অনলাইনে প্রতারিত,হয়রানির স্বীকার হলে করনীয়

শেয়ার করুণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

সময়ের সাথে সাথে প্রযুক্তির উৎকর্ষতার সাথে সাথে জিনিসপত্রের বিকিকিনি আর সামাজিক যোগাযোগ পদ্ধতিতে এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। কেনাকাটার ঝামেলাকে সহজ করতে এখন অনলাইনে কেনাকাটা জনপ্রিয়তার শীর্ষে। আমাদের দেশেও অনলাইন কেনাকাটা এখন ব্যপক জনপ্রিয়।আর সামাজিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার, ইমো, হোয়াটস অ্যাাপ ব্যাপক জনপ্রিয়।

অনলাইন কেনাকাটায় মানসম্মত পণ্যের পাশাপাশি কিছু অসাধু চক্র পেতে বসেছে প্রতারণার নিত্যনতুন ফাঁদ। অনেকেই অনলাইনে পণ্য কিনতে গিয়ে হচ্ছেন প্রতারণার স্বীকার। সমাজের অনেকেই এমন আছে, যারা ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার সহ নানা সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রতারণা অথবা হুমকি/ব্লাকমেইলিং এর শিকার হচ্ছেন।

অনেক ক্ষেত্রে মান সম্মানের ভয়ে কারো কাছে বিষয়টি উপস্থাপন করতে চান না। প্রতারক বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা আবদার করে। টাকা না দিলে- সন্মানহানি করার ভয় দেখায়, ম্যাসেঞ্জারে আজেবাজে মন্তব্য করে। যা প্রতিনিয়ত কারো না কারো সাথে হচ্ছে।

এক্ষেত্রে আপনার করণীয় কি?

এক্ষেত্রে আপনি বাংলাদেশ পুলিশের সহায়তা নিতে পারেন। আপনার ফেসবুকের টাইম লাইন/ ম্যাসেঞ্জার অথবা অন্য কোনো সোশ্যাল মিডিয়াতে কেউ কোনো বাজে ছবি বা ম্যাসেজ পাঠিয়ে আপনাকে উত্তক্ত করলে আপনি নিন্মলিখিত পদক্ষেপগুলো নিতে পারেন।

নিরাপত্তা আমাদের মৌলিক অধিকার। সর্বোপরি, আমাদের এই মৌলিক অধিকার যাতে কেউ খর্ব করতে না পারে সেই বিষয়ে আমাদের আরও সচেতন হতে হবে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin