আইভীকে এবার মেয়র বানাবে আওয়ামী লীগ

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

২০১১ সালে সেলিনা হায়াৎ আইভীকে মেয়র বানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। ২০১৬ সালে তাকে মেয়র বানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবারও তাকে মেয়র বানাতে হবে আওয়ামী লীগের। আর আইভীর সব উত্তেজনা শুধু মাত্র ওসমান পরিবারের জন্য । আওয়ামী লীগের কাঁধে জাতীয় কয়েকটি বড় ইস্যু। তাই আওয়ামী লীগ চায় জিততে।

আইভী চায় নিজের রাজনীতি করতে। নারায়ণগঞ্জের সিটি কর্পোরেশন বিএনপির হাতে সরকার ছাড়বে না। এ কারণে সব কৌশলে মাঠে থাকছে আওয়ামী লীগ। আইভীর দরকার শুধু চেয়ার। সেটা কোনো ভাবে আসলেই হয়। শামীম ওসমানদের নিয়ে দীর্ঘদিন নেতিবাচক প্রচারণার ইমেজের ভোট আছে, ওটাকেই অস্ত্র মনে করে আইভী কিন্তু নৌকা প্রতীকে ওই ভোট দিয়ে হচ্ছে না।

View Post

আইভী যে ভোটের জোরে এতো দেমাগ দেখায় ওই ভোটটা ছিলো ২০১১ সালের তৈমুর আলম খন্দকারের। ওই ভোট গতবার তিনি না পাওয়ায় আইভীকে জেতাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ করতে হয়েছে। এই কথা ভোটের দুই দিন পর গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সামনে আইভী বলেছেন, আপা, আপনি দায়িত্ব না নিলে আমি এবার মেয়র হতে পারতাম না’।গত নির্বাচনে আইভী শেষের দিকে অনেক হতাশ হয়ে পড়েছিলেন, আমি তার নির্বাচনী প্রচারণা কাভার করেছিলাম। এবারও আইভীকে জিতিয়ে আনতে হবে আওয়ামী লীগের।

নৌকার আইভী তার ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা দিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুরের সাথে পারবে না। এটা উপলদ্ধি করতে পেরেছে কেন্দ্রীয় নেতারা ও আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড। এসব কারনেই শামীম ওসমানকে গুরুত্ব দেয়া। সংগঠনকে নির্বাচনে ভোটে জোরালোভাবে নামানো হচ্ছে। নৌকা বা ধানের শীষ প্রতীকে জিততে প্রার্থীকে অবশ্যই সাংগঠনিক শক্তি লাগবে। সেই শক্তিটা আইভীর হাতে নাই। নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে আইভীর গ্রহনযোগ্যতা আছে এটা অস্বীকার করার সুযোগ নেই।

তার জনপ্রিয়তাও রয়েছে। তবে নৌকার প্রতিক নিয়ে জয়ের জন্য যে ধরণের নির্বাচনের মাঠ দরকার সেটা এবার আইভীর হয়নি বলেই এতো আয়োজন। এখনো বলি, আইভী একা নৌকা নিয়ে জিততে পারবে না। আওয়ামী লীগের দায়িত্ব নিয়ে জেতাতে হবে ভোটের মাধ্যমে।আইভীর যে মানের জনপ্রিয়তা এই ধরণের জনপ্রিয়তা আওয়ামী লীগের অনেক এলাকার নেতাদের আছে কিন্তু তাদের দল টেনে তুলে না। আইভীকে টানা হচ্ছে।

এটাই তার রাজনৈতিক জয়।আইভী যে মেজাজে নির্বাচনে কথা বলে, এই স্টাইলে নৌকা প্রতিক নিয়ে জেতা কঠিন থেকে কঠিন। যদি সংগঠন তার জন্য কাজ না করে। দলীয় প্রতিক মানেই হচ্ছে দলের শক্তি প্রয়োগ করে বিজয়ী হওয়া। দলীয় শক্তি লাগবেই, না হলে এবার দৌঁড়ে টিকবে না।

লেখকঃ জাহিদ হাসান,সাংবাদিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin