সবার নামে মামলা করব।’

এদিকে নোটিশ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করেছেন নির্মাতা সোহানুর রহমান সোহান।

তিনি বলেন, ‘আমার কাছে একটি আইনি নোটিশ এসেছে। এটা নির্বাচনকে নিয়েই। এখন আমাকে দেখে বুঝতে হবে সেখানে আসলে কী বলা হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, শিল্পী সমিতির নির্বাচনের তফসিলের ১৩ নম্বর ধারায় বলা রয়েছে, ‘নির্বাচনের ফলাফলের বিরুদ্ধে আপিল বোর্ডের নিকট পাঁচ হাজার টাকা জমা দিয়ে আপত্তি দাখিলের শেষ তারিখ ২৯ জানুয়ারি।

আপিল দাখিলের সময় সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। একই তারিখ বিকাল ৫টায় আপিল শুনানি ও নিষ্পত্তি করতে হবে।’

সূত্রঃ আরটিভি

নিউজটি শেয়ার করুণ