অবশেষে মুখ খুললেন আলোচিত সেই টকশোটির ‘সঞ্চালক’ নাহিদ

শেয়ার করুণ

নারীর প্রতি অবমাননাকর বক্তব্য দিয়ে তীব্র সমালোচিত ডা. মুরাদ হাসান প্রতিমন্ত্রীর পদ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। তাকে পদত্যাগ করতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দেয়ার পর আলোচিত টকশোটির সঞ্চালক নাহিদ বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগে দম্ভের প্রশ্রয় নেই।’

গত ১ ডিসেম্বর রাতে ‘অসুস্থ খালেদা, বিকৃত বিএনপির নেতাকর্মী’ শিরোনামে এক ফেসবুক লাইভে যুক্ত হন মুরাদ। লাইভটির সঞ্চালক ছিলেন ইউটিউবার ও ফেসবুকার নাহিদ।

লাইভে বিএনপির রাজনীতি সমালোচনার একপর্যায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ও দলটির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কন্যা জাইমা রহমানকে নিয়ে বিভিন্ন মন্তব্য করেন মুরাদ হাসান। এ ছাড়া, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্ম ও পরিবার নিয়েও কথা বলেন তিনি।

মুরাদ হাসানের আপত্তিকর বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা শুরু হয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

এর মধ্যে রোববার রাতে আবারও নাহিদের সঙ্গে লাইভ আলোচনায় আসেন মুরাদ। তার ওই লাইভেও ছিল বিতর্কিত অজস্র মন্তব্য। এছাড়া, তার ফাঁস হওয়া একটি ফোনালাপ নিয়েও শুরু হয় তীব্র সমালোচনা।

এসব ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবারের মধ্যে মুরাদকে প্রতিমন্ত্রীর পদ ছেড়ার নির্দেশ দেন বলে সোমবার জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

এর পরপরই ফেসবুকার ও ইউটিউবার নাহিদ তার ফেসবুক পেজ নাহিদরেইনসে এক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘আওয়ামী লীগ, দাম্ভিকতা ও অশ্লীলতাকে প্রশ্রয় দেয় না। আগামীকালের (মঙ্গলবার) মধ্যে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের নির্দেশ দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।’

স্ট্যাটাস দেয়ার পর লাইভেও আসেন নাহিদ। তিনি দাবি করেন, মুরাদের বক্তব্য আপত্তিকর মনে হলেও প্রতিমন্ত্রী হওয়ার কারণে তাকে থামাতে পারেননি।

নাহিদ বলেন, ‘আমার খুব বেশি যে কন্ট্রোল আছে তা না, হি ইজ আ মিনিস্টার, কাম-অন। আই অ্যাম জাস্ট গাই নেক্সট ডোর। আমি যত কথাই বলি না কেন, আমার কথায় খুব বেশি কিছু একটা হবে না। হি হ্যাজ টু কন্ট্রোল হিমসেলফ’

‘তাও বলব, আমার লাইভে যেহেতু হয়েছে অ্যান্ড আই ওয়াজ হোস্টিং ইট, আমারও কিছু দায় আছে উনাকে থামিয়ে দেয়ার। আমাদের দেশের একটা মন্ত্রীকে থামিয়ে দেয়ার প্র্যাকটিসটা আমরা এখনও করে উঠতে পারিনি। আই লার্নড মাই লেসন। আমি একটা জিনিস শিখেছি যে, আমার যখন থামানো উচিত মনে হবে, তাকে থামিয়ে দিতে হবে।’

মুরাদ যা বলেছেন তার প্রতি কোনো সমর্থন নেই বলেও জানান নাহিদ। তিনি বলেন, ‘তিনি যা করেছেন এটা আমি মোটেও তা সাপোর্ট করি না। ডেফিনিটলি ইটস রিয়েলি ব্যাড। তিনি ক্ষমা চাইবেন এ ব্যাপারে। আমার রেসপনসিবিলিট হচ্ছে আমার শোতে হয়েছে। আই অ্যাম রিয়েলি স্যরি ফর দ্যাট।’

ঘটনার প্রেক্ষাপট বর্ণনা করে নাহিদ বলেন, বিএনপির ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব নিয়ে জানতে চাওয়া হয় প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের কাছে, কিন্তু মুরাদ হাসান যে ভাষায় উত্তর দিয়েছেন, সেটা ছিল অপ্রত্যাশিত।

তিনি বলেন, ‘এ রকম একটা লাইভ শোতে আসলে, যখন এটি ভয়েস কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে হয় তখন অপোজিট গেস্টকে কন্ট্রোল করা অনেক টাফ হয়। আমরা জানি যে, ডা. মুরাদ হাসান একটু হাইপার টাইপের মানুষ। উনি অনেক বেশি এক্সাইটেড থাকেন সবসময়। ইফ হি হ্যাজ আ মাইক, যখন তিনি একটা টকশোতে থাকেন তখন আরও বেশি হাইপার থাকেন।’

জাইমা রহমান ইস্যুতে রাখা বক্তব্য নিয়ে ডা. মুরাদ হাসানের উত্তেজনা প্রশমনের চেষ্টা করা হয়েছিল বলেও দাবি করেন নাহিদ।

তিনি বলেন, ‘উই ট্রাইড টু মেক হিম আন্ডারস্ট্যান্ড, মেক হিম কাম অ্যাবাউট হিজ স্টেটমেন্ট। এবং উনি আসলে কোন প্রশ্নের কী জবাব দেবেন সেটা সম্পূর্ণ উনার ব্যক্তিগত মতামত ছিল। যেখানে আমাদের বা আমার কোনো কন্ট্রোল ছিল না। আই অলওয়েজ ট্রাইড মাই বেস্ট। আমি উনাকে প্রশ্ন করেছি একটা, উনি জবাব দিছ্ছিলেন আরেকভাবে। হি ওয়াজ ইন হাইপার মুড।’

জাইমাকে নিয়ে মুরাদ হাসানের বক্তব্যের কড়া সমালোচনাও করেন নাহিদ। তিনি বলেন, ‘জাইমাকে নিয়ে অনেকগুলো কমেন্ট করেছেন মে বি ফিউ সেকেন্ডসের মধ্যে, যে কমেন্টগুলো হি ওয়াজ নট দ্যাট আই ওয়াজ সাপোর্টিং হিম, ইট ওয়াজ বিকজ সো আনএক্সপেক্টেড।’

নিউজটি শেয়ার করুণ